| |

সফল রাজনৈতিক নেতা অধ্যাপক ডা: এম এ আজিজ

আপডেটঃ 11:06 pm | October 04, 2017

Ad

ইব্রাহিম মুকুট ॥ বৃহত্তর ময়মনসিংহের চিকিৎসার কেন্দ্রবিন্দু ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাছির উদ্দিন আহমেদ যখন তার কর্মগুনে আলো ছড়ালো ঠিক এমনই সময় তাকে নীতিনির্ধারকদের উদাসীনতা, দায়িত্বহীনতা ও অপরাজনীতির কারনে অন্যত্র বদলী করার গভীর ষড়যন্ত্র করা হয়ে ছিল।

 

কাঙ্খিত সেবা ও উন্নত চিকিৎসার কথা চিন্তা বাংলাদেশ স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিব) এর মহাসচিব দেশের পথিতযশা চিকিৎসক নেতা অধ্যাপক ডা: এম এ আজিজ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাছির উদ্দিন আহমেদ সাহেবের বদলী ফেরাতে সফল হন।

 

হাসপাতালের এই উন্নয়ন মুলক মুহুর্তে তাকে বদলী করা হলে বঞ্চিত হতো ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বারবার তাগিদ দিয়েও কাঙ্খিত সুরাহা না পেয়ে জনগণের নিকট দায়বদ্ধতার কারনে অন্তহীন সমস্যার কথাগুলো লিখে ফেসবুকে পোস্ট করেছিলেন পরিচালক নিজে।

 

তিনি ‘ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিচালকের উপলব্ধি’ শিরোনামে ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, আমি হয়তো ক্লান্তিকর সময় অতিবাহিত করছি। এ ভাবে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন সম্ভব নয়।

 

নীতিনির্ধারকদের উদাসীনতা, রোগীদের অতিরিক্ত চাপ, সম্পদের সীমাবদ্ধতা, সব বিষয়ে সময়ক্ষেপণ, অপরাজনীতি, কিছু কিছু কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীলতার অভাব, রোগীর এটেন্ডেন্টদের দায়িত্ববোধ এর অভাব সব মিলিয়ে সরকারি সংস্থা ভালো ও কার্যকর রোগীবান্ধব সেবা দিতে পারছে না।

 

বিশেষ করে সেবিকাদের আচরণগত ক্রটি ও দায়িত্ব পালনে আন্তরিকতার চরম অভাব, তাদেরকে প্রশাসনিক কারণে বদলির জন্য লেখা হলেও তা কোনো অজানা কারণে কার্যকর না হওয়ায় একজন সংস্থা প্রধানকে অসন্মানিত করা হয়। আমি আমার কাজকে ভালোবাসি। মুক্তিযোদ্ধা বাবার সন্তান। আত্মমর্যাদা নিয়ে বাঁচতে চাই।

 

দাসত্ব করার জন্য নয়। আমি যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এর সমাধান এর জন্য। অন্যথায় আমাকে প্রত্যাহার করে সেনাবাহিনীতে ফেরত নিয়ে যাওয়া হউক।

 

দুর্ণীতি অনিয়ম প্রতিরোধে ও চিকিৎসাসেবায় নতুন ইতিহাস রচনাকারী, রোগী দরদী খ্যাত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতলের পরিচালক বিগ্রেডিযার জেনারেল নাছির উদ্দিন আহমেদ আরো লিখেছেন, কারো প্রতি আমার রাগ নেই। সময় দ্রুত চলে যাচ্ছে। বাজেটের অভাবে অনেক সপ্ন পূরন করতে পারছি না। নীতিনির্ধারকদের সাহায্য প্রয়োজন।

 

আমি ময়মনসিংহ বিভাগ বাসীকে শ্রদ্ধা করি ও আন্তরিক ভাবেই ভালবাসি। দয়া করে উপদেশ দিবেন না। হাসপাতালে এসে একজন সুনাগরিক হিসেবে সমস্যাগুলো গভীরভাবে অনুধাবন করুন এবং আমার কাছ থেকে জানুন।

 

তারপর দয়া করে মন্তব্য করবেন। কারো অনুভূতিতে আঘাত করলে বা আমার আচরনে কষ্ট পেলে আমাকে ক্ষমা করবেন। মর্মব্যাধী ও হৃদয়স্পর্শী এসব কথা মানুষকে যেমন হৃদয়গ্রামী করেছে তেমনি ডা: এম এ আজিজ সাহেবকেও উৎসাহিত ও অনুপ্রানিত করেছে। তিনি সবার আগে চিন্তা করেছেন বৃহত্তর ময়মনসিংহের সাধারন মানুষের সেবা।

 

নিরাপদ ও নিশ্চিন্তে চিকিৎসা সেবা পাওয়ার নিশ্্রয়তা। যে মানুষটি সবার আগে মানুষের সেবা করার জন্য জীবন বাজি রেখে কাজ করে যাচ্ছেন তাকে ময়মনসিংহে রাখতে হবে। এ জন্য ডা: এম এ আজিজ স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় সহ উচ্চ মহলে যার পর নাই তদবির করেছেন। আপাদত সস্থির নিশ্বাস ফেলে ময়মনসিংহবাসী।

 

আগামীতেও তিনি ময়মনসিংহবাসীর চিকিৎসা সেবা সহ বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে আরো বলিষ্ট ভুমিকা রাখতে পারেন সেই প্রত্যয়ে অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ মহাসচিব স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ আসন্য জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৪ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী। তিনি ময়মনসিংহ সদরের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

 

ময়মনসিংহ চর এলাকায় উন্নয়নের জন্য তিনি চর ঈশ্বদিয়া, নিলুক্ষিয়া, বোরর চর, চর শিরতা, খাগডহর বাজার, ঘাগড়া, দাপুনিয়া ময়মনসিংহ শহরে ব্যপক গনসংযোগ করে যাচ্ছেন। রাস্তা ঘাট, ব্রীজ, কালভার্ট, মসজিদ নির্মানে কাজ করে যাচ্ছেন।

ব্রেকিং নিউজঃ