| |

নান্দাইলের পুলিশের খাতায় মৃত রবিনকে জীবিত পাওয়া গেছে

আপডেটঃ 9:56 pm | March 21, 2016

Ad

নান্দাইল প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহের নান্দাইলে শিশু রবিন হত্যার অভিযোগে ১৭টি দিন পূর্বে তার বাবাকে পুলিশ গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠালেও শিশুটিকে জীবিত অবস্থায় পাওয়া যাওয়ায় এলাকায় ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে।
জানা গেছে, নান্দাইলের ডাংরী বন্দ এলাকায় ইটভাটার পাশে গত ২৯ ফ্রেব্র“য়ারী ১০/১২ বছরের একটি শিশুর লাশ পড়ে থাকলে নান্দাইল থানা পুিলশ তা উদ্ধার করে। লাশটির দাবীদার না থাকায় এবং সনাক্ত না হওয়ায় পরে অজ্ঞাত হিসেবে দাফন করা হয়। এদিকে, নান্দাইল থানা পুলিশ এই অজ্ঞাত মৃত শিশুটির মামলায় অজ্ঞাত কারণে রবিনের বাবা মোঃ রফিকুল ইসলাম বুলুকে গত ৪ মার্চ গ্রেফতার করে এবং ৬ মার্চ সে ( রবিনের বাবা)  ময়মনসিংহের ৪ নং আমলী আদালতের বিচারক রফিকুল বারীর আদালতে জবানবন্দি গ্রহন করে তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করে।
রবিনের পারিবারিক সূত্র জানায়, গত ৬ ফেব্র“য়ারী রবিনকে অর্থনৈতিক দূরাবস্থার জন্য ঢাকার মিরপুরের একটি বাসার কাজে দেয়া হলে শিশুটির খেলতে দিয়ে ৮ মার্চ বাসার ছাদ থেকে নিচে পরে মারাত্মক আহত হয়। পরে বাসার মালিক অবঃ বিমান বাহিনীর কর্মকর্তা শিশুটিকে ঢাকা সিএমএইচ এ ভর্তি করিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। পরবর্তীতে ২০ মার্চ তাকে (রবিনকে) তার পারিবারিক জিম্মায় ময়মনসিংহের নান্দাইল হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। যে শিশু হত্যায় তার বাবাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে সেই শিশুটিকে জীবিত পাওয়া যাওয়ায় এলাকায় মারাত্মক রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। একই সাথে পুলিশের মামলা নিয়ে দেখা দিয়েছে ধু¤্রজাল।
রবিনের চাচা আব্দুস সালাম বলেন, জীবিত রবিনকে হত্যা করা হয়েছে এমন অভিযোগে তার বাবাকে পুলিশ গ্রেফতার করে জোর পূর্বক স্বীকার উক্তি আদায়ের চেষ্টা করেছে। এমন মিথ্যা মামলায় পুলিশেরও শাস্তি হওয়া উচিত এবং দ্রুত রবিনের বাবা কে জেল থেকে মুক্তি দেয়া কর্তব্য।
এ ব্যাপারে অজ্ঞাত শিশুর লাশটির মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ময়মনসিংহের ডিবি এর এস.আই মনিরুজ্জামান কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিহত শিশুটির পরিবারের প থেকে লাশটি সনাক্ত করা হয়েছে এবং তার বাবা স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দিও প্রদান করেছে, এখন তাকে জীবিত উদ্ধার হওয়ার বিষয়টি আরও তদন্ত করে বলতে হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ