| |

সাংবাদিকতাকে মান মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করতে হবে : বিচারপতি মমতাজউদ্দিন আহমেদ

আপডেটঃ ৭:১৬ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ১৮, ২০১৯

Ad

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, সাংবাদিকতাকে মান মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। আর সেই লক্ষে কাজ করে যাচ্ছে প্রেস কাউন্সিল। প্রেস কাউন্সিলের দেয়ার মত কিছু নেই।  সাংবাদিকতায় ঝুঁকি থাকবেই। ঝুঁকি না থাকলে সাংবাদিকতা থাকবে না। তবে অবশ্যই সাংবাদিকতার নীতিমালা, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন ও হলুদ সাংবাদিকতা পরিহার করতে হবে। আমরা বিচার করতে পারিনা। ভৎসনা ও তিরস্কার করতে পারি। সাংবাদিকদের জন্য একটি নীতিমালা প্রয়োজন। কিছু সংখ্যক কথিত সাংবাদিকদের জন্য এই পেশার সুনাম ক্ষুুন্ন করছে। সেদিকে সংবাদপত্রের মালিক ও প্রকাশকদের নজর রাখতে হবে।
গতকাল বুধবার সকালে সার্কিট হাউজের সন্মেলন কে ময়মনসিংহের প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দের অংশগ্রহনে জেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল আয়োজিত প্রশিন কর্মশালায় প্রধান অতিথি প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ একথা বলেন। ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক ড.সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাসের সভাপতিত্বে প্রশিন কর্মশালায় রিসোর্স পার্সন হিসেবে বক্তব্য রাখেন সদস্য প্রেস কাউন্সিল বিশিস্ট সাংবাদিক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল (যুগ্ম সচিব) সচিব মো: শাহ আলম, বাংলাদেশ প্রেস ইনষ্টিটিউটের সাবেক সিনিয়র গবেষক শামীমা চৌধুরী প্রমুখ। এ সময় জেলা আল ফয়সাল উপস্থিত ছিলেন।
প্রেস কাউন্সিলের সদস্য সিনিয়র সাংবাদিক রিয়াজউদ্দিন আহমেদ বলেন, ১৯৭৩ সনে বঙ্গবন্ধু প্রেস কাউন্সিল গঠন করেছিলেন,যেন নীতিমালা মেনে সাংবাদিকতা করা যায়। সাংবাদিকরা হলেন হুইসেল ব্লুয়ার। প্রতিদিনই সাংবাদিক ও সংবাদপত্রকে পরীা দিতে হয়। আজকাল পাঠকরা অত্যন্ত সচেতন। আচরন বিধি মেনে সাংবাদিকতা করলে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা করা যায় অপ্রেস কাউন্সিল কোন বিচারালয় নয়। সংবাদপত্রের ভুল ত্রুটির বিষয়ে সতর্ক করা। সিনিয়র গবেষক শামীমা চৌধুরী বলেন,আমাদের উপর নানা চাপ থাকে, তারপরেও আমাদের সাংবাদিকতা করতে হয়। মানুষের কল্যানে সাংবাদিকতা।
কাউকে খাটো করা সাংবাদিকতা নয় পরে প্রশিনে অংশ নেয়া ৪০ জনের হাতে সনদ পত্র তুলে দেন বিচারপতি মমতাজউদ্দিন আহমেদ।

ব্রেকিং নিউজঃ