| |

দেয়াল মুক্ত ও পরিবেশের সৌন্দর্য বজায় রেখে সার্কিট হাউজ মাঠের উন্নয়ন করা হবে মেয়র টিটু‘র মতামত প্রকাশে নগরবাসীর অকুন্ঠ সমর্থন ও স্বস্তির নি:শ্বাস

আপডেটঃ ৮:৪৪ অপরাহ্ণ | জুন ০৫, ২০২০

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ মুক্ত ময়মনসিংহের ঐতিহ্য সার্কিট হাউজ মাঠ, সবুজ-শ্যামলে ঘেরা বৃহৎ এই মাঠটি ময়মনসিংহের হৃদয় স্পন্দন, সেটি অনুধাবন করেই হয়তোবা সদ্যবিদায়ী বিভাগীয় কমিশনার খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান সাহেব মাঠটিকে উন্নয়নের মাধ্যমে ময়মনসিংহ বাসীকে সুন্দর একটি পরিবেশ উপহার দিতে চেয়ে ছিলেন, ধন্যবাদ জানাই তার এই উদ্যোগকে। কিন্তু যারা কর্মপরিকল্পনায় সরাসরি দায়িত্ব পালন করেছেন, তারা হয়তো নির্মল প্রকৃতির যে আবেদন, সেটিকে সঠিক ভাবে সদ্যবিদায়ী বিভাগীয় কমিশনার সাহেবের কাছে সে ভাবে তুলে ধরতে পারেননি, একজন পরিকল্পনাবিদ কে হতে হয় সর্বমুখী কিন্তু এক্ষেত্রে বলা যায়, যারা ছিলেন এর দায়িত্বে তাদের হয়ত হৃদয় অনুভূতি না থাকার কারণেই উন্নয়ন প্রকল্পটিকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে, এই উন্নয়ন প্রকল্পে বেশ কিছু অসংগতি থাকার কারণে প্রায় সর্ব শ্রেণি-পেশার মানুষ প্রতিবাদ মুখর কিন্তু উন্নয়ন মানেই জনকল্যাণ, যে বিষয়টিকে বর্তমান সরকারের সফল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা মহোদয় সকল সময়ই গুরুত্ব সহকারে উল্লেখ করে থাকেন, প্রত্যেকটি উন্নয়নকে হতে হবে টেকসই এবং জনকল্যাণমুখী। প্রকল্প গ্রহণের প্রাক্কালে বিভিন্ন স্তরের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, ক্রীড়া সংগঠক, পরিবেশবিদ, নাগরিক সংগঠন, সাংবাদিকদের সংগঠন সহ সংশ্লিষ্ট সংগঠন বা ব্যক্তি বর্গের পরামর্শ গ্রহণ করে প্রকল্পটি গ্রহণ করলে হয়তোবা আজকে প্রশ্নবিদ্ধ হতে হতো না আমাদেরকে। বর্তমান এই প্রেক্ষাপটে সকলের একটি দাবি প্রাকৃতিক পরিবেশকে অক্ষুন্ন রেখে দেয়াল মুক্ত উন্নয়ন চাই। সকলের এই প্রত্যাশা কে পূরণে সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গেই আলোচনা হয়েছে, আশা করি দেয়াল মুক্ত এবং পরিবেশের সৌন্দর্যকে অক্ষুন্ন রেখেই সকলের সহযোগিতায় প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন হবে ইনশাল্লাহ, মহান আল্লাহ পাক আমাদের হেফাজত করুন।
ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু ফেইজেবুকে স্ট্যাটাজ দেয়ায় স্বস্তির নি:শ্বাস ফেলছে ময়মনসিংহবাসী। জননন্দিত মেয়রের মতামতে অকুন্ঠ সমর্থন জানিয়ে অনেকেই তাদের মতামত দিয়েছেন। তাদের মাঝে কয়েক জনের মতামত তুলে ধরা হলো। শ্রমিকলীগ নেতা শাহীন রাকিব লিখেছেন, অপরাজিত ময়মনসিংহ বাসী। হেরে যেতে শিখেনি এই জেলাবাসী। বারবার রুখে দিয়েছে বৃটিশদের চোখ রাঙানি। ৭১ এ অস্ত্রহাতে তুলে নিয়েছে সবার আগে। স্বৈরাচার সরকার প্রধানকে ঢুকতে দেয়নি বছরের পর বছর। ভালবেসে ময়মনসিংহ বাসীদের দিয়ে অনেক কিছুই করানো যায়, কিন্তু ঘুম পাড়িয়ে, ছেলে ভোলানো গান শুনিয়ে কিংবা চোখ রাঙিয়ে ময়মনসিংহের মাটির একটা ঘাস কাটা যায় না কখনো ইতিহাস তাই বলে। আমরা অল্প সময়ের মাঝেই সুসংবাদ শুনতে যাচ্ছি। ধন্যবাদ জানাচ্ছি মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় জনাব শরীফ আহমেদ, মাননীয় মেয়র মহোদয় জনাব মো: ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সভাপতি জননেতা এডভোকেট মো: জহিরুল হক খোকা, সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, সম্মানিত সহ সভাপতি জনাব আমিনুল হক শামীমসহ সকল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ যারা ময়মনসিংহ বাসীর প্রানের আকুলতা অনুধাবন করে সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহনে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে ময়মনসিংহ বাসীর মুখে হাসি ফুটাতে যাচ্ছেন। আন্দোলন শুরু হবার মুহুর্তেই বিজয়ী হতে যাচ্ছে ময়মনসিংহ বাসী। মাঠ গতকাল যেমন ছিল, আজকে যেমন আছে, আগামীকাল তেমনি থাকবে। বন্দীত্বের শেকল পড়তে হচ্ছে না মাঠ কে। মুক্ত মাঠ তার সন্তানদের বরাবরের মত করেই বুকে টেনে নিবে। শুভ বিকেল। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। ময়মনসিংহ জেলা যুবলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক শাহ শওকত উসমান লিটন লিখেছেন, ময়মনসিংহ নগরীর যে কোন উন্নয়ন পরিকল্পনার সময় ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত মেয়রকে সম্পৃক্ত করা উচিৎ। জেলা আওয়ামীলীগ সদস্য এডভোকেট ইমদাদুল হক সেলিম লিখেছেন, প্রিয় মেয়র মহোদয়কে ধন্যবাদ। সার্কিট হাউস ময়দানের কোন উন্নয়নের জন্য প্রথমেই স্থপতি ইকবাল হাবিবদের মতো খ্যাতনামা নকশাবিদদের দ্বারা নকশা করা প্রয়োজন। ময়মনসিংহ চেম্বার অব কমার্সের সহসভাপতি শংকর সাহা মেয়র সাহেবকে সম্বোধন লিখেছেন, আপনি আমাদের অভিভাবক আপনার সাথে কেন পূর্বে কর্তৃপক্ষ আলোচন করলেন না তা বুঝলাম না। জনগনের নেতা কে এরিয়ে চলা যায় না। বাংলার মুখ ময়মনসিংহ জেলার সভাপতি অধ্যক্ষ শাহাব উদ্দিন লিখেছেন, “সার্কিট হাউজ ময়দান ” বিতর্কে আপনার বক্তব্য ময়মনসিংহবাসী কে আশ্বস্ত করেছে। ধন্যবাদ, মেয়র মহোদয়কে। সাংবাদিক মো: হাসনাতুল ইসলাম মিল্লাত লিখেছেন, প্রিয় মেয়র মহোদয়, আপনার বিচক্ষনতায় আমাদের মনোভাব, অনুভুতি অনুধাবন করেছেন এবং যথার্থই বলেছেন, ধন্যবাদ আপনাকে। তারপরও, নগরপিতা হিসাবে আপনাকে সম্পৃক্ত ও নগরবাসীর মনোভাব অনুযায়ী আপনার মতামত গ্রহন করা প্রয়োজন ছিলো। সর্বোপরি, ময়মনসিংহবাসীর অনুভুতি, মনোভাব, মতামত অনুধাবন করে, আপনার সুচিন্তিত অভিমত ব্যক্ত করার জন্য ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। আপনার মতামতের প্রতি পূর্নসমর্থন ও সহ মত জানাচ্ছি। মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন আহবায়ক শেখ মাসুম লিখেন, ধন্যবাদ আপনাকে আপনার সাথে আরো আগেই পরামর্শ করার দরকার ছিল কর্তুপক্ষের পরিশেষে সেই আপনার দিকনির্দেশনা দিতে হয়। আবারো আপনার প্রতি সিটিবাসীর পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও ভালোবাসা রইলো মাননীয় মেয়র জননেতা জনাব ইকরামুল হক টিটু মহোদয়। আনন্দ মোহন সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা মো: মাহমুদুল হাসান সবুজ লিখেছেন, সময় উপযোগী কথা বলেছেন প্রিয় অভিভাবক। ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সাবেক সম্পাদক, ময়মনসিংহ টেলিভিশন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক আলহাজ্ব মো: বাবুল হোসেন লিখেছেন, স্থানীয় নেতৃবৃন্দের কাছে ময়মনসিংহবাসী এ রকম সাহসী বক্তব্য আশা করে ছিলেন। অনেক অনেক ধন্যবাদ মানবিক মানুষ ও জনগণের মনের চাহিদা বুঝে কাজ করে চলা প্রিয় সিটি মেয়র সাহেবকে। সমাজ সেবক মো: হাসনাত জামান সবুজ লিখেন, আশা করি প্রকৃতির অপার সৌন্দর্যকে টিকিয়ে রেখে যেভাবে সার্কিট হাউসের উন্নয়ন করলে জনগণের মনের চাহিদা পূরণ হয়, প্রশাসন সেভাবেই উদ্যোগ গ্রহণ করবে। যুবলীগ নেতা সারোয়ার জাহান মুকুল লিখেছেন, আধুনিক ময়মনসিংহের রুপকারকে এড়িয়ে এতো স্পর্শকাতর বিষয়টি কি ভাবে শুরু হলো এটাই বুঝলাম না! সব কিছুর একটা সিস্টেম থাকা উচিৎ। যাই হোক, আমরা মাঠকে উন্মোক্ত রেখেই উন্নয়নের পক্ষে, বন্দি করে নয়। ধন্যবাদ প্রিয় ভাই। আওয়ামীলীগ নেতা সেলিম আলমগীর লিখেন, ধন্যবাদ নগরপিতা, কথাগুলো ভাল লাগছে।শুভ কামনা, মানবতার ফেরিওলা। কাউন্সিলর নিয়াজ মোর্শেদ লিখেন, মাননীয় মেয়র মহোদয় সকলের মনের কথাগুলোই বলেছেন। এখন আশা করি কতৃপক্ষ সঠিক কাজটিই করবেন শুভবুদ্ধির উর্দয় হবে। রাকিব উদ্দিন হিমেল লিখেন, ময়মনসিংহ নগরীর যে কোন উন্নয়ন পরিকল্পনার সময় ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত মাননীয় মেয়র মহোদয়ের সাথে আলোচনা করার উচিৎ ছিলো। সানু মুক্তা লিখেন, আমরা ময়মনসিংহবাসী আপনার মূল্যবান মতামতের অপেক্ষায় ছিলাম। আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ আমাদের প্রাণের দাবীটি বুঝতে পারার জন্য। আশা করি এখন ভালো কিছু হবে। ইঞ্জিনিয়ার ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল লিখেন, ময়মনসিংহের আপামর জনতার প্রিয় নেতা টিটু ভাইয়ের সাথে আমিও সহমত পোষণ করেছি,জয় হোক জন নেত্রী শেখ হাসিনা ও মসিক মেয়র টিটু ভাইয়ের, জয় বাংলা। বিপ্লব চন্দ্র বর্মন লিখেন, আমিও উন্নয়ন চাই, তবে পরিবেশবান্ধব উন্নয়ন। ধন্যবাদ প্রিয় নগর পিতা। কাউন্সিলর কাউসার-ই- জান্নাত লিখেন, নগরের নগর পিতা জনাব ইকরামুল হক টিটু মহোদয় আপনার প্রতি আমাদের ময়মনসিংহ বাসির আস্থা নির্বিশেষ,অবিনশ্বর। পরিবেশবাদী সংগঠন প্রেরনার সাধারন সম্পাদক আলহ্জ্ব ফরহাদ হাসান খান লিখেন, অন্তরের অন্তস্থল থেকে তোমাকে শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ এত সুন্দর ভাবে তুমি আমাদের মাঝে উপস্থাপন করেছে। আমাদের ময়মনসিংহবাসীর সর্বস্তরের সকলের মনের আশার কথাগুলো তুমি বলেছ। আবারো তোমাকে ধন্যবাদ দীর্ঘজীবী হও। যুব মহিলালীগ নেত্রী সারমিন আক্তার লাকী লিখেন, গঠনমূলক উন্নয়ন হোক ময়মনসিংহবাসীর প্রাণের দাবী এই ঐতিহ্যবাহী মাঠটিকে ঘিরে।সময়ের সাহসী বক্তব্য।ধন্যবাদ নগরপিতা মো: ইকরামুল হক টিটু ভাই। ময়মনসিংহ জেলা স্ব্চ্চেঅসেবকলীগের সভাপতি এডভোকেট এবিএম নুরুজ্জামান খোকন লিখেন, মেয়র মহোদয়কে কেন আগে থেকেই সম্পৃক্ত করা হয়নি, এটা ভেবে দেখা প্রয়োজন কারন, সার্কিট হাউজ এলাকায় জয়নূল পার্ক উন্নয়নে মেয়র মহোদয়ের বাস্তবায়িত পরিকল্পনার সাথে সমন্বয় না হলে ঐ এলাকায় সৌন্দর্য বর্ধন হবেনা । সাংবাদিক শরীফুজ্জামান টিটু লিখেন, মেয়র মহোদয়কে ধন্যবাদ। ভাবতে আশ্চর্য লাগছে যে নগরীর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে প্রকল্প গ্রহনকালে এ নগরের নগর পিতা জানলেন না। তহলে এই পরিকল্পনা গ্রহণের সময় কারা ছিলেন যারা এধরণের পরিকল্পনায় মত দিলেন। নগর পিতা হিসেবে আপনার এ ব্যাপারে জোড়ালো পদক্ষেপ নেয়া উচিৎ। ইঞ্জিনিয়ার মো: আব্দুল মোতালেব লিখেন, মাননীয় মেয়র মহোদয় আপনার সুচিন্তিত যুক্তিসংগত মতামতের জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আপনি নগর পিতা হিসাবে আপনার মতা মত আশা রাখি সবারই কাছে গ্রহণ যোগ্য হবে। সুযোগ্য নেতার সুচিন্তিত মতামত। আমি মনে করি “মাঠ” আর “পার্ক” এক জিনিস নয়। হাফেজ শেখ ফিরোজ লিখেন, আমার মনে হয় শুরুতে জনগনের আস্থাভাজন নেতা নগর উন্নয়নের কর্নধার মেয়র মহোদয়ের সাথে পরামর্শ করে নিলে এমনটা হত না। কবি আমজাদ দোলন লিখেন, মেয়র মহোদয়কে অনেক ধন্যবাদ, আমরা সবাই দেয়াল মুক্ত উন্নয়ন চাই। ময়মনসিংহ বিদ্যুৎ শ্রমিকলীগের সভাপতি মো: এমদাদুল হক এমদাদ লিখেন, অনেক ধন্যবাদ মাননীয় মেয়র সাহেব। আপনি নগরবাসীর অন্তরের স্পন্দন বঝতে পেরেছেন। মুখোশ নাট্য সংস্থা লিখেন, সার্কিট হাউজ ময়দানে দেয়াল দেওয়ার ব্যাপারে আপনার বক্তব্যে ময়মনসিংহ বাসি প্রাণ ফিরে পেলো আপনাকে ধন্যবাদ। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু। সেইভ দ্যা ফিউচার সামাজিক কল্যান সংস্থার সভাপতি আনিকা ইয়াসমিন লিখেন, সার্কিট হাউজ ময়দান” বিতর্কে আপনার বক্তব্য ময়মনসিংহবাসী। কৃষকলীগ নেতা মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাফিজ লিখেন, “সার্কিট হাউজ ময়দান ” বিতর্কে আপনার বক্তব্য ময়মনসিংহবাসী কে আশ্বস্ত করেছে। ধন্যবাদ, মেয়র মহোদয়কে। মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগ নেত্রী দিলরুবা আক্তার লিখেন, আপনার প্রতিটি পদক্ষেপ ময়মনসিংহ বাসীর জন্য আশীর্বাদ হিসাবে বয়ে আনে। আল্লাহ পাক আপনার মঙ্গল করুক।প্রিয় ভাই প্রিয় নেতা। মিজানুর সৈকত লিখেন, আমাদের নগর পিতা আছেন বলেইত ময়মনসিংহে এত উন্নয়ন মূলক কাজ হচ্ছে..তাই ত তিনি সকলের কথা চিন্তা করে দেয়াল মুক্ত এবং পরিবেশের সৌন্দর্যকে অক্ষুন্ন রেখেই সকলের সহযোগীতায় প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করবেন। ইনশাল্লাহ, মহান আল্লাহ পাক আমাদের ও আমাদের অভিভাবকে হেফাজত করুন। সম্পা খান লিখেন, এমনটাই শুনতে চেয়েছিলাম আপনার কাছে। এই না হল আমাদের নগর পিতা। স্যালুট আপনাকে। সর্বোপরি আমাদের সার্কিট হাউজ মাঠ দেয়াল মুক্ত উন্নয়ন মাঠ হবে। ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করার সাহস নেই, তাই প্রাণ থেকে দোয়া ভাল থাকুন খুব ভাল থাকুন। আমিন। ফারজানা মৌসী লিখেন, এই বিষয়ে আপনার বক্তব্য ময়মনসিংহ বাসীর মনের কথা বলেছে। আপনার বক্তব্য আমাদের প্রানে শান্তি এনেছে।আপনাকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা এবং ভালোবাসা এবং ধন্যবাদ সুযোগ্য মেয়র মহোদয়। সামসুজ্জামান কিরন লিখেন, মাননীয় মেয়র জনাব ইকরামুল হক টিটু মহোদয় কে স্বাগত জানাচ্ছি আপনার অত্যন্ত সুন্দর মতামতের জন্য, আমরাও সহমত পোষণ করছি আপনার বক্তব্যের সাথে। আমাদের ময়মনসিংহের ইতিহাস ঐতিহ্য অক্ষুন্ন রেখে সব ধরনের উন্নয়নের সহযোগিতায় আমরা পাশে আছি ময়মনসিংহ বাসী। ওমর ফারুক লিখেন, আশা করি সব সমস্যা সমাধান করে প্রকল্পটি আলোর মুখ দেখবে!! আমরা আর কোন প্রকল্প বাতিল হওয়ার সংবাদ শুনতে চাই না! আল্লাহ আপনার সহায়। কবি ইয়াজদানী কোরায়শী লিখেন, আমাদের পাশের জেলা টাঙ্গাইলে বধ্য ভূমি ও তৎসংলগ্ন এলাকাজুড়ে চমৎকার দৃস্টিনন্দন একটি স্হাপনা সম্প্রতি করা হয়েছে একজন পরিকল্পনাবিদকে দিয়ে। এই কাছের উদাহরণ টিও আমরা দেখতে পারি। রোকন জামান লিখেন, জনগণের মনের ভাষাটা বুঝার জন্য যে মন দরকার সেটা সকলের থাকেনা। ধন্যবাদ মাননীয় মেয়র আমাদের মনের ভাষা, আবেগ-অনুভূতিকে বোঝার জন্য এবং বিভাগীয় কমিশনারের এই সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে ভূমিকা রাখার জন্য। রাসেল সাইফুল ইসলাম লিখেন, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন নগর পিতা বর্তমান সরকারের সময়ের উন্নয়নের রূপকার জনাব ইকরামুল হক টিটু ভাই কে অসংখ্য ধন্যবাদ। যিনি ময়মনসিংহ বাসীর প্রানের দাবি টা উপলব্ধি করতে পেরে হয়তো একটি সঠিক সমাধান দিবেন। হাবিবুর রহমান লিপন লিখেন, সকল বিতর্কের উদ্ধে থেকে সকলের মতামতের ভিত্তিতে ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ মাঠের প্রকৃতিকে বাঁচিয়ে টেকসই উন্নয়ন হোক এটাই প্রত্যাশা , ধন্যবাদ মেয়র মহোদয়কে । এছাড়াও হাজারেরও অধিক নগরবাসী মতামতে সমস্যার সমাধান করে উন্নয়নের কাজ এগিয়ে নেয়ার জন্য মেয়র মহোদয়কে অকুন্ঠু সমর্থন জানিয়েছেন। সময়োপযোগী মতামত ব্যাক্ত করার জন্য ধন্যবাদ, সালাম ও শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

ব্রেকিং নিউজঃ