| |

বঙ্গবন্ধু‘র সংগ্রাম ও কর্মময় জীবনের ধারাবাহিকতার ফলেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন সম্ভব হয়েছে : এড. জহিরুল হক

আপডেটঃ 1:03 am | August 18, 2016

Ad

মো: মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী:
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট ময়মনসিংহ জেলা শাখার উদ্যোগে বুধবার সন্ধায় ময়মনসিংহ রাইফেলস কাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১ তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের প্রশাসক ও জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. জহিরুল হক খোকা। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামীলীগ নেতা ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু, জেলা নাগরিক আন্দোলন ও উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি এড. আনিসুর রহমান। সভায় সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এহতাশামুল আলম।
উক্ত সভায় আলোচক হিসাবে অংশগ্রহন করেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ জেলা শাখার সভাপতি এড. মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, রফিক উদ্দিন ভুইয়া স্বৃতি পরিষদেও সাধারন সম্পাদক এড. উরিদ আহম্মেদ, জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ইউসুফ খান পাঠান, দৈনিক আলোকিত ময়মনসিংহ পত্রিকার সম্পাদক জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি প্রদীপ ভৌমিক, আওয়ামী শিল্পি গোষ্ঠির সভাপতি এড. আবুল কাশেম, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি শাহ সাইফুল আলম পান্নু, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি প্রকৌশলী নাসির উদ্দিন আহম্মেদ, জয়বাংলা সাংস্কৃতিক জোটের সাধারন সম্পাদক আজহার হাবলু, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভানেত্রী আনোয়ারা খাতুন। অনুষ্ঠাটি পরিচালনা করেন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট ময়মনসিংহ জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক মো: সাইফুল ইসলাম দুদু।
জেলা পরিষদের প্রশাসক ও জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. জহিরুল হক খোকা বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন স্বাধীন বাংলার সপ্নদ্রষ্টা। উনার  রাজনৈতিক প্রঞ্জা সংগ্রাম ও কর্মময় জীবনের ধারাবাহিকতার ফলেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন সম্ভব হয়েছে। তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধাদের যুদ্ধকালীন সময়ের প্রেরনা। ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে এ দেশে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির পুর্নবাশন শুরু করে খুনি মুস্তাক ও জিয়া চক্র। যার ফল শ্রুতিতে আজকে বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ উথ্যান হয়েছে। আজকে আমাদেরকে শপথ নিতে হবে এদেশ থেকে মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদকে উৎখাত করার।
বিশেষ অতিথির বক্তবে আওয়ামীলীগ নেতা ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু বলেন, আমরা স্বাধীনতা যুদ্ব দেখিনি কিন্তু হৃদয় দিয়ে অনুভব করতে পারি। ইতিহাস থেকে জানতে পেরেছি বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হত না । তিনি ছিলেন স্বাধীনতা যুদ্বের মহা নায়ক। ৭ ই মার্চের ভাষনে সরোয়ারর্দী উদ্যানে তিনি ঘোষনা করে ছিলেন ‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। আজকে যারা ইতিহাসকে বিকৃত করে জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক বলে তারা অসুস্থ মানসিকতার অধীকারি হীন চরিত্রের রাজনীতিবিদ। আমরা এ প্রজন্মের স্বাধীনতার চেতনায় বিশ্বাসীরা তার কন্য শেখ হাসিনার হাত ধরে ক্ষুধা দারীদ্র মুক্ত অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় ঘোষনা করছি। শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা রেখে সব ভেদাভেদ ভুলে আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের উচিত ঐকবদ্ব ভাবে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ মুক্ত সোনার বাংলা গড়ার কাজে আত্ব নিয়োগ করা।
জেলা নাগরিক আন্দোলন ও উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি এড. আনিসুর রহমান বলেন, ১৫ াাগষ্ট বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর বাংলাদেশ তার চেতনা ভুলে গিয়েছিল। মুক্তিযুদ্বের বাংলাদেশে জয়বাংলা পরিনত হল জিন্দাবাদে। অর্থাৎ আমরা আবার পাকিস্থানী ভাব ধারার দিকে ফিরে গেলাম। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা খমতায় আসার পর আমাদেরকে আবার স্বাধীনতার চেতনার দিকে ফিরিয়ে এনেছে। তাই তাকে জীবন দিয়ে হলেও বাচিঁয়ে রাখতে হবে।

ছবি: রেড মিল্লাত

ব্রেকিং নিউজঃ