| |

অতীতের মত সুখে দু:খে যেমন হিন্দু ভাইদের পাশে ছিলাম ভবিষ্যতেও থাকব

আপডেটঃ ১০:১৩ পূর্বাহ্ণ | অক্টোবর ০৯, ২০১৮

Ad

রুহুল আমিন: ময়মনসিংহ পৌরসভার উদ্যোগে আসন্ন শারদীয় দূর্গোৎসব উপলক্ষে পৌরসভার শাহাবুদ্দিন মিলনায়তনে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাথে ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র ইকরামুল হক টিটু এক মতবিনিময় সভা করেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন পৌরসভার মেয়র ইকরামুল হক টিটু। মতবিনিময় সভায় সনাতন ধর্মাবলম্বী নেতৃবৃন্দের মধ্যে জেলা হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি এড. বিকাশ রায়, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এড. রাখাল সরকার, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সহ সভাপতি এড. পিযুষ সরকার, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এড. তপন দে, মহানগর হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি এড. প্রশান্ত দাস চন্দন ও সাধারন সম্পাদক পবিত্র রায়, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাবেক আহ্বায়ক ও আলোকিত ময়মনসিংহ পত্রিকার সম্পাদক বাবু প্রদীপ ভৌমিক, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক শংকর সাহা, রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ ভক্তিপ্রদানন্দ, পৌরসভার প্যানেল মেয়র (২) নজরুল ইসলাম, পৌরসভার কাউন্সিলর ফারুক হাসান, কাউন্সিলর সরাফউদ্দিন, কাউন্সিলর হামিদা পারভিন, পৌরসভার প্রধান নির্বাহী তরিকুল ইসলাম, পৌরসভার প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মিয়া, বিভিন্ন পূজা মন্ডবের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন নিহার রঞ্জন দে কৃষ্ণ, অখিল দেবনাথ, বিধান আইচ, সুচিত্রা সেন গুপ্ত,ইরা আচার্য্য, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক মানিক সরকার প্রমুখ। সনাতন ধর্মের নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে মেয়র টিটুকে পাটগুদাম মোড়ের বিজয়সিং দুরদুরীয়া মন্দিরটি পূণনির্মান করে দেওয়ার জন্য অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানান। উল্লেখ থাকে যে, উক্ত মন্দিরটি ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মেয়র টিটু উক্ত মন্দিরটি পূননির্মান করে দেয়। মেয়র ইকরামূল হক টিটু তার বক্তব্যে বলেন, আপনাদের পরামর্শ আমার পাথেয়। অধিকাংশ রাস্তা পূজার আগেই চলাচল উপযোগী করে দেওয়া হবে বলে তিনি আশ^াস দেন। পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা যদিও পৌরসভার রুটিন ওয়ার্ক তারপরেও পূজা চলাকালীন সময়ে বিশেষ নজর দেওয়া হবে। পৌরসভায় যাতে নিরবিচ্ছিন্ন বিদুৎ বজায় থাকে তার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে। পৌরসভায় বিশেষ সেচ্ছাসেবক বাহিনী গঠন করা হবে ও ইজি বাইক চলাচলকে সীমিত করা হবে। স্ব-স্ব এলাকার কাউন্সিলরদের ধারা সামাজিক নিরাপত্তা কমিটি গঠন করা হবে। এই শহরে কোন সাম্প্রদায়িক শক্তি যাতে বিশৃঙ্খল অবস্থা সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে পৌরপরিষদ বিশেষ নজর রাখবে। অতীতের মত আমরা হিন্দু, মুসলমান ঐক্যবদ্ধভাবে উৎসবকে আনন্দময় করে তুলতে সচেষ্ট থাকব। আমি অতীতের মত সুখে দু:খে যেমন হিন্দু ভাইদের পাশে ছিলাম ভবিষ্যতেও থাকব। পৌরমেয়র উপস্থিত পূজারীদের মধ্যে প্রতিটি মন্ডবের জন্য কিছু আর্থিক অনুদান প্রদান করেন। প্রতিমা বিসর্জনের জন্য স্থান নির্ধারণ ও সহায়তার জন্য জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এড. রাখাল সরকারকে আহ্বায়ক করে একটি কমিটি গঠন করা হয়। সবাইকে শারদীয় দূর্গোৎসবের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে মতবিনিময় সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন মেয়র টিটু।

ব্রেকিং নিউজঃ