| |

ময়মনসিংহে ৩১ বার তোপ ধ্বনি ও পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যদিয়ে বিনম্র শ্রদ্ধা

আপডেটঃ 7:12 am | March 26, 2016

Ad

মো: মেরাজ উদ্দিন বাপ্পি : সারা দেশের ন্যায় ময়মনসিংহেও মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত হয়েছে। বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় ময়মনসিংহ বিভাগবাসি স্মরন করেছে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। ২৬ মার্চ রাত ১২.০১ মিনিটে ৩১ বার তোপ ধ্বনির মাধ্যমে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়।
২৬ মার্চ শনিবার নগরীর পাটগুদাম ব্রিজ মোড়ে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদনে জনতার ঢল নামে। ফুলে ফুলে ভরে ওঠে স্মৃতিস্তম্ভের বেদি।

1935530_1527341540901088_8598818508629438740_n
প্রথম প্রহর রাত ১২.০১ মিনিটে ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ধর্মমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্বা আলহাজ্ব অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের পুস্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শুরু হয় বীর শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন।

12512344_1527322200903022_8983079342395116572_n
এরপর প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার জি এম সালেহ উদ্দিন, ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজ চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন, জেলা প্রশাসক মোস্তাকিম বিল্লাহ ফারুকি, জেলা পুলিশ সুপার মঈনুল হক প্রমুখ।

26_March_Mymensingh_754707899
এসময় পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আ’লীগের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকা এরপর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন পৌরসভার মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু।
দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি এ কে এম মোশাররফ হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ ওয়াহিদ।

942519_1022012127892171_7309950302866908089_n
এ ছাড়াও বীরশ্রেষ্ঠ পরিবার, মুক্তিযোদ্ধাগণ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এবং সাধারণ জনগণ শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে পুস্পাঞ্জলি অর্পণের মাধ্যমে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
২৬ তারিখ শনিবার সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সব সরকারি-বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় পতাকায় সজ্জিত করা হয়েছে।
২৬ মার্চ উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। জাতির শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মসজিদ, মন্দিরে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হবে। হাসপাতাল, জেলখানা এ ধরনের বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে।
কুচকাওয়াজ, মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা কর্মসূচির মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করবে।

ব্রেকিং নিউজঃ