| |

হাবিবুর রহমান শেখ. যে প্রদীপ নিভে গেছে ছড়িয়ে দিয়ে আলো..মজিবুর রহমান শেখ মিন্টু

আপডেটঃ ৩:৩৪ অপরাহ্ণ | মার্চ ১৩, ২০১৯

Ad

স্টাফ রিপোর্টার: হাবিবুর রহমান শেখ। এখন কেবলি বুকফাটা দীর্ঘশ্বাস এবং একটি স্মৃতিময় নাম। ময়মনসিংহ শহরে একসময় ইট-বালু-সিমেন্ট থেকে শুরু করে পুকৃর-নদী-ঘাট সবাই চিনতো তাকে। বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার সংবাদপত্রের অগ্রজ এই মানুষটি নিজের ব্যক্তিগত উন্নয়নকে পায়ে মাড়িয়ে ময়মনসিংহ অঞ্চলের মাটি ও মানষের জন্য নিজের জীবনকে সপে দিয়ে ছিলেন।

মুক্তিযুদ্ধ অবসানের পরপরই তিনি বিপন্ন ময়মনসিংহ জেলার মানুষদের উন্নয়নে তথ্য আন্দোলন শুরু করেন। সংবাদপত্র জগতের পথিকৃত শেখ হাবিবুর রহমান ছিলেন একজন সফল কৃষিবীদ। কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় উন্নীতকরণে রয়েছে তার গুরুত্বপূর্ণ অবদান। তিনি ছিলেন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৬৯-৭০ সনের নির্বাচিত জনপ্রিয় ভিপি।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএজি পাশ করে বিশাল চাকুরীর প্রস্তাব নাকচ করে দেন তিনি। দেশ ও দশের উন্নয়নে নেমে পড়েন মাঠে কলম সৈনিক হিসেবে। মাসিক চন্দ্রাকাশ, বাংলার দর্পন, দৈনিক জাহান, দ্য ডেলি ইকনমিক পোস্ট নামের পত্রিকাগুলো সম্পাদনার মাধ্যমে দেশের মানুষদের মধ্য জাগিয়ে তুলেন, নতুন করে চেতনা এবং বাংলাদেশ এর পুনগর্ঠন।

কৃষিই মুক্তি, কৃষিই উন্নতি এই মর্মে তিনি কৃষিসম্প্রসারণ, উন্নত কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহার এবং কৃষি তথ্য দিয়ে সবাইকে সহযোগিতা করার জন্য পত্রিকায় কৃষি বিষয়ক আলাদা পাতা বের করেন। খুব সাধারণ জীবন যাপনে অভ্যস্থ এই মানুষটি কোনদিন সম্পদের দিকে আগ্রহ দেখান নি। তিনি সারাক্ষণ ভাবতেন কি করে মানুষের কল্যান করা যায়। পৃথিবীর অনেকগুলো দেশ তিনি সফর করেছেন।

দেশের অনেক গুরুত্বপুর্ণ প্রতিষ্ঠানের গুরুপদে অধিষ্ঠিত ছিলেন তিনি। তিনি ছিলেন একজন তুখোড় সাংবাদিক-সম্পাদক। তিনি ছিলেন একজন নিভৃতচারী কলম সৈনিক। তিনি আজ নেই। খুব অসমযে চলে গেছেন তিনি।

আমরা আজ খুব অসহায়, অভিভাবকহীন। আমি জীবনের ৫টি বছর তার খুব কাছে কাছে থেকেছি। তার কাছ থেকে শিখেছি। তিনি বলতেন সবার জন্য দরকার নিয়মিত প্রশিক্ষণ। সাংবাদিকতা করা খুব সোজা কাজ নয়! তার জন্য দরকার সুশিক্ষা, মেধা ও পরিশ্রম।

আজকাল কত সাংবাদিক দেখি। দেখি সংবাদপত্র দিয়ে কত রকমের ব্যবসায়ী কেৌশল…!!! দেথি পত্রিকায় কত বিশেষ সংখ্যা, পাতা ভরা জনমানুষের রঙ্গিন মডেলিং সব ফটো..! ময়মনসিংহে সাংবাদিক, সংবাদপত্র, সম্পাদক, সম্পাদনা এইসব বিষয়ে হাবিবুর রহমান শেখ ছিলেন একজন উজ্জল আলোকবর্তিকা। পথিকৃৎ সংবাদপত্রের।

দৈনিক জাহান, বাংলার দর্পন এখনও তার স্মৃতি নিয়ে চলছে নিরবধি। আজকাল যারা এই শহরে সাংবাদ-সাংবাদিকতার সাথে জড়িত তাদের বেশীরভাগই ছিলেন তার পত্রিকার স্টাফ বা স্নেহধন্য।

তারা অনেকেই সংবাদ জগতে ভালো করছেন, পত্রিকা চালাচ্ছেন, কিন্ত অনেককে দেখি না যে, তারা হাবিবুর রহমান শেখকে নিয়ে কিছু লিখছেন বা করছেন। হাবিবুর রহমান শেখ একজন জাতীয় পর্যায়ের সাংবাদিক ছিলেন। ছিলেন সাংবাদিক শিক্ষাগুরু। তাকে মরনোত্তর একুশে পদক প্রদান এবং জাতীয় সাংবাদিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া খুব জরুরী।

একটি কথা খুব সত্য যে হাবিবুর রহমান শেখকে ভুলে যাওয়া মানে ময়মনসিংহের সংবাদপত্রের ইতিহাস ভুলে যাওয়া। হাবিবুর রহমান শেখকে ভুলে যাওয়া মানে নিজের আদর্শকে বদলে দিয়ে একজন অকৃতজ্ঞের তালিকায় রাখা। একজন আদর্শ সাংবাদিক, সম্পাদক ও নেতা হিসেবে এই মহান মানুষটির জন্য আজীবনের জন্য লাল সালাম।