| |

আমি বাড়ী ছেড়ে ইন্ডিয়া যামুনা স্বামীর ভিডায় মরমু তবু দেশ ছাড়মু না

আপডেটঃ 12:51 am | August 23, 2016

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক: পৈশাচিক হামলা ও তান্ডব চালিয়ে তারাকান্দা উপজেলার কাকনী ইউনিয়নের এক অসহায় হিন্দু পরিবারকে গ্রাম ছাড়া করে ভারত পাঠিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে বাড়ীতে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারার গভীর ষড়যন্ত্র করা হয়েছে বলে জানাগেছে। অসহায় পরিবারের আর্তচিৎকারে এলাকার পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে। ঘটনার সংবাদ পেয়ে উপজেলা প্রশাসন সহ পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
জানাগেছে, ৩নং কাকনী ইউনিয়নের গোয়াতলার আছর আলীর পুত্র আইয়ুব আলী, শাহজাহান, মোখছেদুল, নূরুল ইসলামের পুত্র শফিকুল ইসলাম ওরফে শম্ভু, হাটপাড়ার সঞ্জিত আলীর পুত্র রাসেল মিয়া, তারাকান্দার দাদরা গ্রামের মৃত জমির উদ্দিনের পুত্র ছেইছিয়া প্রমূখ দীর্ঘদিন যাবৎ টাকা পয়সা নিয়ে তারাকান্দা উপজেলার হাটপাড়া গ্রামের মৃত সুরেশ চন্দ্র পালের সন্তান পরেশ চন্দ্র পালের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। পরেশ চন্দ্র পাল মাটির হাড়ি পাতিল তৈরি করে বাজারে বিক্রি করত এবং এটাই ছিল জীবিকা নির্বাহের একমাত্র মাধ্যম। বিবাদী আইয়ুব আলী গং প্রায় সময়ই পরেশকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের হুমকি দিত এবং নানা প্রকার ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আসছিল। ঘটনার দিন গত ২০ আগস্ট আনুমানিক আড়াইটার দিকে হাটপাড়া পরেশের ঘরের বারান্দায় আগুন লাগিয়ে দেয়। এই সময় মৃত সুরেশ চন্দ্র পালের স্ত্রী রজবালা পাল (৭০) ও পরেশের স্ত্রী আরতি বালা পাল (৪০) ঘটনা টের পেয়ে চিৎকার শুরু করলে বাদী আইয়ুব গং দ্রুত আগুন লাগিয়ে স্থান ত্যাগ করে। আগুনে এই সময় পরেশের ঘরের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পুড়ে ছাই হয়ে যায় এবং ৩৫০০০/-(পয়ত্রিশ হাজার) টাকার তি সাধন করে। ঘটনার পরবর্তীতে পরেশ সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানসহ একাধিক মেম্বার ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদেরকে ঘটনা অভহিত করেন। ঘটনার সংবাদ পেয়ে ২১ আগস্ট দুপুরে তারাকান্দা উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন তালুকদার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার শের মাহামুদ মুরাদ, তারাকান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মাজাহারুল হক, ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান রিপন সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ পরেশ চন্দ্র পালের তিগ্রস্থ বাড়িঘর পরিদর্শন করেন। জানা গেছে পরেশ স্থানীয় এলাকার অত্যান্ত নিরীহ ব্যক্তি। স্থানীয় বাসী ধারনা করছেন জমিসহ বাড়িঘর দখলের জন্য এই অশুভ পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে এবং দীর্ঘদিন যাবৎ এই অপতৎপরতা অব্যাহত আছে। নিরীহ পরেশ চন্দ্র পাল দখলবাজ এবং আগুন লাগানোর ঘটনাকে তার ভূমি ও বাড়ি ঘ্রাস করাসহ পরেশ ও তার পরিবারের সকলকে জীবন নাশের জন্যই এই পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে ১৩ আগস্ট ষড়যন্ত্রকারীরা পরেশের বাড়ি থেকে প্রায় ২০০ গজ পূর্বে হাড়িপাতিল রাখার ঘরে প্রবেশ করে ব্যাপক ভংচুর চালায় এবং আগুন দেয়। ঘটনার বিবরন বর্ননা করতে গিয়ে মৃত সুরেশ চন্দ্র পালের স্ত্রী রজবালা পাল (৭০) ও পরেশের স্ত্রী আরতি বালা পাল (৪০) বারবার কান্নায় ভেঙ্গে পরে। উপস্থিত উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন তালুকদারের পা জড়িয়ে ধরে এর সুষ্ঠু বিচার দাবী করে কান্নায় ভেঙ্গে পরে অসহায় রজবালা পাল। উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তাদের সান্তনা দেন ও সুষ্ঠু বিচারের আস্বাস প্রদান করেন। এসময় মৃত সুরেশের স্ত্রী রজবালা পাল কান্না জড়িত কন্ঠে চিৎকার করে বলতে থাকেন আমি বাড়ী ছেড়ে ইন্ডিয়া যামুনা। স্বামীর ভিডায় মরমু। তবু দেশ ছাড়মু না। উল্লেখ থাকে যে, অভিযুক্তরা দীর্ঘদিন যাবৎ টাকার পরিবর্তে বাড়ী ভিটা তাদের নামে লিখে দিয়ে ভারত চলে যাওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছিল।
এ ব্যাপারে পরেশ ২১ আগস্ট তারাকান্দা থানায় আইয়ুব গংদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করেন। এ ব্যাপারে তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: মাঝহারুল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে তারাকান্দা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের প্রেফতারের জন্য সর্বাত্বক চেষ্টা  চালানো হচ্ছে।

ব্রেকিং নিউজঃ