| |

তথ্য প্রদানে বাংলাদেশের অগ্রগতি উল্লেখযোগ্য, বিভাগীয় পর্যায়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালায় তথ্য কমিশনার সুরাইয়া বেগম

আপডেটঃ 10:05 pm | January 17, 2020

Ad

স্টাফ রিপোর্টারঃ তথ্য প্রদানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এগুচ্ছে। এক্ষেত্রে উপমহাদেশের র‌্যাংকিং এ বাংলাদেশের অগ্রগতি উল্লেখযোগ্য। সরকারের রূপকল্প ডিজিটাল বাংলাদেশের সাফল্য তথ্য প্রাপ্তির ক্ষেত্র প্রসারিত করেছে।
তথ্য কমিশনার সুরাইয়া বেগম এনডিসি ১৬ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহে প্রধান অতিথি বক্তব্যে বলেন, তথ্য কমিশনের কাজকে জনবান্ধব করতে সচেতন সমাজ ও সাংবাদিকরা তথ্য অধিকারকে এগিয়ে নিতে পারেন।
তথ্য কমিশনের সহযোগিতায় ময়মনসিংহ বিভাগীয় কার্যালয়ের ব্যবস্থাপনায় দিনব্যাপী মতবিনিময় ও প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান এনডিসি এর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, তথ্য কমিশন সচিব তৌফিকুল আলম। বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) নিরঞ্জন দেবনাথ।
দেশবরেণ্য মিডিয়া ব্যক্তিত্ব বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি জিটিভি ও সারাবাংলা ডট নেট এর প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা বিষয়ে প্রধান আলোচক ছিলেন।
বিভাগীয় পর্যায়ে তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ বিষয়ক মতবিনিময় ও প্রশিক্ষণ এবং অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় তথ্য অধিকার আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের শহিদ শাহাবুদ্দিন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।
তথ্য কমিশনার সুরাইয়া বেগম বলেন, তথ্য বঞ্চিত সমাজকে সচেতন করে অবাধ তথ্য প্রবাহের সংস্কৃতি বিকশিত করাই সরকারের লক্ষ্য।
তিনি বলেন, তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ ও তথ্য কমিশনের উদ্যোগ জনবান্ধব। জনগণের তথ্য প্রাপ্তির সুযোগকে উৎসাহিত করতে তথ্য কমিশন কাজ করছে।
তথ্য কমিশন সচিব তৌফিকুল আলম বলেন, তথ্য প্রদানে ১০ বছরের কার্যক্রমে বাংলাদেশে বিশ্ব ও উপমহাদেশের অন্য দেশের তুলনায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সুচিত করেছে। জনগণের অধিকার ও সেবা প্রদান নিশ্চিত করতে তথ্য কমিশন প্রতিশ্রæতিবদ্ধ।
সভাপতির বক্তব্যের বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষনের দর্শণ থেকেই জনগণ মৌলিক অধিকার হিসাবে তথ্য অধিকার এর নিশ্চয়তা পেয়েছে।
তিনি বলেন, অস্পষ্টতা কাটিয়ে সাধারণ মানুষকে তথ্য অধিকার আইন বিষয়ে আরো সচেতন ও দক্ষ করে তুলতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
ময়মনসিংহ বিভাগে এ সংক্রান্ত গৃহিত উদ্যোগ তুলে ধরে তিনি বলেন, ডিজিটাল ট্র্যাকিং সিষ্টেম ডেভেলাপ করতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।
তথ্য অধিকার বিষয়ে বিভাগীয় কমিটির সদস্য, সরকারি কর্মকর্তা, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, নাগরিক নেতৃবৃন্দ এবং স্থানীয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা ২পর্বের এ অনুষ্ঠানে যোগ দেন।
অনুষ্ঠানে মতবিনিময়কালে বক্তরা বলেন, দেশে ১১শত আইন রয়েছে, যারা এই ১১শত আইন প্রয়োগ করেন, তাদের জন্য জনগণের পক্ষে একটি আইন রয়েছে। তা হলো তথ্য অধিকার আইন। যার চর্চায় জনগণ এখনো ব্যাপকমাত্রায় চাঙ্গা হয়নি, অনেকে ভালভাবে বিষয়টি জানে না, আবার অনেক ক্ষেত্রে তথ্য চাওয়া-পাওয়ার জটিলতাও রয়েছে।
এ আইন নিয়ে সচেতনতা বিকাশে মতবিনিময় ও প্রশিক্ষণ কর্মশালায় বলা হয়, বিশ্বায়নের যুগে তথ্য অধিকার আইন করে সরকার দেশে অবাধ তথ্য প্রবাহ নিশ্চিত করেছে।
সুশাসন, দুর্নীতি ও বৈষম্য নিরসনের জন্য তথ্য জরুরী। বস্তুনিষ্ট তথ্যের জন্য অনেক ক্ষেত্রে তথ্য প্রাপ্তি একটি চ্যালেঞ্জ হলেও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও রাজনৈতিক প্রতিশ্রæতির অভিব্যক্তিতে রাষ্ট্র ও জনগণের সম্পর্কের ভিত্তির যোগসূত্র হল সঠিক তথ্য।

ব্রেকিং নিউজঃ