| |

ত্রিশালে ৮জন মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবাদ সম্মেলন

আপডেটঃ 11:49 pm | October 14, 2017

Ad

ফয়জুর রহমান ফরহাদ ॥ ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ৮জন মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে ২টি মিথ্যা মামলা দায়ের করার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেছে ত্রিশাল থানা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড।

 

ত্রিশাল প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ময়মনসিংহ জেলা ইউনিট কমান্ডের সাবেক সহকারী কমান্ডার (দপ্তর) এবং ময়মনসিংহ বিভাগীয় মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ও পূর্ণবাসন সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা কামাল পাশা।

 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ত্রিশালের সাবেক সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আব্দুল মতিন সরকার, সাবেক জেলা কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন,

 

ত্রিশাল উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো: আশরাফুল ইসলাম, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পূর্ণবাসন সংস্থার চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা শেখ হারুন অর রশিদ, সাবেক সহকারী কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা মো: আলাউদ্দিন,

 

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা এম ফরিদুজ্জামান খান, সাবেক উপজেলা কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা মোজাহিদ খান ভোলা, ত্রিশাল উপজেলা ডেপুটি কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান,

 

সাবেক কমান্ডার তোজাম্মল হোসেন, ডেপুটি কমান্ডার একেএম ফজলুল হক আবুল, ডেপুটি কমান্ডার মজিবুর রহমান, সাবেক ডিপুটি কমান্ডার মোখলেছুর রহমান, সাবেক থানা সহকারী কমান্ডার ইব্রাহিম খান,

 

ময়মনসিংহ বিভাগীয় মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ও পূর্ণবাসন সোসাইটির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা সুধাংশ কুমার সরকার, উপজেলা স্মৃতিসৌধের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রজব আলী, ধানীখোলা ইউনিয়ন কমান্ডার এমদাদুল হক, বইলর ইউনিয়ন কমান্ডার আফাজ উদ্দিন, কাঠাল ইউনিয়ন কমান্ডার মজিবুর রহমান সেজু,

 

আমিরাবাড়ী ইউনিয়ন কমান্ডার নুরুল ইসলাম, মঠবাড়ী ইউনিয়ন কমান্ডার আলাউদ্দিন, বীরমুক্তেযোদ্ধা কাশেম আলী, আজিজ ফরাজী, মোজাম্মেল হক, গোলাম মাওলা, নাছির উদ্দিন,

 

জেলা কৃষকলীগ নেতা শাহাদাৎ হোসেন বাবুল, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি মাহাবুবুর রহমান, সাধারন সম্পাদক আবু সাইদ, সদস্য মনিরুজ্জামান, সোহাগ, আলী হোসেন, কামরুজ্জামান, মো: মাসুদ, মো: শফিক প্রমূখ।

 

এসময় উপজেলার শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তানগন উপস্থিত ছিলেন। লিখিত বক্তব্যে বীরমুক্তিযোদ্ধা কামাল পাশা জানান, মুক্তিযোদ্ধের চেতনা বিনষ্টকারী ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম কর্তৃক ত্রিশালের ৮জন বীর মুক্তিযোদ্ধার নামে ময়মনসিংহ আদালতে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।

 

চলতি বছরের ফেব্র“য়ারিতে স্বচ্ছ মুক্তিযোদ্ধা তালিকা প্রণয়নের লক্ষ্যে সারাদেশের ন্যায় ত্রিশাল উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাইয়ে আবেদন করেন কানিহারী ইউনিয়নের আব্দুল আজিজের ছেলে আবুল কালাম।

 

পরে নির্ধারিত তারিখে যাচাই বাছাই কমিটির সম্মুখে জেলা কমান্ডার বীরমুেিক্তযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের প্রশ্নের সঠিক জবাব দিতে পারেননি। নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা প্রমাণ করতে ব্যার্থ হলে উপজেলা পরিষদের নিচতলায় এসে যাচাই বাছাই কমিটির সদস্যদের হুমকি দেয়।

 

মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য আবুল কালাম যাচাই বাছাই কমিটির সদস্যদেরকে প্রভাবিত করার জন্য নানা ভাবে অনুরোধ ও তদবীর করেছেন বলে জানান তিনি। তিনি সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, অনৈতিক অনুরোধ প্রত্যাখান করার ফলে আক্রোশে ক্ষিপ্ত হয়ে নানা ভাবে আমাদের ক্ষতি এবং প্রাণনাশের গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে আবুল কালাম।

 

এরই জেরে ভিন্ন অভিযোগে ময়মনসিংহ আদালতে মুক্তিযোদ্ধা কামাল পাশা, মজিবর রহমান, আবুল কাশেম, রফিকুল ইসলাম রহি, ফেরদৌস সহ ত্রিশালের ৮জন মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে দুটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

 

বীরমুক্তিযোদ্ধা কামাল পাশা সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সুষ্ঠ তদন্তে দাবি জানান। ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম কতৃক ত্রিশাল উপজেলার ৮ জন মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করায় ১২-১০-২০১৭ইং তারিখে সকাল ১১টায় ত্রিশাল উপজেলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

 

সাংবাদিক সম্মেলনে সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এম এ মতিন সরকার বলেন, অপরাধ যেই করুক বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে তাদের বিচাপর হবে। আইনের উর্ধে কেউ নয়। সেদেশের যত বড় ব্যাক্তিই হোক। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করবে এটা আমরা কোন ভাবেই মেনে নিবনা। প্রয়োজনে মুক্তিযোদ্ধারা সম্মিলিত ভাবে তৃীব্র আন্দোলন গড়ে তোলবে।

 

ময়মনসিংহ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো: আনোয়ার হোসেন বলেন, ত্রিশালের ৮জন মুক্তিযোদ্ধার নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে শুধু তাদের হয়রানী করে নাই। সারা দেশের মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযুদ্ধাদের ইতিহাসকে কলঙ্কিত করেছে ও হয়রানী করেছে। আমরা ময়মনসিংহ জেলা সহ সকল মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সাথে নিয়ে আমরা এটি প্রতিহত করব।

 

তিনি আরো বলেন, আবুল কালাম একজন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা। আমি নিজে ত্রিশাল যাচাই বাছাই কমিটিতে উপস্থিত থেকে তার সাক্ষাৎকার গ্রহন করি। আবুল কালাম মুক্তিযোদ্ধা প্রমানের জন্য স্বাক্ষী সহ যাচাই বাছাই কমিটির নিকট কোন কাগজপত্র উপস্থাপন করতে পারে নাই। এতে প্রমানিত হয় আবুল কালাম কোন মুক্তিযোদ্ধা না।

 

ত্রিশাল উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কমিটির আবুল কালাম মুক্তিযোদ্ধা নয় এই বলে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলে প্রতিবেদন দাখিল করেছে। ময়মনসিংহ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহকারী কমান্ডার বীরমুক্তিযোদ্ধা মো: আলাউদ্দিন বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের নামে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার দায়ের করা মামলা অনতি বিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে।

 

অন্যথায় প্রকৃত সকল মুক্তিযোদ্ধারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিহত করবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা এম ফরিদুজ্জামান খান বলেন, যেহেতু আবুল কালাম মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কমিটিতে মুক্তিযোদ্ধা প্রমানে ব্যার্থ হয়েছে বিধায় সে একজন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা।

 

৮ন জন মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে বিধায় সরকার তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান।

ব্রেকিং নিউজঃ