| |

ভালুকায় বোমা বিষ্ফোরণে নিহত জঙ্গির নাম আলম প্রামানিক। শক্তিশালী ৪টি বোমা সহ সরঞ্জাম উদ্ধার আটক ৭

আপডেটঃ 10:37 pm | August 28, 2017

Ad

শেখ আজমল হুদা মাদানী ভালুকা প্রতিনিধি: ভালুকার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের কাশর গ্রামে আজিম উদ্দিনের বাড়ি হতে কয়েকটি শক্তিশালী তাজা বোমা ও বোমা তৈরীর ব্যাপক সরঞ্জাম ২৮ আগষ্ট সোমবার উদ্ধার করেছে পুলিশ।
২৭ আগষ্ট রোববার বিকালে আজিম উদ্দিনের বাড়ির ভাড়াটিয়া আব্দুল্লাহ ড্রাইভার ওরফে আরিফ (৪০) এর প্রকৃত নাম আলম প্রামানিক। বোমা বিষ্ফোরিত হয়ে ঘটনাস্থলে সে নিহত হয়।

 

খবর পেয়ে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ ওই বাড়িটি ঘিরে ফেলে পরে পুলিশ বাড়িওয়ালা আজিম উদ্দিন তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম, ছেলে হাছান (২০) ও আসিফ (১৬) কে আটক করে। সোমবার সকাল ১০ টা থেকে ঢাকা হতে আসা বোম ডিসপোজাল টিম একটি দল বিষ্ফোরন ঘটা ঘরটিতে উদ্ধার অভিযান চালায়।

 

অনুমান সারে বারোটার দিকে ডিসপোজাল টিমের সদস্যরা এলাকা কাপানো শব্দে উদ্ধার করা প্রথম বোমাটির বিষ্ফোরণ ঘটিয়ে নিষ্ক্রিয় করে। এর পর একে একে ৪টি শক্তিশালী বোমার বিষ্ফোরণ ঘটিয়ে নিষ্ক্রিয় করা হয়। সোমবার বিকাল ৩টার দিকে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলাম জানান ২২ ঘন্টার একটি শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতির সুষ্ট পরিসমাপ্তি ঘটেছে।

 

তিনি জানান রোববার সন্ধ্যার পূর্বে ভালুকার কাশর গ্রামে আজিম উদ্দিনের বাড়ির ভাড়াটিয়া বোমা বিষ্ফোরণে নিহত হওয়ার খবর শোনে ঘটনা স্থলে এসে দেখতে পান নিহত ব্যক্তির দুই হাতের কব্জি ও দুই পা বোমার আঘাতে উড়ে গেছে।

 

প্রথমে বাড়িওয়ালা ও তার স্ত্রী সন্তানদের আটক করা হয়। পরে রাতে নিহত ব্যক্তির স্ত্রী ও দুই সন্তানকে আটক করার পর তাদের পরিচয় পাওয়া যায়। নিহত ব্যক্তি নাটোর জেলা সদরের বেলকুচি এলাকার আবুল কালাম প্রামানিকের ছেলে আলম প্রামানিক।

 

জঙ্গি কার্যক্রমের সাথে জড়িত থাকায় পুলিশের ওয়ানটেড হিসেবে পালিয়ে বেড়াচ্ছিলো। সে গত কয়েকদিন আগে আব্দুল্লা নামে পরিচয় দিয়ে স্ত্রী পারভীন আক্তার (২৮) ছেলে ইব্রাহিম (৭) ও ইসাহাক (৩) কে নিয়ে ভালুকায় কাশর গ্রামে ব্যবসা করার কথা বলে বাড়ি ভাড়া নেয়। তিনি জানান বোমা তৈরীর যে পরিমান সরঞ্জাম উদ্ধার হয়েছে এটিকে বোমা তৈরীর কারখানা বলা যায়।

 

নিহত আলম প্রামানিক বোমা তৈরীতে দক্ষ ছিল বলে ধারনা করা হচ্ছে, সে কুষ্টিয়া হতে কাউন্টার টেরিরিজমের চোখকে ফাকি দিয়ে পালিয়ে এসে কিছুদিন অন্যত্র থাকার পর সর্বশেষ ভালুকার ওই বাড়িতে ভাড়াটে হিসেবে জায়গা নেয়।

Pic-Boma====

তিনি আরও জানান উদ্ধারের পর বিষ্ফোরণকৃত হাতে তৈরী ১টি হ্যান্ড গ্রেনেড, দুটি প্রেশারকোকার বোমার প্রতিটির মধ্যে আড়াই কেজি করে বিষ্ফোরক ছিল ৮কেজি পাউডার, একটি আইএডি মাইন আকৃতির বোমা এগুলি অত্যন্ত ক্ষমতা সম্পন এতই শক্তিশালী যে, কোন লোক সমাগমে বিষ্ফোরিত হলে হাজার হাজার লোকের প্রাণ হানি ঘটতে পারতো।

 

ঘরের মধ্যে প্রেশারকুকার বোম দুটি প্যাকেট করা অবস্থায় হয়তো স্থানান্তরের জন্য রাখা ছিলো। যে দুটি বিষ্ফোরনের সময় বিল্ডিংয়ের চালা উড়ে গেছে। জঙ্গীদের নাশকতা হতে জনগনকে রক্ষা করতে সব রকম ব্যবস্থা ও সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে।

ব্রেকিং নিউজঃ