| |

বিয়েবাড়ির নৌকাডুবি: পদ্মায় মিলল ২ লাশ, এখনো নিখোঁজ বউসহ ৫ জন

আপডেটঃ 3:30 pm | March 07, 2020

Ad

রাজশাহীর পদ্মায় বিয়েবাড়ির দুটি নৌকাডুবির ঘটনায় নারী মনি খাতুনের (৪২) পর এবার এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের নাম এখলাক হোসেন (২২)। এ ঘটনায় এখনো নিখোঁজ রয়েছেন বউসহ পাঁচজন।

শনিবার সকালে মনি খাতুন ও দুপুর সোয়া ১টার দিকে এখলাকের মরদেহ মহানগরীর শ্রীরামপুর পদ্মা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো তিনে।

এদিকে এ ঘটনায় রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলামের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

জানা যায়, সকালে মনি খাতুন নামে বোরকা পরা আরেক নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। জেলার চারঘাট এলাকায় ওই নারীর মরদেহ নদীতে ভেসে ওঠে। নিহত মনি কনে সুইটি খাতুনের চাচি।

এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসাপাতালে মরিয়ম খাতুন (৬) নামে এক শিশু মারা গেছে। বর্তমানে আরও পাঁচজন নিখোঁজ রয়েছেন। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ ছাড়া উদ্ধারকাজে যোগ দিতে সকালে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) পাঁচ সদস্যের একটি দল ঢাকা থেকে রাজশাহী পৌঁছেছে। রাজশাহী মহানগরীর শ্রীরামপুর এলাকার বিপরীতে মাঝপদ্মায় যেখানে নৌকা দুটি ডুবেছে সেখানেই তারা উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন।

কিছুটা দূরে উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। ভাটিতে চারঘাট এলাকায় ফায়ার সার্ভিসের আরেকটি দল উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন। স্পিডবোট নিয়ে ঘুরছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর সদস্যরাও। মোট চারটি দল উদ্ধার তৎপরতায় অংশ নিয়েছে।

তদন্ত কমিটির প্রধান রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম বলেন, দুপুর সোয়া ১টার দিকে বিআইডব্লিউটিএ’র ডুবুরি দল নৌকাডুবির স্থান থেকেই ভাসমান অবস্থায় এখলাক হোসেনের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

নিহত এখলাক কনে সুইটি খাতুনের খালাত ভাই। তিনি পেশায় কাঠমিস্ত্রী ছিলেন।

তিনি জানান, নিহত তিনজনের মরদেহ নিকটাত্মীয়দের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের পরিবারের সদস্যদের ২০ হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স রাজশাহী সদর স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার আবদুর রউফ শনিবার দুপুরে বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যায় পদ্মার ওপারে রাজশাহীর পবা উপজেলার চরখিদিরপুরে বৌ-ভাতের অনুষ্ঠান শেষে বর-কনেকে নিয়ে এপারে ফিরছিলেন কনেপক্ষের স্বজনরা। সন্ধ্যা ৭টার দিকে মাঝপদ্মায় নৌকা দুটি ডুবে যায়।

তিনি জানান, দুটি নৌকাতে মোট ৪১ যাত্রী ছিলেন। এর মধ্যে এক শিশুসহ দুই নারী ও পুরুষ মিলে মোট তিনজন মারা গেছেন। ৩৩ জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। আরও পাঁচজন নিখোঁজ রয়েছেন। তাদের উদ্ধারে চারটি টিম তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

ব্রেকিং নিউজঃ