| |

জামালপুর সরিষাড়ীতে ছাত্রী ধর্ষন, শিক্ষক গ্রেফতার

আপডেটঃ 12:48 am | September 21, 2017

Ad

মোঃ রিয়াজুর রহমান লাভলু ॥ জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা বালিক উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজী শিক্ষক গোলাম মাসুদ কর্তৃক ১০ম শ্রেনীর সাদিয়া আক্তার ছন্ধ্যা (১৫) নামে একজন ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে শিক্ষক গ্রেফতার হয়েছে।

 

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজী শিক্ষক গোলাম মাসুদ দীর্ঘদিন যাবৎ ঐ বিদ্যালয়ের বর্তমানে ১০ম শ্রেনীর ছাত্রী সাদিয়া আক্তার ছন্ধ্যা কে গৃহ শিক্ষক হিসেবে ইংরেজী পড়াতেন। লেখাপড়া ফাকে ফাকে পরীক্ষার ভাল ফলাফল পাইয়ে দেওয়ার স্বার্থে ধর্ষক সাদিয়া কে কু প্রস্তাব ও যৌন সম্পর্কের কথা বলে আসছিল।

 

ছাত্রীকে বিভিন্ন ভয়ভীতি, প্রলোভন ও বিবাহ করিবে মর্মে কসমের মাধ্যমে সাদিয়াকে দীর্ঘদিন যাবৎ শারিরীক সম্পর্ক হিসেবে যৌন মিলন করে আসছিল। শারিরীক সম্পর্কে দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য ইংরেজী শিক্ষক গোলাম মাসুদ ছাত্রী সাদিয়াকে একটি সেম্ফনী এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন কিনে দেয়।

 

এই মোবাইলের মাধ্যমে তাদের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের প্রেমালাপ কথোপকথন চলে আসছিল। এভাবেই তাদের মাঝে যৌন মিলন এর গভীর সম্পর্ক হয়। ধর্ষক গোলাম মাসুদ সাদিয়াকে বলে আমারা তো সরিষাবাড়ীতে গিয়ে ২ জন স্বাক্ষীর সামনে ৩ বার কবুল বলার মাধ্যমে মৌখিক বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই।

 

তখন সাদিয়া বলে কাজী ছাড়া কিভাবে বিবাহ করলাম। তখন ধর্ষক গোলাম মাসুদ বলে হযরত আদম (আ) ও বিবি হাওয়া (আ) কে যখন বিবাহ দেওয়া হয়েছিল তখন তো কোন কাজী ছিল না।

 

এই কথা পবিত্র কোরআন ও হাদীস শরীফে আছে। এই কথা বলে, আমার মধ্যে বিশ্বাস সৃষ্টি করে। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে পূনরায় গত ১৫/০৯/২০১৭ ইং তারিখ রোজ শুক্রবার আনুমানিক রাত ০৮ ঘটিকায় আামাদের বাড়ীতে আমার পড়ার রুমে গিয়ে শারীরির যৌন মিলন করে। বিষয়টি বাড়ীর লোকজন টের পায়। ধর্ষক বিষয়টি বুঝতে পেরে তৎক্ষনাত পালিয়ে যায়।

 

ইতিমধ্যেই ধর্ষনের ঘটনাটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে ও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরের দিন রোজ শনিবার এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সুধী সমাজ, ছাত্র/ছাত্রী শিক্ষক ও বিভিন্ন পেশা জীবি মানুষ ধর্ষক গোলাম মাসুদের বিরুদ্ধে বিদ্যালয় থেকে বহিস্কার ও এলাকা থেকে অপসারনের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল প্রদর্শন করা করে।

 

এ নিয়ে যখন টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছিল, তখন ধর্ষিতা মেয়ে সাদিয়া লজ্জায় খাওয়া দাওয়া ছেড়ে দেওয়ায় মেয়ের চাচা বাবু ধর্ষক শিক্ষকের নিকট বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে গেলে ধর্ষক মেয়ের চাচা বাবুকে কে দেশীয় অস্ত্র কুড়াল দিয়ে মারতে আসে।

 

এতে বিষয়টি নিয়ে এলাকায় আরও চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। পরে মেয়ের বাবা ছানোয়ার হোসেন এর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ধর্ষক শিক্ষক গোলাম মাসুদ কে বিদ্যালয় থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে।

 

বিষয়টি নিয়ে এলাকায় দারুণ উত্তেজনার সৃষ্টি হলে প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব মোজাম্মেল হক উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও তারাকান্দি তদন্ত কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অবহিত করেন। তাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে।

 

এ বিষয় নিয়ে সরিষাবাড়ী থানার মামলা নং- ২২, তারিখ- ১৮/০৯/২০১৭ ইং একটি মোকদ্দমা দায়ের করা হয়েছে। উল্লেখ্য, উক্ত ধর্ষকের বর্তমানে ২ জন স্ত্রী রয়েছে। তার বিরুদ্ধে ইতি পূর্বেও এই ধরনের ঘটনার প্রমান আরও রয়েছে বলে জানা যায়।

ব্রেকিং নিউজঃ