| |

গাড়ি নির্মাণে যাচ্ছে কিশোরগঞ্জের প্রথম অর্থনৈতিক অঞ্চল, নিয়োগ দেয়া হবে ২৫ হাজার জনবল

আপডেটঃ ৮:৪৪ অপরাহ্ণ | মে ৩১, ২০১৯

Ad

বাংলাদেশের অন্যতম কালিয়াচাপড়া সুগার মিল এক সময় কিশোরগঞ্জের পরিচিতিকে কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছিল। আজ সেটি কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন (কেইজেড) অর্থাৎ কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল নামে পরিচিত হতে যাচ্ছে। এখানে প্রথমে গাড়ি তৈরির কাজটি করতে যাচ্ছে ভারতের ব্যবসা সফল প্রতিষ্ঠান নিটল নিলয় (টাটা) মোটরস।

কিশোরগঞ্জ-ভৈরব মহাসড়কের পুলেরঘাট এলাকায় প্রায় ৯২ একর জায়গার উপর নির্মিত এই বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভূমি উন্নয়ন এবং কারখানা স্থাপনের কাজ খুব দ্রুত গতিতেই এগিয়ে চলছে। কারখানা স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি আসতে শুরু করেছে।

কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন (কেইজেড) কর্তৃপক্ষ জানায়, ইতোমধ্যে কাঁচামাল বহনকারী ২৫টি কন্টেইনার এসে পৌঁছেছে। আরও ৮০টি কন্টেনার আসছে। এখানে শুধু নতুন গাড়ি নয় পর্যায়ক্রমে একটি স্টিল, (টাটা) শক্তি ঢেউটিন, মাহেন্দ্র ট্রাক্টার, টেক্সটাইল এবং সিরামিক কারখানা নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।

কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন (কেইজেড) এর সিনিয়র জিএম মোস্তফা সাজ্জাদ বলেন, এ উদ্যোগ অর্থনৈতিক অঞ্চলের চেহারাই পাল্টে দেবে। দেশি-বিদেশি কিছু গ্রুপ এখানে বিনিয়োগের আগ্রহ দেখাচ্ছে। এটি একটি ইতিবাচক দিক। আমাদেরও পরিকল্পনা রয়েছে তাদের সুযোগ করে দেয়ার।

এসময় নিতা গ্রুপের পক্ষে (সিএফও) অমিতাভ রায় উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, এখানে একটি চিনির কল ছিল। বন্ধ হওয়ার কারণে চিনিকলের শতশত কর্মচারী বেকার হয়েছেন। এখন অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে। আমরা আবার কাজ পাব। এটা আমাদের জন্য অবশ্যই খুশির সংবাদ।

কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন (কেইজেড) এর ম্যানেজার (প্রশাসন) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা আগামি ৬-৭ মাসের মধ্যে উৎপাদনে যেতে পারব বলে আশা করছি। আমাদের প্রায় ২৫ হাজার জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। আর যেহেতু  চিনিকলটি বন্ধ হওয়ার কারণে অনেকেই চাকুরি হারিয়েছেন, তাদের বিষয়টি আমরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেখবো। তাদের এখানে চাকুরির সুযোগটি বেশি থাকবে।

ব্রেকিং নিউজঃ