| |

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হালুয়াঘাট ১ আসনে বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন আওয়ামীলীগের মনোনিত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্ধন্ধিতা করতে চান

আপডেটঃ 12:40 pm | August 02, 2017

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক: আগামী জাতীয় পরিষদের সংসদ সদস্য হিসেবে ময়মনসিংহ ১ আসনে (হালুয়াঘাট+ধোবাউড়া) থেকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করার প্রত্যাশা করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো: আনোয়ার হোসেন।

 

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার ২নং হুগলী ইউনিয়নের ছাতুগাও এ তিনি জন্মগ্রহন করেন। পিতার নাম মৃত আবুল হাসেম। মাতা মোছা: জরিনা খাতুন।

 

উনি হালুয়াঘাট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মেট্রিক ও কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট ও ডিগ্রি পাশ করেন। ছাএ জীবনে তিনি পূর্বপাকিস্তান ছাএলীগের কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল কলেজ হোস্টেল শাখার সাধারন সম্পাদক ছিলেন।

 

শিক্ষাজীবন শেষ করে একজন সফল ব্যাংকার হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ছাএজীবন থেকেই তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে ছাএলীগ থেকে আওয়ামীলীগের একজন কর্মী হিসেবে কাজ করেন।

 

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধে একজন সাহসী কোম্পানী কমান্ডার হিসেবে তিনি মুক্তিযোদ্ধে অংশগ্রহন করেন। মুক্তিযোদ্ধকালীন সময়ে তিনি দেশমাতৃকাকে পরাধীনতার হাত থেকে মুক্ত করার জন্য বান্ধরকাটা, তেলিখালী, তন্ত্রর, বাঘাইতলা সেতু ধ্বংস, রাঙামারী বিলের যুদ্ব, জুগলী সেতু ধ্বংস, হালুয়াঘাট ও সরচাপুর যুদ্ধ সহ অনেক যুদ্ধে বীরত্বের সহিত যুদ্ধ করেন। যা আজও স্বরনীয় হয়ে আছে।

 

৭৫ এর বঙ্গবন্ধুর নির্মম হত্যাকান্ডের পর প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য তিনি জনগনকে উদ্বদ্ধ করন কাজে নিজকে নিয়োজিত করেন। প্রতিরোধ যুদ্ধা কাদের সিদ্দিকির সাথে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রক্ষা করেন।

 

মুক্তিযোদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের জন্য মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মাধ্যমে তিনি কাজ করেন। ১৯৮০ সালের ৫ই মে জিয়াউর রহমানের মুক্তিযোদ্ধের বিরোধী শক্তির পূর্নবাসন নীতির বিরোধীতা করে ময়মনসিংহ জেলায় সর্বপ্রথম তার নেতৃত্বে হরতাল অনুষ্ঠিত হয়।

 

বিএনপি জামাতজোটকে বাংলাদেশ থেকে উচ্ছেদ ও তাদের কার্যক্রম প্রতিহত করার জন্য মুক্তিযোদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন ও ঘাতক দালাল সমন্বয় কমিটির ময়মনসিংহ জেলা কমিটির সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

 

শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে সারাদেশব্যাপী যুদ্ধঅপরাধীদের প্রতিহত করে স্বাধীনতার পক্ষের রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় আনার জন্য কাজে নিজকে নিয়োজিত করেন।

 

১১ই জানুয়ারী ২০০৭ এর মাইনাসটু ফরমুলা অনুযায়ী তত্ববধায়ক সরকারের ষড়যন্ত্র প্রতিহত করার জন্য আওয়ামীলীগের নির্দেশে জননেএী শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে সর্বাত্বক প্রচেষ্ঠা চালান।

 

তিনি কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এর সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান, বর্তমান ময়মনসিংহ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার, ময়মনসিংহ জেলা মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাষ্টের সদস্য সচিব।

 

তিনি পরপর ৪ বার মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। হালুয়াঘাট উপজেলাধীন ২নং হুগলী ইউনিয়নে ইসলামী ফাউন্ডেশন, তহশীল অফিস, সমাজকল্যান অফিস, ইউনিয়ন হেল্থ কমপ্লেক, সিডস্টোর, ইউনিয়ন পরিষদ অফিস, স্কুল, মাদ্রাসা সহ ১৩টি প্রতিষ্ঠান নির্মানের জন্য বিনামূল্যে নিজস্ব জমি প্রদান করেছেন।

 

তিনি ছাতুগাও প্রাইমারী সরকারি বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সহসভাপতি ও ময়মনসিংহ ল্যাবরেটরি উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

 

তিনি ময়মনসিংহ জেলা সমন্বয় কমিটি, জেলা আইনশৃঙ্গলা কমিটির সদস্য হিসেবে এবং ময়মনসিংহ জেলার কেন্দ্রীয় কারাগারের পরিদর্শক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন সাধারন জনগনের ও মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যানের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

 

হালুয়াঘাটের জনগন মনে করেন উনার মত একজন সৎ, নিষ্ঠাবান, নির্ভীক ব্যাক্তিকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ যদি আগামী সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রদান করেন তাহলে হালূয়াঘাট ১ আসন থেকে আওয়ামীলীগ প্রার্থী বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা শতভাগ।

ব্রেকিং নিউজঃ