| |

ময়মনসিংহ আওয়ামীলীগ ও বিএনপিতে প্রার্থীর সংখ্যা বেশি জাপা বর্তমানের চেয়ে বেশি আসন চাইতে পারে জোটের কাছে

আপডেটঃ ১:১২ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮

Ad

স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে মনোনয়ন নিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে বিভাজনের। বৃহত্তম দল আঃলীগে এর প্রভাব সবচাইতে বেশি। বিএনপি জাতীয় পার্টি জাসদ ও অন্যান্য দলে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কম পরিলক্ষিত হচ্ছে।

শাসক দল আঃলীগে প্রর্ত্যকে উপজেলায় একাধিক প্রার্থী আঃলীগের মনোনয়ন প্রাপ্তীর প্রত্যাশায় জনসংযোগ বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচি মিছিল মিটিংএ পৃথক পৃথকভাবে অংশগ্রহন করে তাদের সাংগঠনিক ও জনপ্রিয়তার পরিচয় দিচ্ছে। আঃলীগের মনোনয়ন প্রার্থীদের অনেকের ধারনা আঃলীগের মনোনয়ন পাওয়া মানেই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে যাওয়া।

এ ধারনা থেকেই আঃলীগে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সংখ্যা অধিক বলে মনে করেন অনেকে। বিএনপির নেতৃবৃন্দ মনে করেন ভোট যদি সুষ্ঠভাবে হয় ভোটাররা যদি তাদের ভোটাধিকার নির্ভয়ে সঠিকভাবে প্রয়োগ করতে পারে তাহলে ময়মনসিংহ জেলায় বিএনপি সর্বোচ্চ সংখ্যক আসনে জয়ী হবে বলে মনে করেন। বর্তমান সরকারের মূন্ত্রী, এমপি, নেতাকর্মীদের আচরন ও দূর্নীতি সাধারন জনগনকে সরকারের প্রতি ভিতশ্রদ্ধ করে তুলেছে বলে ধারনা বিএনপির।

ফলশ্রুতিতে ভোটাররা পরিবর্তনের লক্ষে বিএনপির পক্ষে ভোট প্রদান করবে বলে মনে করেন বিএনপির অনেক নেতা। জাতীয় পার্টি ও জাসদসহ অন্যান্যরা একই ধারনার বসবর্তী হয়ে নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্ধন্তিতা করতে আগ্রহী। বর্তমানে জেলার ১১টি সংসদীয় আসনের মধ্যে বিরোধী দলীয় নেত্রী রওশন এরশাদসহ ৪টি জাতিয় পার্টির এমপি। তারা মনে করেন আঃলীগের সাথে যদি এবারও জোরগত নির্বাচন হয় তবে তারা অধিক সংখ্যক আসনে নির্বাচনের প্রার্থীতা দাবি করবে। তার মধ্যে পূর্বের আসনগুলিসহ ময়মনসিংহ ৬ ফুলবাড়িয়ার আসনটি পাওয়ার দাবি করেন। জাসদের পক্ষ থেকে ফুলবাড়িয়া ও নান্দাইলের আসন দুটির উপর গুরুত্ব দিচ্ছে বেশি। ১৪ দলীয় জোটের শরিকদল হিসেবে এ দুটি আসনে তাদের দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন প্রাপ্তীর প্রত্যাশা করছে বেশি। এ ব্যাপারে জাসদ দলীয় সংসদ সদস্য প্রার্থীরা জনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছে। এবার দেখা যাক ময়মনসিংহ জেলার বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে কোন কোন আসনে কারা মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন।

ময়মনসিংহ ৭ (ত্রিশাল) ঃ রেজা আলী, আব্দুল মতিন সরকার ও হাফেজ রুহুল আমিন মাদানী এই তিনজন সাবেক এমপিসহ আঃলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন, পৌর মেয়র এ.বি.এম আনিসুজ্জামান আনিস, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও জেলা আঃলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. জালাল উদ্দিন, জেলা আঃলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকা ও সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি আহমদ আলী আকন্দ, ত্রিশাল উপজেলা আঃলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জুয়েল সরকার, আঃলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপ সম্পাদক নুরুল আলম মিলন পাঠানের কথা শুনা যাচ্ছে।
বিএনপি থেকে ডা.মাহবুবুর রহমান লিটন, বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন মনোনয়ন চাইবেন বলে শুনা যায়। এই আসনে যুদ্ধ অপরাধের মামলার আসামী বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির এম এ হান্নান যিনি কারাগারে আছেন এবং বিরোধী দলীয় নেত্রী রওশন এরশাদ এই আসনে প্রার্থী হতে পারেন বলে শুনা যাচ্ছে।
ময়মনসিংহ ৮ (ঈশ^রগঞ্জ) ঃ আঃলীগের দুই বারের সাবেক সংসদ সদস্য কেন্দ্রীয় কমিটির শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর সাত্তার, বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সুমেন্দ্র কিশোর চৌধুরী, সাবেক উপজেলা যুবলীগের সভাপতি বর্তমান জেলা আঃলীগ নেতা দুলাল আকন্দ, সাবেক ছাত্রনেতা বর্তমান জেলা আঃলীগের সদস্য তারেক মনোনয়ন চাইতে পারেন।
বিএনপি থেকে সাবেক এমপি নুরুল কবির সাহিন, প্রকৌশলী মোঃ লুৎফুল্লাহেল, মাজেদ, বাবু, কামরুজ্জামান লিটন আরঙ্গ জেভ বেলাল বিএনপির মনোনয়ন চাইবেন। বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ফখরুল ইমাম এমপি এই আসনের অন্যতম মনোনয়ন প্রত্যাশী।
ময়মনসিংহ ৯ (নান্দাইল) ঃ আঃলীগ থেকে বর্তমান সংসদ সদস্য আনোয়ার আবেদীন খান তুহিন ও সাবেক সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল আব্দুসসালাম সম্ভাব্য প্রার্থী। নান্দাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক চৌধুরী, অধ্যক্ষ এম.এ বারিক, এড. আব্দুল হাই ও ১৪ দলের শরিক দল জাসদের এডভোকেট মোঃ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে বিবেচিত।
বিএনপির সাবেক এমপি ক্ষুররম খান চৌধুরী মনোনয়ন চাইবেন। জাতীয় পার্টি থেকে এই আসনে হাছনাত মাহমুদ তালহা মনোনয়ন চাইবেন বলে জানিয়েছেন।
ময়মনসিংহ ১০ (গফরগাঁও) ঃ বর্তমান সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ পাবেল, সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, জেলা আঃলীগের সভাপতি এড. জহিরুল হক খোকা, জেলা আঃলীগের সাধারন সম্পাদক ও আনন্দমোহন কলেজের ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি এড. মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির বাইস চেয়ারম্যান মেজর অবঃ রেজাউল করিম, জেলা আঃলীগের সহ সভাপতি উবায়দুল আনোয়ার বুলবুল, সাবেক পৌর মেয়র এড. কায়সার আহমেদ, ঢাকা মহানগর যুবলীগ নেতা মুরাদ আহমেদ মনি আকন্দ সম্ভাব্য আঃলীগের প্রার্থী হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।
বিএনপির আলোচিত উপজেলার সভাপতি এ.বি সিদ্দিকুর রহমান ও সাবেক এমপি ফজলুর রহমান সুলতানের ছেলে মুশফিকুর রহমান মনোনয়ন চাইতে পারেন।
ময়মনসিংহ ১১ (ভালুকা) ঃ আঃলীগের সাবেক এমপি ডা: এম আমানউল্লাহ সহ উপজেলা আঃলীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু, জেলা আঃলীগের সদস্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ¦ এম. এ ওয়াহেদ, ডা: কে.বি.এম হাদিউজ্জামান সেলিম, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগ নেতা আশরাফুল হক জর্জ, জেলা আঃলীগের সাবেক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মহিউদ্দিন, এড. রাখাল চন্দ্র সরকার (চলবে)

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ