| |

ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগ নেতার সাথে হাসপাতালের পরিচালক ও মেডিকেল কলেজ অধ্যক্ষের মত বিনিময়

আপডেটঃ 12:24 am | October 27, 2016

Ad

মো: মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী : ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের ৪ ছাত্রকে বহিরাগতরা লাঞ্ছিত ও মারধরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগ নেতারা দফায় দফায় হাসপাতালের পরিচালক ও মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের সাথে মত বিনিময় করেছে।
বুধবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামুল আলম, মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ইউসুফ খান পাঠান, মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি প্রদীপ ভৌমিক, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: রকিবুল ইসলাম রকিব হাসপাতালে তুষার দেব, জোবায়ের হোসেন, সৌরভ, এনামুল হোসেনকে দেখতে গেলে এক হৃদয় বিদারক ঘটনার অবতারণা হয় নির্যাতিত ছাত্রদের পরিবার ও বন্ধুদের কান্নায় ভারি হয়ে উঠে পরিবেশ।
এসময় উপস্থিত ছিলেন ড. মনিরুজ্জামান ভুঞা শামীম, ড. আ ন ম ফজলুল হক পাঠান, ড. তারা গোলন্দাজ, ড. মোস্তফা কামাল, ড. পাঠান, ১৫নং ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি আলহাজ্ব জালাল প্রমুখ।
এর পর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামুল আলম নেতা কর্মীদের নিয়ে হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দিন আহমেদ ও মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. শঙ্কর নারায়ণ দাসের কাছে আহত ছাত্রদের উপর হামলাকারী সন্ত্রাসী দের বিরুদ্ধে অতিদ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন সহ শাস্তির দাবী জানান এবং আহত ছাত্রদের উন্নত চিকিৎসা প্রদানের অনুরোধ জানান।
মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামুল আলম বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বাংলাদেশকে সন্ত্রাস ও জঙ্গী মুক্ত করতে হবে। তাই ময়মনসিংহ মহানগরের সভাপতি হিসাবে আমি বলতে চাই মহানগরকে অবশ্যই সন্ত্রাস মুক্ত করব। সন্ত্রাসী যে দলের হোক তাকে ক্ষমা করা হবে না। ময়মনসিংহ মহানগরে সন্ত্রাসীদের প্রশ্রয় দেয়া হবে না। তিনি আরও বলেন, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে যারা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড গঠিয়েছে তাদেরকে আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে। তিনি বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দিন আহমেদ ও কলেজের অধ্যক্ষ ডা. শঙ্কর নারায়ণ দাসকে উদ্যেশ্য করে বলেন অবিলম্বে সন্ত্রাসী দের বিরুদ্ধে অতিদ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করুন। অন্যথায় মহানগর আওয়ামীলীগ এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে।
জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: রকিবুল ইসলাম রকিব বলেন, আগামী রবিবারের ভিতর সন্ত্রাসী দেবাশিষ মন্ডল সহ বহিরাগতদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন করা না হলে জেলা ছাত্রলীগ এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করবে। প্রয়োজনে সাধারন ছাত্ররা কলেজ সহ সমস্থ প্রশাসনিক কর্মকান্ড বন্ধ করে দিবে।
হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দিন আহমেদ বলেন, দোষিদের বিরুদ্ধে অতি সত্বর ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে। তিনি বলেন, হাসপাতাল চত্তর থেকে বি এম এ অফিস বন্ধ করে দেয়া হবে। এ জন্য মেডিকেল কলেজ অধ্যক্ষ ডা. শঙ্কর নারায়ণ দাসের সহযোগীতা প্রয়োজন। তিনি সহযোগীতা করলে দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন করা সহজ হবে।
মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. শঙ্কর নারায়ণ দাস বলেন, উদ্ধুত পরিস্থিতি তদন্ত করার জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির রিপোর্টে যাদেরকে এ সন্ত্রাসী ঘটনার জন্য দায়ি করা হবে তাদের বিরুদ্ধে আইন গত ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে। যদি দোষি সাব্যস্থ না হয় তবে কি ব্যবস্থা নিবেন এ প্রশ্ন করা হলে তিনি উত্তর টি এড়িয়ে যান। আর  এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন হাসপাতাল কম্পাউন্ডে ঘটনাটি ঘটেছে তাই হাসপাতালের পরিচালক একাই ব্যাবস্থা নিতে পারেন। আমার সহযোগীতার প্রয়োজন নেই।
মহানগরের নেতৃবৃন্দ যখন হাসপাতাল ও মেডিকেল কম্পাউন্ডে পৌছেন তখন সাধারন ছাত্ররা সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করে।

ব্রেকিং নিউজঃ