| |

উপজেলায় বিদ্রোহীদের ‘সাধারণ ক্ষমা’ আ.লীগের

আপডেটঃ ৭:৪৪ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

Ad

উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হাইব্রীডদের পরাজয় ঘটেছে। নৌকা প্রতীক নিয়েও আওয়ামী লীগে উড়ে এসে জুড়ে বসারা সুবিধা করতে পারেনি। আওয়ামী লীগের জন্য এটা একটা বিরাট সুখবর। চারধাপে এপর্যন্ত ৪৫৫টি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরমধ্যে ১১১টি উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া তথ্য দেখা যাচ্ছে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতদের মধ্যে ৩৭ জন হাইব্রীড। যারা ২০০৮ এর পর আওয়ামী লীগে যোগদিয়েছে। এদের মধ্যে ১৭ জন বিএনপি এবং জামাত থেকে আওয়ামী লীগে এসেছে বলে জানা গেছে। বাকী যে ৩৪৪টি উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ভোট হয়েছে তার ১৩৪ টিতেই নৌকা প্রতীক পরাজিত হয়েছে। এরমধ্যে ১২৭ জনই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। এদের প্রায় প্রত্যেকে দীর্ঘদিনের ত্যাগী, পরীক্ষিত। এদের মধ্যে অন্তত ৬২ জন ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামাত জোট আমলে নির্যাতিত। দলের মন্ত্রী-এমপিদের কৃপা ধন্য না হতে পেরেই এরা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। অনুসন্ধানে দেখা গেছে ময়মনসিংহ, খুলনা, টাঙ্গাইলে আওয়ামী প্রার্থীদের গণ ভরাডুবি ঘটেছে। যে ২১০ জন নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তাদের মধ্যে অন্তত ১৫০ জন ২০০৮ এর আগে আওয়ামী লীগে আসা, তারা দলের ত্যাগী এবং পরীক্ষিত কর্মী। হিসেবে দেখা গেছে, ৭টি ছাড়া সব উপজেলয় আওয়ামী লীগ প্রার্থীরাই বিজয়ী হয়েছে। ৪৪৮টি উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ২০০৮ এর পর আওয়ামী লীগে যোগ দেয়া (প্রচলিত ভাবে যাদের সুবিধাবাদী বা হাইব্রীড বলা হয়) প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন মাত্র ১১৯টিতে। ৩২৯টিতে বিজয়ী হয়েছে আসল আওয়ামী লীগ, যারা অন্যদল থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দেয় নি। এই প্রেক্ষাপটে আওয়ামী লীগ উপজেলায় বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আজ আওয়ামী লীগের সভাপতি দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদককে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দিয়েছেন বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগ সভাপতি বিদ্রোহীদের মধ্যে থেকে যারা বিজয়ী হয়েছেন, তাদের কাজ করার সুযোগ করে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বলেও জানা গেছে। সূত্র মতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েছে। কাজেই তাদের কাজ করার সুযোগ করে দিতে হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যেকোন ব্যবস্থা নেয়া হবে না তা গোপালগঞ্জের ৫টি উপজেলার নির্বাচনের মাধ্যমেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল। ঐ পাঁচ উপজেলায় কাউকেই নৌকা প্রতীক দেয়া হয়নি। স্বতন্তভাবে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরাই একে অন্যের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল। তবে, আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা মনে করছেন, উপজেলা নির্বাচনে দলে বিভেদ তৈরী হয়নি বরং সুবিধাবাদী, ভুইফোঁড় এবং মন্ত্রী-এমপিদের নিজস্ব বলয়ের লোকজন কোনঠাসা হয়ে পরেছে। বিভিন্ন স্থানে দলের কর্মীরা তৃণমুলের পরীক্ষিত এবং দুর্দিনের সঙ্গী আওয়ামী লীগ নেতাদের পক্ষে প্রচারণা করেছে। ময়মনসিংহে কর্মীরা চাঁদা তুলে দলের নিবেদিত প্রাণ এক নেতাকে বিজয়ী করেছে।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলছেন, আওয়ামী লীগের শক্তি আরেকবার প্রমাণিত হলো। সাধারণ কর্মীরাই যে আওয়ামী লীগের প্রাণ তা উপজেলা নির্বাচন প্রমাণ করে দিলো। একারণেই, আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা মনে করছে, উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অর্জন অনেক।

ব্রেকিং নিউজঃ