| |

অতিরিক্ত অর্থ আদায় ১২০৯ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

আপডেটঃ 2:07 pm | February 29, 2016

Ad

আলোকিত ময়মনসিংহ : মাধ্যমিক (এসএসসি) পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ গ্রহণ করেও জবাব না দেওয়ায় এক হাজার ২০৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

রোববার দুপুরে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ৩০ দিন সময় দিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

২০১৫ সালের এসএসসি’র ফরম পূরণে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অতিরিক্ত ফি আদায় করার অভিযোগ ওঠে।

এমন তিন হাজার ৩৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা তৈরি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, তিন হাজার ৩৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৮৩০টি আদায়কৃত অতিরিক্ত অর্থ ফেরত দিয়েছে।

‘৯৯৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে, তারা শিক্ষাবোর্ড নির্ধারিত অর্থের চেয়ে অতিরিক্ত নেয়নি। তাদের দাবির বিষয়টির যথার্থতা পরীক্ষা করা হবে’।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এক হাজার ২০৯ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কোনো জবাব প্রদান করেনি। হাইকোর্টের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের গভর্নিং বডি কেন বাতিল করা হবে না, তার জন্য কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। বিধি অনুযায়ী তারা জবাব দেওয়ার জন্য ৩০ দিন সময় পাবে। এ সময় অতিক্রান্ত হওয়ার পর হাইকোর্টের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

‘অতিরিক্ত ফি গ্রহণ করা হলে বা না হলেও শো’কজের উত্তর না দিলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। তারা বেআইনি কাজ করেছে, আমরা পদক্ষেপ নেবো’- বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

২০১৫ সালের এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে বিজ্ঞান বিভাগে এক হাজার ৪৫০ টাকা এবং মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য এক হাজার ৩৩০ টাকা নির্ধারিত ফি ধার্য করা হয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় গত ৩ ফেব্রুয়ারি সাত কর্মদিবসের মধ্যে অতিরিক্ত ফি ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেয়।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে কোনো জবাব প্রদান না করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া শুরু হয়েছে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

ফরম পূরণ এবং ভর্তিতে বর্ধিত ফি গ্রহণের বিষয়টি গোচরীভূত হলে এর আগে হাইকোর্ট অতিরিক্ত অর্থ আদায়কারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর গভর্নিং বডি/ম্যানেজিং কমিটি বাতিলের জন্য সুয়্যোমেটো রুল জারি করেন।

এদিকে চলতি শিক্ষাবর্ষে ভর্তিতে অতিরিক্ত ফি গ্রহণের একটি প্রতিবেদন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে রোববার জমা দিয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, রিপোর্ট পর্যালোচনা করে জানাবো।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিকসহ কর্মকর্তারা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

ব্রেকিং নিউজঃ