| |

ভালুকায় বাচ্চাসহ গাভী জবাই আটক ২

আপডেটঃ ১০:৪৭ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ২৫, ২০১৮

Ad

শেখ আজমল হুদা মাদানী ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহ ভালুকা উপজেলা ২৫ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকালে ভালুকা বাজার কসাই পট্রিতে পেটে বাছুরসহ গাভী জবাই করায় লিটন ও মাহবুব নামে দুই কসাইকে জবাই করা গাভীর মাংস সহ ভালুকা মডেল থানা পুলিশ আটক করেছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, উপজেলার ধামশুর গ্রামের মৃত জমদর ফকিরের ছেলে ভালুকা বাজারের কসাই কালাম মিয়া তার দুই সহযোগী নিয়ে একটি গাভী জবাই করে। জবাই করা গাভীর পেটে বাচ্চা দেখে আশপাশের লোকজন বিষয়টি থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ দুই কসাইকে আটক করে। এ সময় দোকান মালিক কসাই কালাম পালিয়ে যায়। জানাযায় ভালুকা বাজার সহ পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডে ৮/১০ টির মত কসাইয়ের দোকান রয়েছে যেসব দোকানে নিয়ম বর্হিভূত ভাবে লাইসেন্স বিহীন মাংস বেচা কিনা করছে। খোজ নিয়ে জানাগেছে ডাক্তারী ছারপত্র না নিয়ে প্রতিদিন রোগা ও নিষিদ্ধ পশু জবাই করে চলেছে এসব মাংস ব্যবসায়ী কসাইরা। ভালুকা বাজারে বাবুল কসাই দীর্ঘদিন যাবৎ খাসির নামে ছাগী জবাই করে মানুষকে প্রতারিত করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসার ডা. হেলাল আহম্মদ জানান, প্রজননক্ষম কোন প্রাণী, যেমন বকন, গাভী, ছাগী জবাই করা সম্পুর্ণ আইন বর্হিভূত। ভালুকা পৌর এলাকার হাট বাজারে মাংস বিক্রেতাদেরকে প্রাণী সম্পদ অফিস থেকে কোন লাইসেন্স দেয়া হয়নি, এটি পৌরসভার এখতিয়ারাধীন। পশু জবাইয়ের উপযুক্ততা যাচাইয়ের জন্য কারা নিয়োজিত রয়েছেন জানতে চাইলে তিনি জানান এটি তাদেরও দায়িত্ব কিন্তু কসাইদের দোকান এক জায়গায় না থাকায় খোজ খবর রাখা সম্ভব হয়না। তিনি আরও বলেন আমি এখানে যোগদান করার পর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পৌর মেয়রকে ভালুকা উপজেলার ২৬ জন কসাই নিয়ে দুই দুই বার আলোচনা করেছি কি কি ধরনের পশু জবাই করা নিষেধ তারপরও আমাদের নিষেধ মানেনি। পৌর কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে জানাযায় কসাইদের কোন লাইসেন্স দেয়া হয়নি। উল্লেখ্য এর পূর্বেও কসাইরা মৃত গরুর মাংস বিক্রি করেছে।

ব্রেকিং নিউজঃ