| |

আমপট্রির মোড়ের ফুটপাত সাধারন মানুষের মরন ফাঁদ

আপডেটঃ ৪:৩৮ অপরাহ্ণ | মে ১১, ২০১৯

Ad

স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহ নগরে এখন পায়ে হেটে চলাচল করা মানে বিপদ কে সাথে নিয়ে হাটা। এই নগরে প্রায় ১০লাখ লোকের বসবাস। বিভিন্ন জেলা,উপজেলা থেকে প্রতিদিন আরো দেড়/দুই লাখ লোকের আসা যাওয়া ছাড়াও চিকিৎসা নিতে আসে হাজার হাজার সাধারন মানুষ। এসব কিছু ছাপিয়ে নগরময় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে রিকসা, ইজিবাইক, আটো,মটরসাইকেল ও প্রাইভেট গাড়ী। সাধারন মানুষের মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে পথ চলতে হয়। যা দেখলে বা পথ চলতে গা শিউরে উঠে। নগরের গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলির মধ্যে আমপট্রি মোড়টি বিশেষ গুরুত্বের দাবী রাখে। একহলো আমপট্রি মোড় হয়ে উত্তরে যেতে মাঝে পড়বে ছোটবাজার এবং বড়বাজার। ঠিক এই সড়কের মাথায় ড্রেনের উপর স্থাপিত ফুটপাতের উপর স্লাবটি বানানোর পরই ভেঁেঙ্গ বিশাল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। কেউ যদি দেখে শুনে না চলেন,তাহলে যে কোন সময় গর্তে পড়ে জীবন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। এই স্লাবটি জন্মের পরই ভেঁেঙ্গ যাওয়ায় যানবাহন চলাচলে সব সময় যানজট লেগে আছে। নগর কর্তারা এদিকে চলাচল করেন বলে মনে হয়না, অথবা তার চান মানুষ পড়ে হাত পা ভাঙ্গঁলে নগরে গড়ে উঠা ভুঁউভোড় হাসপাতাল গুলোর ব্যবসা বাড়বে। এই স্লাবের ঠিক উল্টো দিকে প্রেস মার্কেটের সামনে ড্রেনের উপর বসানো স্লাব ২/৩ মাস যাবৎ ভেঁেঙ্গ গেছে। এই নগরকে আধুনিক নগর,তিলোত্তমা নগর, ডিজিটাল নগর হবার প্রতিশ্রুতি শুনতে শুনতে সংবাদপত্র পাড়া,ব্যাংক পাড়ার লোকজনের কান ঝালাপালা হয়ে গেছে। কিন্তু কাজের কি হয়েছে,তা দেখার ফুরসৎ নেই নগর কর্তৃপক্ষের। এই সড়কের এমন করুন হাল দেখলে মনে হয়, নগরের ফুটপাত এখন মরন ফাঁদে পরিণত হয়েছে। গত ১০ বছরে নগরের হাল কতটুকু ভাল বা মন্দ হয়েছে,তা ভুক্তভোগী ছাড়া কেউ বলতে পারবে না। আমাদের প্রত্যাশা ছাড়া উপায় নেই যে,কর্তৃপক্ষ যেন নগরের আমপট্রি মোড় একটু ঘুরে দেখে যান। তা না হলে যত কথার ফুলঝুড়ি ফোটানো হোক না কেন, এটি যে পৌরসভা থেকে নগরে উন্নীত হয়েছে- সেটা কেউ বিশ্বাস করবে না। দেখি নগর কর্তৃপক্ষ কি বলেন বা করেন।

ব্রেকিং নিউজঃ