| |

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত শাকেরের হত্যা ও ধর্ষন রহস্য উদঘাটনে সাফল্য

আপডেটঃ 7:22 pm | May 09, 2020

Ad
স্টাফ রিপোর্টার:ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা। জেলা সদর থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে। গত এপ্রিলের ২৮ তারিখ থেকে মে মাসের ৪ তারিখ পর্যন্ত দুটি ”চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে। একটি খুন,অপরটি মাথার গলযোগে অসহায় এক যুবতিকে রাতে মিথ্যা প্রলোভনে ইট ভাটায় নিয়ে গিয়ে দুই বৃদ্ধ ও ইটভাটার এক নৈশ প্রহরী পালাক্রমে ধর্ষণ। ঘটনা দুটি এলাকায় দারুন চাঞ্চল্য সৃষ্টি করলে ওসি মুখলেছুর রহমানের নির্দেশে ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমেদ দুটি মামলার তদন্তভার গ্রহণ করে ঘটনার রহস্য উদঘাটন,আসামীদের গ্রেফতার ও আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দীর আদায়ের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে বিশাল সফলতা এনে দেয়।
প্রায় ৭ মাস আগে ঈশ্বরগঞ্জের মাইজবাগ ইউনিয়নের দত্তগ্রাম গ্রামের আবু সাঈদের মেয়ে লাকিমনিকে প্রেম করে বিয়ে করে চাচাতো ভাই এমদাদ । সম্প্রতি তারা ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। ২৮এপ্রিল এমদাদ তার সাবেক স্ত্রী লাকিমনিকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে। এ ঘটনায় ঈশ্বরগঞ্জ থানায় ৩০শে এপ্রিল মামলা হলে ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের আহমদে ঐ রাতেই কথিত হত্যাকারী এমদাদকে গ্রেফতার করে। পরদিন ১লা মে এমদাদ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়ে লাকিমনিকে হত্যা করার কথা স্বীকার করে।
অপরদিকে গত ৩রা মে সদর ইউনিয়নের গকুলনগরের মাথায় সামান্য সমস্যাথাকা একজন যুবতী ঘর থেকে বের হয়ে রাস্তায় উঠলে মন্নাছও নুরুল ইসলাম নামে বটতলা বাজারের দুই পাহাড়াদার তাকে আশ্রয়ের কথা বলে একটি ইটভাটায় নিয়ে যায়। সেখানে ইটভাটার পাগাড়াদার বারেকের সহায়তায় অসহায় অপ্রকৃহস্ত রোমেলকে (ছদ্মনাম) তিন জনেই ধর্ষণ করে। একজন অপ্রকৃহস্ত মেয়েকে বৃদ্ধ মন্নাছ ও নুরুল ইসলাম মিথ্যা আশ্রয়ের আশ্বাস দিয়ে ইটভাটায় নিয়ে ধর্ষনের ঘটনা পরদিন ৪মে ফাঁস হয়ে যায়। এ ঘটনায় ঈশ্বরগঞ্জ থানায় ৪মে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ৯(৩)এ গনধর্ষণ মামলা রুজু হলে ওসি তদন্ত খন্দকার শাকের
দ্রুত অভিযান চালিয়ে মন্নাছ ও নুরুল ইসলামকে আটক করে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা ধর্ষনের ঘটনা স্বীকার করে। ৫ই মে তারা আদালতে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দী দেয়। তবে ইটভাটার পাহাড়াদার বারেক পলাতক রয়েছে। এ ব্যাপারে খন্দকার শাকের জানান,অচিরেই বারেক গ্রেফতার হবে। উল্লে“খ্য কোতোয়ালী মডেল থানায় ওসি তদন্ত থাকাকালীন সময়ে খন্দকার শাকের আহমেদ অনেক জটিল মামলা দ্রুত উদঘাটন করতে সক্ষম হন।
ছবিঃ ধর্ষক মন্নাছ ওনুরুল। ডানে কথিত খুনী এমদাদ

 

ব্রেকিং নিউজঃ