| |

ময়মনসিংহে প্রয়াত শাকিলের সমাধিতে আওয়ামিলীগ ও সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

আপডেটঃ 6:00 pm | December 06, 2019

Ad

ময়মনসিংহে ৬ই ডিসেম্বর শুক্রবার প্রতিভাবান রাজনীতিবিদ, সাবেক ছাত্রনেতা, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী, সাহিত্যানুরাগী, কবি, বিচক্ষণ রাজনৈতিক কর্মী, বহু গুণে গুণান্বিত মানুষ প্রয়াত মাহবুবুল হক শাকিল তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার কবরে পুস্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামিলীগ ও বিভিন্ন অঙ্গ সঙ্গঠনের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ প্রয়াত শাকিল তিন বছর আগে খেরো খাতার পাতা বন্ধ করে তিনি চড়ে বসেছিলেন মন খারাপের গাড়িতে। এই দিনটিতে তার আত্মার মাগফেরাত কামনায় সকাল ১০টায় ময়মনসিংহ নগরের ভাটিকাশর গোরস্থানে তার কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করেছেন আওয়ামীলীগ ও বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ তার পরিবারের সদস্য, বন্ধু-সহপাঠীরা।

মরহুম শাকিলের পরিবার, স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও তার নিজের নামে গড়ে ওঠা ‘মাহবুবুল হক শাকিল সংসদের আয়োজনে শাকিলের আত্মার মাগফিরাত কামনা উপলক্ষে শুক্রবার বাদ জুমা এই দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে তৃতীয় মৃত্যু বার্ষীকিতে প্রয়াত শাকিলের আত্মার শান্তি কামনায় মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন প্রয়াত শাকিলের বাবা ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকা,সাধারণ সম্পাদক এড মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম,জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক শওকত জাহান মুকুল,কাজী আজাদ জাহান শামীম,আব্দুল কদ্দুস,দপ্তর সম্পাদক অধ্যক্ষ আবু সাইদ দ্বীন ইসলাম ফখরুলসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও ময়মনসিংহের বিভিন্ন পেশাশ্রেণীর মানুষ শ্রদ্ধা জানান প্রয়াত শাকিলের সমাধিতে।

মাহবুবুল হক শাকিলের স্মৃতি স্মরণ করে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল বলেন, একজন তরুণের রাজনীতি, সাহিত্য, সংস্কৃতিসহ সর্বক্ষেত্রে এমন অবাধ ও সাবলীল বিচরণ শাকিল ছাড়া হালে আর খোঁজে পাওয়া যায় না। তিনি সবসময় সকলের মনে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র হয়ে থাকবেন। পরে শাকিল স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

১৯৬৮ সালের ২০ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন মাহবুবুল হক শাকিল। তিনি ময়মনসিংহ জিলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও আনন্দমোহন কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন শাকিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া অবস্থায় তিনি প্রথমে ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পরে সিনিয়র সহসভাপতি নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সেল ‘সিআরআই’ গঠিত হলে তা পরিচালনার দায়িত্ব পান শাকিল।

এরপর ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিবের দায়িত্ব পালন করেন শাকিল। চার বছর পর তাঁকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী (মিডিয়া) নির্বাচিত করা হয়। এরপর ২০১৪ সাল থেকে অতিরিক্ত সচিব মর্যাদায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারীর দায়িত্বে ছিলেন তিনি।

২০১৬ সালের ৬ ডিসেম্বর মাত্র ৪৭ বছর বয়সেই বন্ধু-স্বজনদের শূন্যতার সাগরে রেখে মন খারাপের গাড়িতে চড়েই অজানা গন্তব্যে পাড়ি জমান বহুমুখী প্রতিভাবান এ মানুষটি।

ব্রেকিং নিউজঃ