| |

অমর হোক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নাসিম

আপডেটঃ 7:36 pm | June 15, 2020

Ad

আব্দুল কদ্দুছ মাখন : অমর হোক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নাসিম।
১৯৭১ সনে মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতায় ভুমিকা রেখেছেন সদ্য প্রয়াত আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতা মোঃ নাসিম। দেশের শত কোটি জনতা শতাব্দীর পর শতাব্দী স্বাধীনতার সুফল ভোগ করে বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ভাইকে মনে রাখবে।
১৯৭৫ সনের আগষ্ট ও নভেম্বরে পৃথিবীর ইতিহাসের সবথেকে নির্মম রাজনৈতিক হত্যাকান্ডের পর হত্যাকারীদের নির্মম ষড়যন্ত্রে দীর্ঘদিন জেলে আটক থেকেছেন। মুক্ত হয়ে ১৯৭৫ সনের হত্যাকান্ড পরবর্তী সময়ে অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীদের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রাম করে দলকে সুসংগঠিত করে দলের ঐক্য সুসংহত করেছেন। অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীদের ভীত কাপিয়েছেন। স্বৈরশাসক দের বিরুদ্ধে অকুতোভয় চিত্তে আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন। জাতির পিতার কন্যা মমতাময়ী নেত্রী, বিশ্বমানবতার মা, উন্নয়নের দৃষ্টান্ত, গনতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অবিচল থেকে ২১ বৎসর পর নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দলকে ক্ষমতায় নিতে ভুমিকা পালন করেছেন। দলের সকল স্তরের নেতা-কর্মীদের নিকটে নাসিম ভাই অমূল্য সম্পদ।
নাসিম ভাই টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী হবার পূর্বে দেশে মোবাইল ফোনের ব্যবসা ছিলো বিএনপির প্রভাবশালী নেতা ও মন্ত্রীর মালীকানাধীন সিটিসেল কোম্পানির হাতে। মোবাইলের আউট গোয়িং ইনকামিং দু’টো তেই উচ্চ মাত্রার বিল ছিলো। মিনিটে কমপক্ষে ৬.৯০ টাকা। কোন পালস ছিলো না। এক সেকেন্ডেও ৬.৯০ টাকা, ঊনষাট সেকেন্ডেও ৬.৯০ টাক। সেট সহ ফোনের মূল্য ছিলো কমপক্ষে দেড় লাখ টাকা। এককথায় লুটপাটের আসর।
নাসিম ভাই এই একচেটিয়া ব্যবসার অবসান ঘটিয়েছেন। গ্রামীন ফোন, রবি, বাংলালিংক, এয়ারটেল সহ আরো কিছু মোবাইল কোম্পানিকে সুযোগ দিয়ে মোবাইল সেবা সহজলভ্য ও সস্তা করেছেন। শহর গ্রামের দূরত্ব কমিয়ে পারিবারিক বন্ধন, আত্মীয়তার যোগাযোগ সহ বন্ধুত্বের বাঁধনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছেন। মোবাইল ফোন ব্যবহার কারীগন যুগযুগ নাসিম ভাইয়ের অবদান মনে রাখবে।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী থাকার সময় সর্বহারা পার্টিকে সমূলে উৎপাটন করে দেশবাসীকে সর্বহারা সন্ত্রাস থেকে মুক্ত করেছেন। কোটি টাকার লোভ সম্বরণ করে খুলনা অঞ্চলের ত্রাস এরশাদ শিকদারের শাস্তি নিশ্চিত করে সন্ত্রাসের জনপদে শান্তি স্থাপনে ভুমিকা রেখেছেন। লক্ষ লক্ষ সুবিধাভোগীরা এসব কৃতজ্ঞতার সাথে স্বীকার করে।
নাসিম ভাই স্বাস্থ্যমন্ত্রী থাকাকালে সবচেয়ে বেশী সংখ্যক মেডিক্যাল কলেজ ও নার্সিং ইনষ্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেছেন। এখান থেকে পাশ করা শিক্ষার্থী ও গ্র‍্যাজুয়েট গন যুগ যুগ দেশ ও জাতির সেবা করবে।
নাসিম ভাই স্বাস্থ্য মন্ত্রী থাকার সময় দেশের বিভিন্ন স্থানে সবচেয়ে বেশী সংখ্যক সরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা করেছেন। দেশের নিম্ন ও প্রান্তিক আয়ের শ্রমিক, কৃষক, জেলে, নাপিত, ধোপা, কামার,কুমার, ফকির, মিসসকিন সহ প্রায় সকল শ্রেনীর নারী পুরুষ অনন্তকাল উক্ত হাসপাতাল ও ক্লিনিক থেকে চিকিৎসা সেবা পাবে।
নাসিম ভাই স্বাস্থ্যমন্ত্রী থাকার সময় প্রায় সকল সরকারি হাসপাতালে বেডের সংখ্যা বৃদ্ধি করেছেন। বেড সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় অধিক সংখ্যক রুগী হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা সেবা নিতে পারছে। যতদিন হাসপাতাল থাকবে দেশবাসী ততদিন এই সেবা ভোগ করবে।
শেখ হাসিনা ন্যাশনাল ইনষ্টিটিউট ফর বার্ণ অ্যাণ্ড প্লাষ্টিক সার্জারী প্রতিষ্ঠিত হয়েছে নাসিম ভাই স্বাস্থ্য মন্ত্রী থাকার সময়। উনি স্বাস্থ্য মন্ত্রী থাকার সময় দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে বার্ণ ইউনিট স্থাপন করা হয়েছে। এইসব বার্ন হাসপাতাল ও ইউনিট সমূহ থেকে জাতি আজীবন বিশেষ সেবা লাভ করবে।
বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ভাই ছিলেন ফলবান বৃক্ষ স্বরূপ। যতদিন জীবিত ছিলেন ততদিন দেশকে দিয়ে গেছেন। তার গুনগান শেষ করার মত না। নাসিম ভাই আপনি নাই কিন্তু আপনার কর্ম আছে, থাকবে। মানুষ শতাব্দীর পর শতাব্দী আপনার সু-কর্ম থেকে সুফল পাবে আপনাকে স্মরন করবে, আপনি পরকালে বসে সওয়াব পাবেন।
বুখারী, মুসলিম ও মিশকাত শরীফের (হাদীস) বর্ননা অনুযায়ী মহামারীতে মৃত্যুবরণ করায় আপনি শহীদ। মহান আল্লাহ আপনাকে গর্বের সাথে মৃত্যুবরণের তৌফিক দিয়েছেন। আল্লার দরবারে শুকরিয়া জানাই।
প্রিয় নাসিম ভাই, আমরা আপনাকে ভুলে গেলেও ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী আপনি আপনার কর্মের দরুন লক্ষ কোটি মানুষের মনে জীবিত থাকবেন, অমর হবেন।
স্থায়ী ঠিকানায় ভালো থাকবেন নাসিম ভাই।

ব্রেকিং নিউজঃ