| |

ময়মনসিংহে আন্তর্জাতিক শান্তি মিছিল অনুষ্ঠিত

আপডেটঃ 6:58 pm | September 22, 2017

Ad

ময়মনসিংহ জেলা সংবাদাদতা এএইচএম মোতালেবঃ আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস উপলক্ষ্যে শহরের শান্তিমিত্র সমাজ কল্যান সংস্থার উদ্যোগে প্রতিবন্ধি কমিউনিটি সেন্টারের সহযোগিতায় গতকাল কাচিঝুলীস্থ মেহগিনি সড়কে মানববন্ধন ও শান্তি মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

শান্তিমিত্র সমাজ কল্যান সংস্থার নির্বাহী পরিচালক সুবর্ণা পলি দ্রং এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও শান্তি শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন পিসিসি এর নির্বাহী পরিচালক ডঃ অঞ্জন কুমার চিচাম,ট্রাইবাল এসোসিয়েশন এর সভাপতি অরণ্য চিরান।

 

সবশেষে শান্তি শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শান্তিমিত্র সমাজ কল্যান সংস্থার কার্যালয়ে শেষ হয়। জানা গেছে এটা ১৯৮১ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের এক চুক্তির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়। সেপ্টেম্বর’১৯৮২ সালে প্রথমবারের মতো শান্তি দিবস পালন করা হয়।

 

২০০১ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে অফিসিয়াল ভাবে ২১ সেপ্টেম্বর-আর্ন্তজাতিক শান্তি দিবস হিসেবে স্থায়ীভাবে অনুমোদন দেয়া হয় এবং ২০০২ সাল হতে তা পালন করা হচ্ছে। বিশ্বের অনেক দেশে, অনেক জায়গায় যুদ্ধ-বিগ্রহ চলছে, অনেক মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে, মানুষ তাদের বাসস্থান হারাচ্ছে, ভাল জীবনের সন্ধানে বাধ্য হয়ে নিজের আবাসভূমি ছাড়ছে।

 

শিশুরা বেড়ে উঠছে সহিংসতার মধ্যে। আমাদের কি করণীয় কিছুই নেই? আমরা কি নিজ নিজ অবস্থান থেকে অহিংসভাবে। এই মূলসুর একতার/ একসাথে হওয়ার শক্তিকে সম্মান করে; যারা ভাল জীবনের সন্ধানে নিজেদের বাসস্থান ছাড়তে বাধ্য হয়েছে তাদের সম্মান, নিরাপত্তা এবং মর্যাদার জন্য এটি একটি আর্ন্তজাতিক উদ্যোগ।

 

এই বছর আর্ন্তজাতিক শান্তি দিবস সারা পৃথিবীর মানুষদের শরর্নাথী এবং অভিবাসীদের সহায়তা প্রদানের জন্য যুক্ত ও সংহত করার দিকে মনোযোগ দিবে/আলোকপাত করবে।

 

এই বার্তা সেইসব কমিউনিটিদের সাথে সহভাগিতা করা হবে যারা শরনার্থী এবং অভিবাসীদের জায়গা দিয়েছে এবং যারা উদ্বিগ্ন এই ভেবে যে শরনার্থী এবং অভিবাসীরা তাদের শারীরিক এবং অর্থনৈতিক নিরাপত্তাহীনতা আনতে পারে।

 

এই দিবসটির মাধ্যমে উদ্বাস্তু ও অভিবাসীদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করা। পরিশেষে এই দিনটির আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে সকল মানুষকে একসাথে নিয়ে আসা এবং মানবতার বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দেওয়া।
এই দিনটির মাধ্যমে আশা করা হচ্ছে যে, তরুণরা এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। উদাহারণস্বরুপ, তারা উদ্বাস্তু ও অভিবাসী মানুষদের স্বাগত জানাবে এবং সাহায্য করবে।

 

তরুণ শরনার্থী ও অভিবাসীদের প্রতি বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিতে পারে। শান্তির জন্য কিছু ছোট ছোট পদক্ষেপ নিতে পারি না? আমাদের ছোট কাজ হতে পারে পৃথিবীর গল্পের একটা অংশ মাত্র, যা পৃথিবীকে এগিয়ে নিতে ভূমিকা রাখতে পারে। ২০১৭ এর মূলসূর বা থিম হচ্ছে ‘শান্তির জন্য একসাথে; সম্মান, নিরাপত্তা এবং মর্যাদা সকলের জন্য।’

ব্রেকিং নিউজঃ