| |

বীন ও গোয়ালা সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের সাথে আলাপকালে প্রদীপ ভৌমিক আমরাও ময়মনসিংহ বিভাগের উন্নয়ন চাই তবে কাউকে গৃহহীন করে নয়

আপডেটঃ 12:47 am | November 09, 2016

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ গতকাল দৈনিক আলোকিত ময়মনসিংহ পত্রিকার কার্যালয়ে মহানগর পুজা উদযাপন পরিষদের আহবায়ক ও দৈনিক আলোকিত ময়মনসিংহ পত্রিকার সম্পাদক প্রদীপ ভৌমিক এর সাথে জয়নুল আবেদীন পার্কের ব্রম্মপুত্র নদের অপর পারের বীন ও গোয়ালা সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা সাক্ষাৎ করেন। তারা তাদের অধিকৃত জমি সরকারের অধিগ্রহনের পুর্বে তাদের বাসস্থানের জন্য জমি বরাদ্দ করে বিভাগের উন্নয়নের জন্য জমি অধিগ্রহন করার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে দাবী উথ্যাপন করার জন্য মহানগর পুজা উদযাপন পরিষদের আহবায়ককে অনুরোধ জানান। তারা আরো জানান, আমরা বীন ও গোয়ালা সম্পদায় এবং আমাদের সাথে বসবাসকারী মুসলিম ভাইদের সাথে শান্তিপুর্ন ভাবে দীর্ঘদিন যাবৎ অবস্থান করছি। আমাদের বীন পাড়ায় রয়েছে ইসকন মন্দির ও স্থায়ী ভাবে নির্মিত দুর্গা মন্দির। মুসলমান ভাইদের জন্য রয়েছে একটি মসজিদ। যেখানে আমরা স্বস্ব ধর্মের প্রার্থনা নিয়মিত করে আসছি। তারা অধিগ্রহনের পুর্ব অভিজ্ঞতা বর্ননা করে বলেন ময়মনসিংহ পৌরসভার স্টেডিয়াম ও পুলিশ লাইন এলাকায় আমাদের পুর্বে বাসস্থান ছিল। শুধু পুলিশ লাইন নয় পানি উন্নয়ন বোর্ড সহ শহরের অন্যান জায়গায়ও আমাদের পুর্ব পুরুষদের বাসস্থান ছিল। আমাদের সেই অধিকৃত জমির টাকা অধ্যাবদি পাইনি। পুলিশ লাইন ও স্টেডিয়াম নির্মানের জন্য জায়গা অধিগ্রহনের পর আমরা ব্রম্মপুত্র নদের চরে আমাদের পুর্বপুরুষদের ক্রয়কৃত জমিতে বসবাস করছি। আমাদের আর কোথাও একটুকু জায়গা নেই। এখন এই শেষ সম্বলটুকু যদি হাত ছাড়া হয়ে যায় তাহলে আমরা থাকব কোথায়। সরকার জমি অধিগ্রহনের জন্য যে টাকা দিবে তা দিয়ে বর্তমানে বাসস্থানের জন্য জমি কেনা সম্বব নয়। তারা আরো উল্লেখ করেন আমরা অতি দরিদ্র আমাদের বাড়ী সংলগ্ন কিছু জমিতে সবজী চাষ করে জয়নুল আবেদীন পার্কে এনে বিক্রি করতাম। গাভী পালন করে দুধ বিক্রি করতাম। আমাদের সবজী ও দুধ বিক্রি করার মত আর কোন জায়গা নেই। পৌরসভার অন্যান বাজারে আমাদের উৎপাদিত সবজী ও দুধ বিক্রি করতে গেলে সেই সমস্থ বাজারের আগের দোকানদাররা বিক্রি করতে দেয় না। আমরা এখন অর্ধাহারে অনাহারে ছেলে মেয়ে ও পরিবারের অন্যান সদস্যদের নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি। ৮০ বৎসর বয়সের একজন বীন সম্পদায়ের সদস্য হাউ মাউ করে কেদে উঠে বলেন, সরকারকে বলুন আমাদেরকে গুলি করে মেরে ফেলতে। নয়ত আমরাই আতœহত্যা করব। এসময় উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ সংবাদপত্র শিল্প মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক  আ ন ম ফারুক । তিনি বীন সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের কান্না দেখে আবেগে কেদে ফেলেন। বীন সম্প্রদায়ের এক তরুন বলেন, আমরা মেয়র টিটুকে ভালবাসি, উনি আমাদের সুখ দু:খের সাথী। আমি আনন্দ মোহন কলেজে পরেছি। বর্তমান আওয়ামীলীগের মহানগরের সভাপতি আলম ভাই, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোয়াজ্জেম ভাইদের সাথে ছাত্রলীগ করেছি। মিছিল মিটিংএ অংশ গ্রহন করেছি। শুনেছি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট জহিরুল হক খোকা সাহেব খুব ভাল লোক। উনারা আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে আছেন। আমরা সব সময় উনাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারি না। আমাদের দু:খ গুলো উনাদের কাছে বলতে পারি না। দাদা, যেহেতু আপনিও আওয়ামীলীগ করেন আমাদের দাবী গুলো উনাদের কাছে বলবেন। উনারা যেন আমাদের দাবী গুলো সহানুভুতির সহিত বিবেচনা করেন।
ময়মনসিংহ মহানগর পুজা উদযাপন পরিষদের আহবায়ক প্রদীপ ভৌমিক বলেন, আমি পুজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব উত্তম চক্রবর্তী রকেট সহ অপরাপর নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ করে প্রশাসন ও আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের কাছে আপনাদের দাবী গুলো জানাব এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য অনুরোধ করব। বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, ধর্মমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, ময়মনসিংহ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি আমিনুল হক শামীম, ময়মনসিংহ বিভাগ আন্দোলনের নেতা এডভোকেট আনিসুর রহমান ও সাধারন সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার নুরুল আমিন কালামকে আপনাদের দাবী অনুযায়ী আপনাদের বাসস্থানের জায়গার ব্যবস্থা করে দিয়ে যেন আপনাদের জমি সরকার অধিগ্রহন করে সে ব্যাপারে কার্যকর ব্যাবস্থা গ্রহন করার জন্য অনুরোধ করব। প্রশাসনের সাথে কথা বলব। আমার সংগঠন আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বলব। আমার বিশ্বাস মানবিক দিক বিবেচনা করে তারা আপনাদের পাশে থাকবে। ভয় পাওয়ার কিছু নেই। মনে রাখবেন আমাদের নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা অসাম্প্রদায়িক ও মানবিক চেতনার ধারক। আমাদের উনার উপর ভরসা আছে। সর্বশেষ তিনিই আমাদের আশ্রয়স্থল। প্রয়োজনে আপনাদের দাবী নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করব। আমি আপনাদের হয়ে সর্ব প্রথম প্রশাসন, সমাজের বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ, আমার প্রিয় দল আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দকে অনুরোধ করব, উনারা যেন আগে আপনাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করে দিয়ে পরে যেন আপনাদের জমি অধিগ্রহন করে। আমরাও ময়মনসিংহ বিভাগের উন্নয়ন চাই তবে কাউকে গৃহহীন করে নয়।

ব্রেকিং নিউজঃ