| |

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে

আপডেটঃ 8:07 pm | December 17, 2019

Ad

স্টাফ রিপোর্টারঃ গত ১৬ই ডিসেম্বর শ্রী শ্রী রঘুনাথ জিউর আখড়ার নাট মন্দিরে ময়মনসিংহ বিভাগের জাতীয় গীতা পাঠ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানের উদ্ধোধন করেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সহ সভাপতি শ্রীমতি পূরবী মজুমদার । প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পূজা উদযাপন পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক শ্রী নির্মল কুমার চ্যাটার্জী, প্রধান বক্তা ছিলেন পূজা উদযাপন পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাধারন সম্পাদক এড. জয়ন্ত কুমার পাল, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রকৌশলী রতন কুমার দত্ত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদ, পূজা উদযাপন পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির জাতীয় পরিষদ সদস্য রঘুনাথ জিউর আখড়ার সাধারন সম্পাদক প্রদীপ কুমার ভৌমিক। আমন্ত্রীত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি এড. বিকাশ রায়, ময়মনসিংহ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সহ সভাপতি এড. পিযুষ কান্তি সরকার, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক এড. সৌমেন্দ্র কিশোর চৌধুরী। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ময়মনসিংহ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এড. রাখাল সরকার, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এড. তপন দে। সভাটি সঞ্চালনা করেন মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক উত্তম চক্রবর্তী রকেট ও জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক শংকর সাহা। প্রধান অতিথি শ্রী নির্মল কুমার চ্যাটার্জী উনার বক্তব্যে বলেন, প্রত্যেক সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উচিত তার পরিবারের সদস্যদের গীতা পাঠে উৎসাহিত করা। বিশেষত শিশুদের সপ্তাহে ১দিন মন্দিরগুলিতে নিয়ে যাওয়া। এতে করে তাদের মাঝে ধর্মীয় প্রেরণা আসবে। তিনি বলেন, এখন থেকে প্রতি বৎসর গীতা উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। সেই উৎসবে যে সমস্ত শিশুরা বিজয়ী হবে তাদের স্মীকৃতিসরূপ ১ ভরি ওজনের গোল্ড মেডেল প্রদান করা হবে। তিনি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান। আলোচনা সভা সমাপ্তির পর গীতা পাঠে বিজয়ীদের মাঝে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরষ্কার প্রদান করা হয় এবং তাদেরকে ঢাকায় কেন্দ্রীয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করার আহ্বান জানানো হয়।

ব্রেকিং নিউজঃ