| |

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

আপডেটঃ 11:41 am | May 17, 2020

Ad

জাতির পিতার জ্যেষ্ঠকন্যা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ। ১৯৮১ সালের এই দিনে দীর্ঘ নির্বাসন থেকে দেশে ফেরেন তিনি। সেদিন বিকেল সাড়ে ৪টায় ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের বোয়িং বিমানে তিনি ভারতের রাজধানী দিল্লী থেকে কোলকাতা হয়ে তৎকালীন ঢাকা কুর্মিটোলা বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেন।
পিতার রক্তের স্রোতধারায় রক্তাক্ত স্বদেশে ফিরেই শুরু করেন পিতার অপূর্ণ স্বপ্ন বাস্তবায়নের লড়াই। স্বজন হারানোর শোক বুকে চেঁপে শুরু হয় সোনার বাংলা বিনির্মাণের সংগ্রাম। দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের যে লড়াই বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা শুরু করেছিলেন ৩৯ বছর আগে, তা আজ নতুন পরিচয় এনে দিয়েছে বাংলাদেশকে। বাংলাদেশ উন্নীত হয়েছে উন্নয়নশীল দেশে। এখন ছুটছে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্যে।
শেখ হাসিনাই যেন বাংলাদেশের নিয়তি! বাংলাদেশের মানুষের জন্যই যেন তাঁর বেঁচে থাকা! ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নির্মমভাবে নিহত হন। সে সময় তিনি ও তাঁর ছোট বোন শেখ রেহানা প্রবাসে থাকায় ঘাতকদের হাত থেকে রেহাই পান।পরবর্তী সময়ে ১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারিতে ঢাকায় অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাঁকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরপরেই তিনি ১৭ মে দেশে ফিরে আসেন।
দেশে ফেরার পর থেকে শেখ হাসিনা টানা ৩৯ বছর ধরে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন। এই দীর্ঘ সময়ে দলীয়প্রধানের দায়িত্বে থেকে নেতৃত্ব দিতে গিয়ে কারাবরণ, জীবননাশের হুমকি, জীবননাশসহ অনেক বন্ধুর পথ পাড়ি দিতে হয়েছে শেখ হাসিনাকে।অনেক চড়াই-উৎড়াই পেরিয়ে তিনি আওয়ামী লীগকে আজকের অবস্থানে এনে দাঁড় করিয়েছেন। বাংলাদেশের মানুষকে এনে দিয়েছেন গর্ব করার মতো পরিচয়।
শেখ হাসিনা পূরণ করে চলেছেন সেই প্রতিশ্রুতিই, যা তিনি বাংলাদেশের মানুষকে দিয়েছিলেন ১৯৮১ সালের ১৭ মে।সেদিন তাঁকে স্বাগত জানানোর জন্য ঢল নেমেছিলো বিমানবন্দরে। উপস্থিত প্রায় ১৫ লাখ মানুষের হৃদয় ছোঁয়া ভালবাসার জবাবে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেছিলেন, ‘বাংলার মানুষের পাশে থেকে মুক্তির সংগ্রামে অংশ নেয়ার জন্য আমি দেশে এসেছি। আমি আওয়ামী লীগের নেত্রী হওয়ার জন্য আসিনি। আপনাদের বোন হিসাবে, মেয়ে হিসাবে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী আওয়ামী লীগের কর্মী হিসাবে আমি আপনাদের পাশে থাকতে চাই।’
কথা রেখেছেন তিনি। শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বের ফলেই আওয়ামী লীগ চারবার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসেছে। আওয়ামী লীগের এই শাসন আমলেই দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের নতুন মাত্রা সূচিত হয়েছে। বাংলাদেশ উন্নীত হয়েছে উন্নয়নশীল দেশে। আাগামী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত করার ঘোষণা দিয়েছেন শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ নিম্ন -মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। পাশাপাশি শেখ হাসিনার হাত ধরেই বাংলাদেশে তথ্য- প্রযুক্তির ব্যাপক প্রসার ঘটেছে এবং উন্নত তথ্য- প্রযুক্তির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধ-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বেরই সফলতা।
১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে এদেশের গণতন্ত্র নস্যাৎ ও স্বাধীনতার মূল্যবোধ ভূলুণ্ঠিত করা হয়। ১৯৮১ সালের ১৭ মে রাজনীতিবিদ হিসাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন আবারো দেশে স্বাধীনতার মূল্যবোধ ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পথ সুগম করে।
পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর যারা ছিল অবহেলিত ও নির্যাতিত, শেখ হাসিনার প্রত্যাবর্তনে ও তাঁর নেতৃত্বের পরশে তারা আবারো জেগে ওঠার সাহস ও প্রেরণা পায়। এদিন শেখ হাসিনার নামে যথার্থই জেগে উঠে বাংলাদেশ।

 

ব্রেকিং নিউজঃ