| |

১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ

আপডেটঃ 1:30 am | October 03, 2016

Ad

স্টাফ রিপোর্টার: মা ইলিশ সংরক্ষণের অংশ হিসেবে আগামী ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত প্রধান প্রজনন মৌসুমে মোট ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সরকার।

রোববার (০২ অক্টোবর) সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে ‘মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান’ সংক্রান্ত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভার শুরুতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক সাংবাদিকদের জানান, প্রধান প্রজনন মৌসুমে ‘মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান’র আওতায় ইলিশ প্রজনন ক্ষেত্র হিসেবে চিহ্নিত প্রায় সাত হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকাসহ সারাদেশ ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করে সরকার আইন জারি করেছে।

মীরসরাই উপজেলার শাহের খালী হতে হাইতকান্দি পয়েন্ট, তজুমুদ্দিন উপজেলার উত্তর তজুমুদ্দিন হতে পশ্চিম সৈয়দ আওলিয়া পয়েন্ট, কলাপাড়া উপজেলার লতা চাপালি পয়েন্ট এবং কুতুবদিয়া হতে গণ্ডামারা পয়েন্ট প্রধান প্রজনন ক্ষেত্র।

মন্ত্রী বলেন, ইলিশ প্রজনন ক্ষেত্রসহ প্রধান প্রজনন মৌসুমের ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ থাকবে। প্রধান প্রজনন মৌসুমে চিহ্নিত প্রজনন ক্ষেত্রে ডিমওয়ালা ইলিশসহ সব প্রকার মাছ ধরা বন্ধের মাধ্যমে ইলিশ রক্ষায় গণসচেতনতা সৃষ্টি করাই এর উদ্দেশ্য।

প্রজনন ক্ষেত্র ছাড়াও ২৭ জেলায় মাছ ধরা বন্ধের কার্যক্রম বাস্তবায়িত হবে বলে জানান মন্ত্রী।

ইলিশের নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, শরীয়তপুর, ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া, ঢাকা, মাদারীপুর, ফরিদপুর, রাজবাড়ি, জামালপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, খুলনা, কুষ্টিয়া এবং রাজশাহী জেলার সব নদীতে ইলিশ ধরা বদ্ধ থাকবে। একইসঙ্গে সমুদ্র উপকূল এবং মোহনায় ইলিশ ধরা যাবে না।

প্রজনন মৌসুমে প্রজনন ক্ষেত্রের পাশাপাশি দেশব্যাপী ইলিশ আহরণ, বিপণন, ক্রয়-বিক্রয়, পরিবহন, মজুদ ও বিনিময় নিষিদ্ধ এবং দেশের মাছঘাট, মৎস্য আড়ৎ, হাটবাজার, চেইনশপে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় ব্যাপক অভিযান পরিচালনা করা হবে।

প্রজনন মৌসুমে জেলেদের পুর্নবাসনের জন্য দুযোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে ২০ হাজার মেট্রিকটন চালের জন্য প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

চলতি বছরে গত ১৫-২০ বছরের মধ্যে সব থেকে বেশি ইলিশ বাজারে পাওয়া যাওয়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ইলিশ ধরা নিষিদ্ধের সময় বৃদ্ধি এবং বঙ্গোপসাগরে সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার কারণে ইলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন অলিগলিতে ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে।

সরকারের কিছু জরুরি ও কঠিন পদক্ষেপের ফলে ইলিশের ছড়াছড়ি জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আগে নিষিদ্ধ ছিল ১১ দিন। পরে বাড়িয়ে ১৫ দিন এবং বর্তমানে তা ২২ দিন করা হয়েছে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব মাকসুদুল হাসান খান, মৎস্য অধিদপ্তর এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীল সদস্যরা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

ব্রেকিং নিউজঃ