| |

ঈশানার চমক…

আপডেটঃ 10:02 pm | December 03, 2016

Ad

বিনোদন: বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে পরিচিতি থাকলেও এ মুহূর্তে নাটকেই বেশি সরব মৌনিতা খান ঈশানা। বর্তমানে বেশ কিছু ধারাবাহিকে নিয়মিত অভিনয় করছেন তিনি। বিভিন্ন চ্যানেলে সেগুলো প্রচার হচ্ছে। ধারাবাহিকগুলোর মধ্যে রয়েছে- ‘হাই সোসাইটি’, ‘খেলাঘর’, ‘শান্তি অধিদপ্তর’, ‘তুমি আসবে বলে’, ‘এক পা দু পা’, ‘নোয়াশাল’ ইত্যাদি। ধারাবাহিকের পাশাপাশি খ- নাটকেও নিয়মিত ঈশানা। এদিকে সম্প্রতি প্রায় এক মাসের মতো সময় কাটিয়ে ভারত থেকে ফিরেছেন এ পর্দাকন্যা। অবশ্য এটা কোনো ব্যক্তিগত সফর ছিল না। ভারতীয় একটি টিভি চ্যানেলে শো-র কাজ করার জন্য সেখানে গিয়েছিলেন এ অভিনেত্রী। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে চাইলে মুখ খোলেননি ঈশানা। তিনি বলেন, একটি বড় শো-তে অংশ নিতে গিয়েছিলাম ভারতে। তবে এখনই কিছু বলা যাবে না। বিষয়টি আপাতত গোপন থাক। তা না হলে চমক নষ্ট হয়ে যাবে। অভিনয়ের আগে একসময় বিজ্ঞাপনেই তার বেশি উপস্থিতি লক্ষ্য করা যেত। এখন সে তুলনায় কাজ কমিয়ে দিয়েছেন। তবে এক বছর পর আবারও বিজ্ঞাপনে ফিরেছেন ঈশানা। কিছুদিন আগে দিদারুল আলম স¤্রাটের নির্দেশনায় একটি বহুজাতিক কোম্পানির কুকওয়্যার পণ্যের মডেল হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। এর আগে গত বছর কাজ শেষ করা গোদরেজ হেয়ার কালারের বিজ্ঞাপনে দেখা গেছে তাকে। এতে তার সহশিল্পী ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এ সময়ের ব্যস্ততা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এখন ধারাবাহিকের কাজ বেশি চলছে। তবে এর সঙ্গে খ- নাটকেও কাজ করছি। যা সংখ্যায় কম। আসলে খ- নাটক তো বিশেষ দিবস ছাড়া সেভাবে নির্মাণ হয় না। তবে খ- নাটক কিংবা ধারাবাহিকের মধ্যে বিশেষ পছন্দের জায়গা তো অবশ্যই আছে। সেক্ষেত্রে খ- নাটকেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন ঈশানা। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, একজন অভিনেত্রী হিসেবে আমাকে দুই ধরনের নাটকেই অভিনয় করতে হয়। আর দুই ক্ষেত্রের কাজতো একটাই। সেটা হলো অভিনয়। তাই এটাকে আলাদা করে দেখার কোনো সুযোগ নেই। আমার কাছে খ- নাটক হলো প্যাশন। আর ধারাবাহিক হলো পেশা। খ- নাটকে ত্বরিত রেসপন্স পাওয়া যায়। আর ধারাবাহিকের গল্প এক জায়গায় থাকে না। প্রথম দিকে ভালো রেসপন্স থাকলেও পরে কোথায় যেন গল্প হারিয়ে যায়। আমার মনে হয় বাজেটের কারণেই এমনটা হচ্ছে। দর্শক ধারাবাহিক নাটক এখন দেখতে চান না। গল্প ভালো হলেও দেখা যায়, তাদের গন্তব্য ভারতীয় চ্যানেলের দিকে। তাই বলে আমাদের মেকিং খারাপ হচ্ছে বা নিজেদের দুর্বলতা রয়েছে সেটা না। সবচেয়ে বড় ঘাটতি হলো বাজেট। এ সমস্যা দূর হলেই নাটকে সুদিন ফিরে আসবে বলে আমি বিশ্বাস করি। অভিনয় করতে গিয়ে অনেক শিল্পীকেই নানা রকম ঝামেলা পোহাতে হয়। সেটা হতে পারে আইনি ঝামেলাও। চলতি বছরের শুরুর দিকে ঈশানাও তেমন এক ঝামেলায় পড়েছিলেন। প্রযোজক মারুফ খান প্রেমের করা এক কোটি টাকার মানহানির মামলা তাকে অনেকটা বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্যেই ফেলে দিয়েছে। তবে পুরো এক বছর আইনি লড়াই শেষে সম্প্রতি আদালত থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন ঈশানা। তিনি বলেন, এ মামলাটি আমাকে খুব ভুগিয়েছে। বিশেষ করে আমার পরিবারের সদস্যরা বেশি কষ্ট দিয়েছে। অবশেষে আদালত আমার পক্ষেই রায় দিয়েছেন। এ কারণে আমি সত্যিই খুব আনন্দিত।

ব্রেকিং নিউজঃ