| |

বর্নাঢ্য রাজনীতিবিদ মোঃ নাসিমের প্রানবিয়োগ

আপডেটঃ 12:12 pm | June 14, 2020

Ad

প্রদীপ ভৌমিক :
বর্নাঢ্য রাজনীতিবিদ মোঃ নাসিমের প্রানবিয়োগ।
মোহাম্মদ নাসিম পিতা শহীদ ক্যাপ্টেন এম মুনসুর আলী, মাতা আমেনা খাতুন ওরফে আমেনা মুনসুর। জন্ম ০২/০৪/১৯৪৮, মৃত্যু ১৩/০৬/২০২০। জন্মস্থান তদানিন্তন পাবনা জেলার সিরাজগঞ্জ মহকুমার কাজীপুর থানায়।
তার পিতা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, মুক্তিযুদ্ধকালীন মুজিব নগর সরকারের বা অস্থায়ী সরকারের মন্ত্রী ও স্বাধীন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তার পিতা শহীদ ক্যাপ্টেন এম মুনসুর আলী জীবন দিয়েছেন কিন্তু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি বিশ্বস্ত থেকেছেন। তদ্রুপ মোঃ নাসিমও বাংলাদেশ গড়ার নতুন কারিগর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অবিচল থেকে আমৃত্যু তাকে সহায়তা করেছেন।
মোহাম্মদ নাসিম বাংলাদেশের একজন গুরুত্বপূর্ণ রাজনীতিবিদ ছিলেন। উনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুব সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক ও সর্বশেষ একক সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। (এখন সাংগঠনিক সম্পাদক ৮ জন)। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত উনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি মণ্ডলীর অন্যতম সদস্য ও নীতিনির্ধারক ছিলেন। মোঃ নাসিম দীর্ঘদিন যাবত সুচারুরূপে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও মুখপাত্রের দায়ীত্ব পালন করছিলেন।
১৯৬৬ সনে ইন্টারমিডিয়েট পড়ার সময় ভুট্টা বিরোধী আন্দোলনে অংশ নেয়ার কারণে তাকে তার পিতার সাথে গ্রেফতার করে জেলে আটক রাখা হয়েছিল।
১৯৭১ সালে মোঃ নাসিম পরিবারের সাথে কলকাতায় থাকার সময় ঘুরে ঘুরে মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতা কামী দের সাহায্য সহযোগিতা করেছেন।
১৯৭৫ সালের ঐতিহাসিক হত্যাকান্ডের পর তাকে গ্রেফতার করে দীর্ঘদিন জেলে পুরে রাখা হয়।
মোঃ নাসিম ১৯৭৫ পরবর্তী সময়ে সকল স্বৈরশাসক ও অগণতান্ত্রিক শাসনের বিরুদ্ধে ব্যাপক লড়াই সংগ্রাম করেছেন। গনতান্ত্রিক ও ভোটাধিকার আদায়ের আন্দোলনে বিভিন্ন সময়ে জেল, জুলুম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুব সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক থাকার সময় স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে মোঃ নাসিম ছিলেন উজ্জল নক্ষত্র। উনি দৃঢ়তার সাথে যে কোন পরিবেশ ও পরিস্থিতি মোকাবেলা করতেন। তার ক্যারিশমায় কর্মী গন চাঙ্গা থাকতো, কর্মীদের মনোবল বৃদ্ধি পেতো।
জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা, মমতাময়ী নেত্রী, বিশ্বমানবতার মা, উন্নয়নের দৃষ্টান্ত, গনতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করলে মোঃ নাসিম সবসময় নেত্রীর সাথে এবং সিদ্ধান্তে অবিচল থেকেছেন।
১৯৮৬, ১৯৯৬, ২০০১, ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে মোট পাঁচ বার উনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। সংসদ সদস্য হিসাবে রাজপথ সহ সরকারী ও বিরোধীদলে মোঃ নাসিম সব সময় সোচ্চার থেকেছেন। বিরোধী দলে থাকার সময় উনি হুইপের দায়ীত্ব পালন করেছেন। উনি ২০১৪ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ছিলেন। এর আগে ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত উনি স্বরাষ্ট্র, গৃহায়ন ও গণপূর্ত এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তার তিন প্রজন্ম সংসদ সদস্য। (পিতা মুনসুর আলী, মোঃ নাসিম নিজে ও পুত্র তানভীর শাকিল জয়)
২০০৭ সালে তিন উদ্দীনের (ইয়াজউদ্দিন, ফখরুদ্দীন ও মঈনউদ্দীন) অসাংবিধানিক সরকার অনেক রাজনীতিবিদের সাথে তাকেও গ্রেফতার করে। এক কোটি ছাব্বিশ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও ২০ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপনের বানোয়াট মামলায় তাকে ১৩ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। নাসিম ভাই মামলা ও সাজার আইনগত ভিত চ্যালেঞ্জ করলে, ২০১০ সালে হাইকোর্ট সাজা ও মামলা বাতিল ঘোষনা করে।
তিনি রাজনীতির পাশাপাশি সমাজকল্যাণমূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ঢাকাসহ সিরাজগঞ্জ ও কাজীপুরে অনেক গুলো শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেছেন। উনি যমুনা নদীর ভাঙ্গন থেকে সিরাজগঞ্জ বাসী দের রক্ষাকল্পে বিশেষ বরাদ্দের ব্যবস্থা করে ভাঙ্গন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা নিয়েছেন। তার দ্বারা অত্রাঞ্চলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার আমূল-পরিবর্তন হয়েছে। রাস্তাঘাট ও যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাপক উন্নত হয়েছে। কৃষি, শিক্ষা, মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির সহ অন্যান্য অবকাঠামোগত উন্নয়ন উল্লেখযোগ্য।
মোঃ নাসিম পাবনা এডওয়ার্ড কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত জগন্নাথ কলেজ (বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়) থেকে রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেছেন।
দেশের সকল অসাম্প্রদায়িক ও গনতান্ত্রিক আন্দোলনের অগ্রসৈনিক মোঃ নাসিম জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার থেকেছেন।
বর্নাঢ্য রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগের অন্যতম সিপাহসালার, বর্নাঢ্য রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান, বর্নাঢ্য রাজনীতিবিদ মোঃ নাসিমের প্রান বিয়োগে দেশ, জাতি ও রাজনীতির অপূরনীয় ক্ষতি হলো।
শোক সন্তপ্ত পরিবার ও তার অনুসারীদের সমবেদনা জানিয়ে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত ও চিরশান্তি কামনা করে মহান সৃষ্টিকর্তার নিকটে কায়মনোবাক্যে প্রার্থনা, করোনা ভাইরাস জনিত মহামারী সহ জটিল রোগে মৃত্যুবরণ কারী মোঃ নাসিমকে শহীদী মর্যাদা দান কর।

ব্রেকিং নিউজঃ