| |

রোহিঙ্গাদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে ভারতের সর্বোচ্চ সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ -বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এমপি

আপডেটঃ 12:51 am | October 24, 2017

Ad

জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এমপি বলেন, বাংলাদেশের এমন সামর্থ্য নেই যে ১০ লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে স্থায়ীভাবে আশ্রয় দিতে পারবে বা তাদের খাবার দিতে পারবে। এমনিতেই বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে বহু সমস্যায় জর্জরিত। তার ওপর রোহিঙ্গাদের চাপ।

 

জাতি হিসেবে মানবিক দিক থেকে বাংলাদেশ অত্যন্ত সংবেদনশীল। বাংলাদেশ চায় জাতিসংঘ কর্তৃক গঠিত কফি আনান কমিশন যে সুপারিশ করেছেন তার পুরোপুরি বাস্তবায়ন। আর এক্ষেত্রে রোহিঙ্গাদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে ভারতের সর্বোচ্চ সহযোগিতা কামনা করেন বিরোধীদলীয় নেতা।

 

রাজধানীর হোটেল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও-এ সফররত ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাতকালে তিনিএ কথা বলেন। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেন, এটা মানবিক সমস্যা।

 

আশ্রয় নেয়া মিয়ানমারের লাখ লাখ রোহিঙ্গাদের চাপ সামলাতে বাংলাদেশকে সম্ভাব্য সব ধরনের সহযোগিতা দেবে ভারত। বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বোঝা সামলাতে ভারত বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

 

এক প্রশ্নের উত্তরে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, “ঘবরমযনড়ৎ রং ভরৎংঃ নঁঃ ইধহমষধফবংয রং ঃযব ভরৎংঃ” । সংসদীয় গণতন্ত্রের বিরোধীদলীয় নেতার গঠনমূলক ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন সুষমা স্বরাজ।

 

বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ভারতের প্রতি বাংলাদেশের কৃতজ্ঞতার সীমা নেই। মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত আমাদের যে সাহায্য করেছিল তা বাংলাদেশের জনগণ কখনই ভুলবেনা।

 

১ কোটি মানুষকে আশ্রয়দান, বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র সরবরাহ এবং সরাসরি যুদ্ধে ভারতীয় সেনাদের জীবনদান- বাংলাদেশ এগুলো শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে। পদ্মা ও তিস্তার পানি সমস্যা ছাড়াও ভারতের সাথে বাংলাদেশের আরো অনেক সমস্য রয়েছে।

 

আশা করি বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র ভারত দ্রুত এসব সমস্যার সমাধান করবেন। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রতিউত্তরে বলেন, ভারত সরকার এসব সমস্যা সমাধানে বদ্ধ পরিকর।

 

ভারতের বাজারে বাংলাদেশের পণ্য রফতানিতে যে সকল বাধা রয়েছে তা দূর করে উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য ঘাটতি কমিয়ে আনতে ভারত সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ভারতের সাথে দ্বি-পাক্ষিক অর্থনৈতিক সম্পর্ক শক্তিশালী হলেও দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য ঘাটতি অনেক বেশি।

 

তাই এ ব্যবধান কমিয়ে আনা প্রয়োজন। উত্তরে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারত সরকার এ ব্যাপারে আন্তরিক। বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে উভয় দেশ একসাথে কাজ করলে দ্রুত এর ফলাফল পাওয়া যাবে।

 

বিরোধীদলীয় নেতা বিদ্যুৎ ও জ্বালানীর ক্ষেত্রে ভারতের সাথে বাংলাদেশের যে সকল চুক্তি হয়েছে সেগুলোর সম্পূর্ণ বাস্তবায়নে তাগাদা দিলে সুষমা স্বরাজ বলেন, ভারত সরকার বেশ কিছু চুক্তি বাস্তবায়ন করেছে বাকীগুলো পর্যায় ক্রমে বাস্তবায়ন হবে।

 

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ তাজুল ইসলাম চৌধুরী এমপি, ফখরুল ইমাম এমপি, বিরোধীদলীয় হুইপ সেলিম উদ্দিন এমপি, নূরুল ইসলাম মিলন এমপি,

 

নূর-ই-হাসনা লিলি চৌধুরী এমপি, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার এস.এম ফয়সাল চিশ্তী, ভারতের পররাষ্ট্র সচিব এস জয়শংঙ্কর, বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা প্রমুখ।

ব্রেকিং নিউজঃ