| |

সাড়া দিচ্ছেন ওবায়দুল কাদের

আপডেটঃ ৭:২২ অপরাহ্ণ | মার্চ ০৩, ২০১৯

Ad

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভিসি অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া বলেছেন, আমরা শতভাগ আশাবাদী তবে শঙ্কামুক্ত নই। ওনার অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। উনি চোখ খুলছেন, পা নাড়াচ্ছেন, কথা বলার চেষ্টা করছেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে আজ (রোববার) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিল্টন হলে আয়োজিত জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আলী আহসান, অধ্যাপক ডা. অসীত বরণ অধিকারী উপস্থিত ছিলেন।

রোববার সকালে বুকে ব্যথা অনুভূত হলে দ্রুত ওবায়দুল কাদেরকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটের (সিসিইউ) ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের (আইসিসিইউ) ২ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন তিনি।

সকাল থেকেই তাকে দেখতে হাসপাতালের ডি-ব্লকের সামনে ভিড় করেন দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

রোববার বেলা ৩টা ৩৪ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন প্রধানমন্ত্রী। ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন তিনি। বিকাল সোয়া ৪টার দিকে তিনি বেরিয়ে যান।

বিকাল ৪টা ২৫ মিনিটে হাসপাতালে আসেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। পৌনে ৫টার দিকে তিনি হাসপাতাল থেকে বের হয়ে আসেন।

বিএসএমএমইউ সূত্র জানায়, ওবায়দুল কাদেরের পাশে কিছু সময় কাটান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। তার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন তারা। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা এ সময় ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা এবং চিকিৎসার সার্বিক বিষয়ে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসাধীন ওবায়দুল কাদেরের আশু আরোগ্য কামনা করেন এবং তার রোগমুক্তির জন্য দেশবাসীর প্রতি প্রার্থনার আহ্বান জানান।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসার সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখছেন বলে জানান দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। প্রধানমন্ত্রী এ সময় হাসপাতালে ভিড় না করতে নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন বলেও তিনি জানান।

বিকেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কনক কান্তি বড়ুয়া আরও বলেন, ‘আপনারা সকলকে জানিয়ে দেন, আমরা যেন নিরিবিলি তার চিকিৎসা করতে পারি। কেউ যেন ভিড় না করেন।’

ওবায়দুল কাদের সাড়া দিচ্ছেন কিনা- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ডাক দিলে তিনি মিটমিট করে তাকিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি ডাক দিলে বড় চোখ করে তাকিয়েছেন ওবায়দুল কাদের।’

‘মোহাম্মদ নাসিম যখন তাকে ডাকেন তখনও তিনি চোখ খুলে কথা বলার চেষ্টা করেন।’ এক প্রশ্নের জবাবে আলী আহসান বলেন, ‘তার বর্তমানে শারীরিক যে অবস্থা তাতে তাকে বিদেশে নেয়ার মতো পরিস্থিতি নেই। তবে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে যদি প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকেন, তাহলে আমরা অ্যালাও করতে পারি।’

‘বিদেশে নেয়ার বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর দফতর দেখছে’ বলেও উল্লেখ করেন তিনি।