| |

শ্বশুড় বাড়িতে স্ত্রীকে কুপিয়ে পালিয়েছে স্বামী

আপডেটঃ 8:46 pm | April 24, 2017

Ad

ঈশ্বরগঞ্জ(ময়মনসিংহ)প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে স্ত্রীকে কুপিয়ে পালিয়েছে স্বামী। মরাত্মক আহত জুলেখা খাতুন ৫দিন ধরে  ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।  বিষয়টি নিয়ে গত কাল সোমবার বিকেলে জুলেখার পিতা বাদী হয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি এজহার দায়ের করেছে।
জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের ইউনিয়নের দড়িপাঁচাশি গ্রামের মো. আব্দুল মান্নানের মেয়ে দুই সন্তানের জননী জুলেখা খাতুনের (২৬) সাথে সোহাগী ইউনিয়নের হাটুলিয়া গ্রামের মো. হস্তন আলীর ছেলে মিজানুর রহমানের (৩০) সাথে প্রায় দশ বছর পূর্বে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকেই কর্মহীন নেশাগ্রস্থ স্বামীর যৌতুকের লালসায় পড়ে জুলেখা। হতদ্ররিদ্র বাবার উপর মরার উপর খরার ঘা হয়ে দাঁড়ায় জুলেখার বিয়ে। তুব মেয়ের সুখের জন্যে জামাতার নিত্যদিনের আবদার রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে স্বামীর অত্যাচার সইতে না পেরে গত ১৭ এপ্রিল জুলেখা বাবার বাড়িতে চলে আসে।

এখানে এসেও শেষ রা হয়নি তার। ১৯ এপ্রিল যথারিতি শ্বশুড়বাড়িতে বেড়াতে আসে মিজান। সারাদিন ভালো খাটলেও সন্ধ্যায় নেশার টাকার জন্যে হন্যে হয়ে পড়ে। তার চাহিদা মেটাতে স্ত্রী জুলেখাকে টাকা দিতে চাপ দিতে থাকে। জুলেখা টাকা দিতে অস্বীকার করায় খাটের নিচে থাকা দা দিয়ে কুপিয়ে মরাত্মক আহত করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে আশপাশের লোকজন ঘর থকে জুলেখা কে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে।
জুলেখা খাতুন জানায়, স্বামী বেকার হওয়ায় টাকার চাহিদা মেটাতো বাবা। কিন্তু আমার হতদরিদ্র বাবার পে সব সময় টাকা দেওয়া সম্ভব ছিল না। সময় মতো টাকা নাে পেলেই শারীরিক নির্যাতন চাল নো হতো। অত্যাচার সইতে না পেরে এক পর্যায়ে বাবার বাড়িতে চলে আসি। ঘটনার দিন স্বামী বেড়াতে এসে টাকা না পেয়ে খাটের নিচে থাকা দা দিয়ে আমাকে কুপিয়ে চলে যায়।
এ বিষয়ে মিজানের বক্তব্য নেয়ার চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইলটি বন্ধ রয়েছে, ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম খান বলেন, বিষয়টি নিয়ে একটি এজাহার দায়ের করা হয়েছে।  বিষয়টি তদন্ত করে  ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ