| |

যুবলীগ নেতা মো শফিকুল হক শুভর নেতৃত্বে শত শত যুবলীগ কর্মীর বিজয় পতাকা মিছিল

আপডেটঃ 12:24 pm | January 02, 2020

Ad

ইব্রাহিম মুকুটঃ বর্ষিয়ান নেতা বৃহত্তর ময়মনসিংহের সাবেক সাধারন সম্পাদক মরহুম এডঃ আজিজুল হক সাহেবের ভাতিজা রাজপথ কাপাঁনো একটা মিছিল দিল।
সাবেক সহ-সভাপতি মোঃ শফিকুল হক( শুভ ) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ জেলা যাকে আমরা ময়মনসিংহ বাসী “শফিক” নামে চিনে থাকি। “শফিক” কে আমি ব্যাক্তিগত ভাবে যতটুকু দেখেছি তাতে আমার মনে হয়েছে যথেষ্ট ভদ্র, বিনয়ী, দক্ষ, পরিশ্রমি মেধা সম্পর্ন একজন।

২০০১ সালে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি বিএনপি-জামাত রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসীন হয়ে যে ভাবে আওয়ামি লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষকলীগ সহ সকল মুজিব সৈনিকদের মারধর, অত্যাচার, নির্যাতন চালাচ্ছিলো এমনকি সংখ্যালঘুদের উপর নিষ্ঠুর আচরন লিপ্ত হয়ে ছিলো তখন মো: শফিকুল হক (শুভ) “শফিক” 🇧🇩 বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একজন নিবেদিত কর্মী হয়ে সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাড়ায়।

“শফিক” ধীরে ধীরে নিজের যোগ্যতার সাক্ষর রেখে চলছেন। বর্তমান প্রতিমন্ত্রী সমাজ কল্যান মন্ত্রনালয় প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহাম্মেদ যখন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ময়মনসিংহ জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক সন ১৯৯৬ ছিল তখন সে তার মিছিলের একজন কর্মি হিসেবে জীবনের প্রথম মিছিল করেন।

বর্তমান স্হানীয়
মেয়র ইকরামুল হক টিটু মহোদয়ের স্নেহধন্য ও আস্থার পাত্র হয়েছেন। সাধারণ জনগনের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন। দল এবং সংগঠনে স্হানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীদের নিয়ে এক বিশাল কর্মী বাহিনী গড়ে তুলেছেন। ময়মনসিংহে আওয়ামী যুব লীগের এক দুর্গ গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে।

আশাকরি, “শফিক” দের এই শ্রম-ঘাম, মেধা দলের জন্য আরো উন্নতি ও সমৃদ্ধ বয়ে আনবে।

যে সকল নিবেদিত কর্মী আছে বা অভিমানে মুখ লুকিয়ে একটু আড়ালে আছে, তাদেরকে খুজে খুজে বের করে তাদের ত্যাগ ও কর্মের অবদানের মূল্যায়ন করতে হবে। মনে রাখতে হবে এরাই প্রকৃত আওয়ামী যুব লীগের কর্মী। লক্ষ্য রাখতে হবে বিএনপি -জামাত শিবিরের লোকজন বঙ্গবন্ধুর কথা বলে দলে ভীরে যাচ্ছে। তারা অতি উৎসাহী হয়ে বিভিন্ন প্রোগ্রাম সেমিনার আয়োজন করে পুরনো ত্যাগি নেতা কর্মীদেরকে পাত্তা দিচ্ছে না।

একটা বিষয়ে সকল মুজিব সৈনিকদের একহতে হবে দল থেকে হাইব্রিড, কাউয়া, সুবিধাবাদিদের দল থেকে বিতাড়িত করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হবে। তাহলে বাঙ্গালী জাতীর কাঙ্ক্ষিত জয় আসবে।

মনে রাখতে হবে শফিকদের মতো নিবেদিত প্রাণ কর্মীদের জন্য জায়গা তৈরী করে দিতে হবে। উপরের সারি সন্মানিত হলে নিজের সারিও অনুপ্রানিত হবে।।

চারিদিকে বিভিন্ন অপশক্তি স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি দেশ এবং জাতীকে ধ্বংস করে দিতে চেষ্টা চালাচ্ছে। তাই আমাদের সজাগ থাকতে হবে। সকলে একত্রিত হলে এই মোকাবেলা করা সম্ভব।
কারন এদেশটা আমাদের ত্রিশলক্ষ শহীদের বুকের তাজা রক্ত দিয়ে কেনা- লাল সবুজ পতাকা

ব্রেকিং নিউজঃ