| |

অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খান স্যার স্মরণে ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত

আপডেটঃ 8:28 pm | August 19, 2020

Ad

ঢাকাস্হ ময়মনসিংহ বিভাগ সমিতির উদ্যোগে ১৮ আগস্ট ২০২০ তারিখ সন্ধ্যা ৭:৩০ টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ময়মনসিংহ নাগরিক আন্দোলনের সভাপতি মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খান স্মরণে ভার্চুয়াল স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সমিতির সভাপতি ও বিটিভি’র সাবেক মহাপরিচালক ম. হামিদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল হাসান শেলী’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন মাননীয় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে.এম খালিদ বাবু এমপি, মাননীয় তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ হাসান এমপি, বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সচিব আব্দুস সামাদ, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোস্তাফিজুর রহমান, ঢাকাস্হ ময়মনসিংহ বিভাগ বাস্তবায়ন পরিষদের মহাসচিব অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আবু, এটিএন বাংলার উর্ধতন কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান খান, রেলওয়ের সাবেক মহাপরিচালক তোফাজ্জল হোসেন, সৈয়দ আতিকুর রহমান ছানা, খন্দকার আতাউর রহমান, ঢাকাস্হ ময়মনসিংহ সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আশরাফুল হক জর্জ, বৃহত্তর ময়মনসিংহ যুব সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ আবু তাহের প্রমুখ।ময়মনসিংহ থেকে যুক্ত হয়ে সূচনা বক্তব্য রাখেন নাগরিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক নূরুল আমিন কালাম। শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে কথা বলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, জেলা জাসদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম চুন্নু, বহুরুপী নাট্য সংস্হার মহাসচিব শাহাদাৎ হোসেন খান হীলু, বিএমএ’র সাধারণ সম্পাদক ডাঃ এইচ. এ গোলন্দাজ তারা, অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খান এর জ্যেষ্ঠ পুত্র খান মেহেদী হাসান। দোয়া পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খান এর মেঝো পুত্র ও আনন্দমোহন কলেজের সহযোগী অধ্যাপক খান সাদী হাসান। অনুষ্ঠানে কারিগরি সহায়তা প্রদান করেন ইঞ্জিনিয়ার কাওসার আহমেদ রুবেল। আলোচকবৃন্দ বলেন, ময়মনসিংহ বিভাগ বাস্তবায়ন আন্দোলনের পুরোধা ব্যাক্তিত্ব অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান খান ছিলেন সততা, সাহস, দৃঢ়তা, একাগ্রতা, অকপটতা, দক্ষতা, অভিজ্ঞতা ও বহুমাত্রিক প্রতিভায় ভাস্বর সর্বজন শ্রদ্ধেয় একজন অনুকরণীয় ব্যাক্তিত্ব। কাছাকাছি সময়ে তাঁকে অতিক্রম করার মত কাউকে দেখা যাচ্ছে না। তিনি আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রশ্নে ছিলেন আপসহীন। অনন্য ব্যাক্তিত্বের অধিকারী ছিলেন বলেই দলমত নির্বিশেষে বৃহত্তর ময়মনসিংহের সকল নাগরিকের কাছে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা ছিল প্রশ্নাতীত।আলোচকবৃন্দ তাঁকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য স্মৃতি পরিষদ কিংবা অনুরুপ কোন সংগঠন প্রতিষ্ঠায় ঐক্যমত পোষণ করেন। ময়মনসিংহ বিভাগের সার্বিক উন্নয়নের মাধ্যমেই তাঁর আকাঙ্ক্ষার বাস্তবায়ন ঘটবে বলে সভায় আশাবাদ ব্যাক্ত করা হয়।

ব্রেকিং নিউজঃ