| |

টঙ্গী পশ্চিম থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের পরিচিত মুখ মামুনুর রশিদ মোল্লা

আপডেটঃ 12:28 am | November 07, 2020

Ad

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ আওয়ামীলীগ পরিবারে জন্ম,আর সেই রাজনীতি এবং আদর্শের আবহে বেড়ে ওঠা। ডিজিটাল বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের কাছে রোল মডেল। আর তরুণ প্রজন্মের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করে যাচ্ছেন অবিরত। এতক্ষণ বলছিলাম যার কথা তিনি হলেন গাজীপুর মহানগরের টঙ্গী থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক, বর্তমান টঙ্গী থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, বর্তমান টঙ্গী পশ্চিম থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী মামুনুর রশিদ মোল্লা। জীবনের একটা বড় অংশ দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠায় আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে বিভিন্ন রকম লড়াই সংগ্রামে ব্যয় করেছেন। আওয়ামী পরিবারের রাজনৈতিক আবহ ও আদর্শ নিয়েই বড় হয়েছেন। এখন বেশ কয়েক বছর ধরে মানব সেবায় কাটাচ্ছেন বেশিরভাগ সময়। স্বেচ্ছাসেবকলীগের একজন কর্মী হিসেবে দেশ গড়ার কাজে সক্রিয়ভাবে কাজ করছেন তিনি। তার সুযোগ্য পরামর্শে পরিচালিত হচ্ছে টঙ্গী পশ্চিম থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের বিভিন্ন ওয়ার্ডের সক্রিয় নেতাকর্মীরা। মামুনুর রশিদ মোল্লা মুজিব আদর্শে টঙ্গী পশ্চিম থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের রাজনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন। দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক শিক্ষাকে কাজে লাগিয়েই বাংলাদেশের রাজনৈতিক মান উন্নয়নে ভূমিকা রেখে চলেছেন তিনি। নতুন প্রজন্মকে রাজনৈতিক সচেতন করে তুলতে তার বিভিন্ন কর্মসূচি স্বেচ্ছাসেবকলীগের জনপ্রিয়তা পেয়েছে। একই সঙ্গে তরুণ প্রজন্মকে রাজনীতিতে করে তুলেছে উজ্জীবিত। এছাড়া, সরকার বিরোধী যেকোনো আন্দোলনে নিজের জীবন বাজি রেখে সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন। ‘বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা: যাত্রা, অর্জন ও চ্যালেঞ্জসমূহ’ বিষয়ে মামুনুর রশিদ মোল্লা বলেন, ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু স্বপরিবারে নিহত হবার পর বেঁচে থাকা বঙ্গবন্ধু কন্যা জন নেত্রী শেখ হাসিনা এবং শেখ রেহানার দিনগুলো ছিলো খুব কঠিন। ১৫ আগস্ট তারা বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান। বঙ্গবন্ধু হত্যার পরের পরিস্থিতির স্মৃতিচারণ করে মামুনুর রশিদ মোল্লা বলেন, বঙ্গবন্ধুর কৃতিত্বের কথা তরুণ প্রজন্মকে জানানোর দায়িত্বটা তারপরও রয়ে গেছে। সে দায়িত্বটা আমাদের। আমরা যারা বঙ্গবন্ধুকে দেখি নাই, তাদেরও দায়িত্ব রয়েছে যারা ৭১-৭৫ দেখেছেন তাদের কাছ থেকে জেনে তরুণ প্রজন্মকে জানানো। বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস মোকাবিলায় শুরু থেকেই প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে, গাজীপুর ২ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ সরকারের যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব জাহিদ আহসান রাসেল এম.পি. ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি পরামর্শে টঙ্গী পশ্চিম থানার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে চলে এলাকার মানুষকে সচেতন করে বেড়িয়েছেন মামুনুর রশিদ মোল্লা। করোনা ঠেকাতে, প্রান্তিক মানুষের সেবা নিশ্চিত করতে ত্রাণ বিতরণ, কোয়ারেন্টাইন বাস্তবায়ন, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে সম্মুখভাগের যোদ্ধা হয়ে স্বেচ্ছাসেবকলীগের একজন আদর্শবান নেতা হিসেবে কাজ করছেন। ইতিমধ্যে তার নিজস্ব অর্থায়নে এলাকার কর্মহীন, অসহায়, দুস্থ ও হতদরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন তিনি। এদিকে মামুনুর রশিদ মোল্লা সম্পর্কে জানতে চাইলে টঙ্গী পশ্চিম থানা আওয়ামীলীগের এক নেতা এই প্রতিবেদককে জানান, মামুনুর রশিদ মোল্লাকে টঙ্গী পশ্চিম থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হলে পূর্বের থেকে শতগুন শক্তিশালী হবে বলে তিনি জানান। এদিকে টঙ্গী পশ্চিম থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী মামুনুর রশিদ মোল্লার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান আমার পরিবারের সকল সদস্যই আওয়ামী পরিবারের রাজনীতির সাথে জড়িত আমিও ছোটকাল থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুঁকে ধারণ করে আওয়ামী রাজনীতিকে ধারন করে আসছি আমি একজন গাজীপুর মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের টঙ্গী পশ্চিম থানার স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী হয়েছি। সিনিয়র নেতারা আমাকে যোগ্য মনে করে সভাপতি নির্বাচিত করলে আমি সভাপতি নির্বাচিত হব, যোগ্য মনে না করলে সভাপতি নির্বাচিত হব না তাই বলে আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে এক বিন্দু পিছ পা হব না।

ব্রেকিং নিউজঃ