| |

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনে গরুছাগলের অবাধ বিচরন বন্ধে প্রকাশ্যে নিলাম

আপডেটঃ 8:08 pm | June 18, 2019

Ad

ময়মনসিংহ শহরের প্রায় সব কটি সড়কেই গরুর অবাধ বিচরণ। এতে সড়কে মানুষের চলাচল বিঘ্নিত হয়। এ অবস্থা দীর্ঘদিনের। তবে রোববার থেকে নগরের সব সড়কে গরুর চলাচল বন্ধে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন গত ১০ জুন লিখিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে এ ঘোষণা দেয়।

সিটি করপোরেশনের বিজ্ঞপ্তিতে গরুসহ সব ধরনের গবাদিপশুর মালিকদের উদ্দেশে বলা হয়েছে, ময়মনসিংহ নগরের বিভিন্ন সড়কে যত্রতত্রভাবে বিচরণ করা গরুসহ সব ধরনের গবাদিপশুকে শনিবার থেকে নিজদের বাসস্থানে রেখে পালন করার নির্দেশ জারি করে।

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা যায়, কাল থেকে নগরের সড়কে গরুর বিচরণ বন্ধে কয়েক দিন ধরে মাইকে প্রচার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৮জুন) নগরীর টাউনহল মাঠে নগরীর সড়কগুলোতে অবাধে বিচরণকৃত দু’টি গরু জনসম্মুখে প্রকাশ্যে ডাকের মাধ্যমে নিলাম বিক্রি করা হয়। দুটি গরুর মাঝে সানকীপাড়ার হেলালউদ্দিন ভ্যাটসহ সাতহাজার দুইশত বিশটাকা অন্যটি বাদেকল্পার জীবন মিয়া ছয়হাজার একশত বিশটাকা দিয়ে নিলামে ক্রয় করে।

এতে সিটি কর্পোরেশনের সচিব আব্দুল হালিম, হিসাব রক্ষণ অসীম কুমার সাহা, সহকারী প্রকৌশলী জহুরুল হক, এসেস্ট সহকারী সিদ্দিকুর রহমান, বাজার পরিদর্শক খন্দকার জাহাঙ্গীর, সার্বিক তও্বাবধানে ছিলেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জাহাঙ্গীর প্রমুখ।

সূত্রে জানা যায়, নগরের প্রধান প্রধান সড়ক ও ছোট সড়কগুলোতে গরুর অবাধ বিচরণ। বিশেষ করে পুরোহিত পাড়া, ডিবি রোড, চরপাড়া ও কাচারি সড়কে দিনের ব্যস্ততম সময় এবং রাতে গরু দল বেঁধে বিচরণ করে। এতে নাগরিকেরা ভোগান্তিতে পড়েন। দিনের বেলায় স্কুলগামী ছোট ছোট শিশু গরুর কারণে সড়কে অবাধে যাতায়াত করতে পারে না। এসব কারণে দীর্ঘদিন ধরে মানুষের দাবি ছিল, নগরের সড়কগুলোতে গরুর বিচরণ যেন বন্ধ করা হয়।

তবে গরুর মালিকেরা প্রভাবশালী হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে ময়মনসিংহ নগরের সড়কগুলোতে অবাধে গরু বিচরণ করলেও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হতো না। এ ছাড়া আইনের সীমাবদ্ধতার কারণে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হচ্ছিল না।

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. ইকরামুল হক বলেন, নাগরিকদের সুবিধার জন্য গবাদিপশুর যত্রতত্র বিচরণ বন্ধ করা হচ্ছে। এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে তিনি নগরবাসীর সার্বিক সহযোগীতা চেয়েছেন।

ব্রেকিং নিউজঃ