| |

ময়মনসিংহ ভালুকায় দেড় বছরের শিশু কন্যাকে জবাই করে পিতার আত্মহত্যা

আপডেটঃ 4:34 pm | February 09, 2016

Ad

শেখ আজমল হুদা মাদানী ভালুকা প্রতিনিধি: ময়মনসিংহ ভালুকার ডাকাতিয়া ইউনিয়নের দৌলা বড়চালা গ্রামে তালিম ঘরের দরজা বন্ধ করে রাবেয়া নামে দেড় বছরের শিশু কন্যাকে ছুরি দিয়ে জবাই করে জামিলুর রহমান (৪০) নামে দেওয়ানবাগী ভক্ত এক পাষন্ড পিতা নিজে বুকে ছুরি বসিয়ে ৯ ফেব্র“য়ারী মঙ্গলবার সকালে আত্মহত্যা করেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল হতে আলামত সহ বাপ মেয়ের লাশ উদ্ধার করেছে। জামিলুরের আরও দুই ছেলে রয়েছে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র সখাওয়াত (১২) ও শিশু শাহ্ পরান (৩)।
মঙ্গলবার সরজমিন বড়চালা গ্রামে গিয়ে দেখাযায় শতশত উৎসুক নারী পুরুষ লোমহর্ষক ঘটনাটি প্রত্যক্ষ করতে ভিড় জমিয়েছে ওই বাড়ীতে। যে ঘরের মেঝে শিশু কন্যাকে জবাই করা হয়েছে সেই ঘরটিতে একপাশে দেওয়ানবাগী পীরের ছবি টানানো ও আরেক প্রান্তে সাদা কাপড়ের ছোট ব্যানারে সবুজ অক্ষরে দুই লাইনে লেখা মোহাম্মদী ইসলাম লাইনের মাঝখানে চারটি তারা সহ লাল রংয়ে চাঁদ আঁকা রয়েছে। ব্যানারের নীচে একটি কাঠের টেবিলে কিছু কাপড় চোপর নীচে মাটিতে রক্তের পাশে শিশুটির লাল জমা পরে রয়েছে। এই ঘরটি অব্যবহৃত থাকতো তবে এখানে মাঝে মধ্যে পিরালী মাহফিল চলতো বলে অনেকে জানিয়েছে।
শিশুর মা সামিদা আক্তার (২৮) জানায় তার স্বামী মঙ্গলবার ফজরের নামাজ শেষে মেয়েকে রুটি খাওয়ানোর কথা বলে তার কাছ থেকে নিয়ে যায়। কিছুক্ষন পরে তিনি রান্না ঘর থেকে মেয়ের চিৎকার শুনতে পেয়ে সেই তালিম ঘরটির কাছে দৌড়ে গিয়ে ভিতর থেকে দরজা বন্ধ দেখতে পেয়ে বড় ছেলে সাখাওয়াত কে ডেকে আনেন। সাখাওয়াত শাবল দিয়ে দরজা ভেঙ্গে ভিতরে গিয়ে ছোট বোনকে জবাই করা ও বাবার পেটে বুকে রক্তাক্ত মাটিতে মৃত অবস্থায় পরে থাকতে দেখে। এ সময় তাদের ডাক চিৎকারে আশ পাশের লোকজন জড়ো হয়। বিষয়টি ভালুকা থানায় জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। হত্যা ও আত্মহত্যার কারন সম্পর্কে নানা জনে ভিন্নমত পোষন করছেন। নিহত শিশুর মা জামিলের স্ত্রী সামিদা জানান তার স্বামী মাঝে মধ্যে পাগলামী ভাব করতো অনেকটা মস্তিস্কবিকৃতের মত। আবার এলাকাবাসী বলছে ভ্যান গাড়ী চালিয়ে সংসারের খরচ চালাতে হিম সিম খেয়ে আর্থিক কষ্টের কারনে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ব্যাপারে ঘটনাস্থলে আসা ভালুকা মডেল থানার ওসি তদন্ত হযরত আলী জানান জামিলুর রহমানের কাছে অনেক লোক টাকা পয়সা পাওয়ায় পাওনাদারদের তাগাদা ও আর্থিক অভাবের কারনে হয়তো এই ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে তদন্তের পর বলা যাবে। ডাকাতিয়া বড়চলা গ্রামের নুর মোহাম্মদের দুই ছেলে একজন জামিলুর অন্যজন জালাল উদ্দিন প্রবাসে থাকে।

ব্রেকিং নিউজঃ