| |

ফুলবাড়ীয়ায় মাদরাসায় কথিত ভুতের আছর ঃ ৫ দিন ধরে চলছে কবিরাজরে ঝাড়ফোঁক পানি পড়া

আপডেটঃ 8:35 pm | March 15, 2017

Ad

ফুলবাড়ীয়া সংবাদদাতা ঃ ফুলবাড়ীয়া উপজেলার সন্তোষপুর আক্কাছিয়া দাখিল মাদরাসায় ৫ দিন ধরে কথিত ভূতের আছর বিরাজ করছে। ক্লাস চলাকালীন সময়ে অজ্ঞান হয়ে পড়ছে ছাত্রীরা।

গত শনিবার ক্লাস চলাকালীন সময়ে ৩ জন ছাত্রী অসুস্থ হয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়লে ভূতের আছর খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। ভূত ছাড়াতে এ পর্যন্ত ৭ জন কবিরাজ ঝাড়ফোঁক পানি পড়া দিচ্ছে। মাদরাসায় ভুতের আছরের ঘটনায় রবিবার মাদরাসা বন্ধ করে রাখে কর্তৃপক্ষ।

উপজেলার সন্তোষপুর আক্কাছিয়া দাখিল মাদরাসায় ৪ শতাধিক ছাত্র/ছাত্রী রয়েছে। শনিবার মাদরাসা ক্লাস চলাকালীন সময়ে সপ্তম শ্রেনীর লতিফা খাতুন ৬ষ্ঠ শ্রেনী, আকলিমা ৭ম, লিজা আকতার ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলে। ভয়ে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ রবিবার  মাদরাসা বন্ধ রাখে।

সোমবার মাদরাসা খুললে ক্লাস চলাকালীন সময়ে ৮/১০ জন ছাত্রী সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলে। মঙ্গলবার সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলে ২ জন ছাত্রী। সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলা ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী আরজিনা আকতার জানান, প্রথমে প্রচন্ড মাথা ব্যথা শুরু হয়। সেই সাথে শুরু হয় পেট ব্যথা।

এ দুই কারনেই সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলে ছাত্রীরা। মাদসার শিক্ষকরা জানান, এ পর্যন্ত শুধু ছাত্রীরাই সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলছে। ছাত্ররা ভাল আছে। এ ঘটনার জন্য ৭ জন কবিরাজ দিয়ে মাদসায় চলছে ঝাঁড়ফোঁক পানি পড়া। কবিরাজের পানি পড়ায় কোন কাজ হচ্ছে না। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসকে জানানো হয়েছে।

বুধবার মাদরাসায় গিয়ে দেখা গেছে, পাশ্ববর্তী মধুপুর উপজেলার আশ্রা গ্রামের কবিরাজ আছর আলী মাদসায় পানি পড়া ছিটিয়ে দিচ্ছে। কি কারনে এমন ঘটনা ঘটনা তা তিনি নিজেও বলতে পারছেন না।

মাদরাসায় ভুতের আছর খবরটি ছড়িয়ে পড়ার পর মাদসায় শিক্ষার্থীরা আসা বন্ধ করে দিয়েছে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের মধ্যে ভূতের আছর বিরাজ করছে।

মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি এডভোকেট ইমদাদুল হক সেলিম জানান, বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানানো হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার লীরা তরফদার জানান, বৃহস্পতিবার একটি মেডিকেল টিম নিয়ে তিনি মাদরাসায় যাবেন।

মাদরাসার সুপার আব্দুল বারী জানান, মাদরাসায় ভূতের আছরের খবরটি ছড়িয়ে পড়ার পর মাদরাসায় শিক্ষাথী আসা বন্ধ করে দিয়েছে। এ পর্যন্ত ৭ জন কবিরাজ দিয়ে ঝাড়ফোঁক পানি পড়া দেয়া হয়েছে। তাতে কোন কাজ হচ্ছে না।

বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানানোর পর একটি মেডিকেল টিম মাদরাসায় আসার কথা রয়েছে।

ব্রেকিং নিউজঃ