| |

জনপ্রতিনিধিদের জমিদার হলে চলবে না মরহুম শাকিলের স্মরণসভায় সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

আপডেটঃ 2:05 am | January 21, 2017

Ad

মো: মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী : জনপ্রতিনিধিদের জমিদার হলে চলবে না। জনগনের সেবক হতে হবে। ক্ষমতায় এসে ক্ষমতা দেখালে জনগন তার জবাব দিয়ে দিবে। মৌসুমী পাখিরা সংশোধন হোন নয়ত আওয়ামীলীগে থাকার দরকার নাই বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

ময়মনসিংহ আওয়ামীলীগ নেতাদের ইঙ্গিত দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এতদিন পর্যন্ত ময়মনসিংহের ত্যাগী আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা নির্যাতিত ছিল। এখন সময়  এসেছে ত্যাগী কর্মীদের মুল্যায়ন করার। তারাতারি পুর্নাঙ্গ কমিটি পাঠান। কোন পকেট কমিটি হবে না।

শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) বিকেলে ময়মনসিংহ সার্কিট হাউস মাঠে ময়মনসিংহ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের আয়োজনে মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামুল আলম এর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারি (মিডিয়া) ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মরহুম মাহবুবুল হক শাকিলের স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের একথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, কর্মদিয়ে জনগনের কাছে বড় হতে হবে। চেহারা দেখিয়ে নয়। কর্মীদেরকে নেতাদের কথা শোনতে হবে। কেউ নেতা নেতা ভাব দেখালে নেতা হওয়া যায়না। ক্ষমতায় আছেন, ক্ষমতা চলে গেলে বুঝবেন।

বিএনপিকে ‘মরা গাঙ’ হিসেবে আখ্যা দিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক ও সেতু পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির মরা গাঙে জোয়ার আসে না বলেই দলটি এখন আর আন্দোলন করতে পারছে না। ‘এই বছর না ওই বছর আন্দোলন হবে কোন বছর’ এমন ছন্দে বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, বিএনপির আন্দোলনের হুমকিতে বিচলিত হওয়ার কিছু নেই। বিএনপি এখন বাংলাদেশ নালিশ পার্টিতে পরিণত হয়েছে। বিএনপির এক নেতা আরেক নেতাকে বিশ্বাস করে না। এক নেতা আরেক নেতাকে সরকারের দালাল বলে।

ময়মনসিংহে সব আছে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক রফিক উদ্দিন ভুইয়া, সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান, এম শামসুল হকের পুন্যভুমি ময়মনসিংহে রয়েছে আন্দোলনের অনেক ইতিহাস। সংগ্রামের জেলা ময়মনসিংহ।

তিনি বলেন, ময়মনসিংহে শাকিলের শোকসভা জনসভায় পরিনত হয়েছে। শোকসভা জনসভায় পরিনত হয় এটি প্রথম দেখলাম। বিশাল জনসভার ঢল বাঁধভাঙ্গা জোয়ারে পরিনত হয়েছে। এরকম বাঁধভাঙ্গা জোয়ার আগে কখনো দেখিনি। তিনি বলেন, তোরনের ছবি মুছে যাবে, ফুলের মালা ছিড়ে যাবে, পাথরের লেখা মুছে যাবে, কিন্তু হৃদয়ের ভালবাসা রয়ে যাবে চিরদিন।

তিনি বলেন, ভালবাসার মুর্তমান প্রতিক শাকিল। শাকিল জাদরেল কোন নেতা ছিলেন না, আওয়ামীলীগ সদস্য ছিলেন না, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী তার জন্য মানুষের এত ভালবাসা দেখে অভিভুত হয়েছি।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবাদুল কাদের বলেন, আতি নেতা, পাতি নেতা, আদুলি নেতা আর সিকি নেতায় দল ভরে গেছে। কর্মীর চেয়ে এখন নেতাই বেশি হয়ে গেছে। আওয়ামী লীগ এখন নেতা তৈরির কারখানায় পরিণত হয়েছে। চেহারা দেখিয়ে নয়। দলের শৃঙ্খলা আনতে হবে।

তিনি বলেন, একজন রাজনৈতিক নেতার জন্য ভালবাসা ছাড়া আর কিছু নেই। ওবায়দুল কাদের বলেন, ২০ বছর পুর্বে শাকিলের পরিবারের যেমন ছিল বর্তমানেও তেমনই আছে। তার ক্ষমতা ছিল মন্ত্রীদের চেয়ে বেশি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য লিখে দিতেন। শাকিলের মৃত্যুতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শাকিলের মৃত্যুতে তার পিতা মাতার চেয়ে কম কষ্ট পাননি দেশরতœ শেখ হাসিনা।

ধর্মমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব অধ্যক্ষ মতিউর রহমান স্বরন সভার প্রধান বক্তার বক্তব্য বলেন, পিতার কাঁেধ সন্তানের লাশ। এ কেমন যন্ত্রনা এটি জহিরুল হক সাহেবের মত আমিও ভুক্তভুগি। মীর্জা আজম এমপির বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ধর্মমন্ত্রী বলেন, এলাকার জনগন বাইপাস মোড় আমার নামে করার প্রস্তাব করে ছিল। যদি শাকিলের নামে হয় তাহলে আমার কোন আপত্তি নেই।

ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল ও মহয়মনসিংহ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্তর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেজবাহ উদ্দিন সিরাজ, সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মীর্জা আজম এমপি, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মারুফা আক্তার পপি, উপাধক্ষ্য রেমন্ড আরেং, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, আলহাজ এড.মোসলেম উদ্দিন এমপি, ডা: এম আমানউল্লাহ এমপি, বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহম্মেদ এমপি, শরীফ আহমেদ এমপি, ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল এমপি, আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন এমপি, জুয়েল আরেং এমপি, জেলা যুবলীগের আহবায়ক এডভোকেট আজহারুল ইসলাম, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি এডভোকেট এবিএম নুরুজ্জামান খোকন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: রকিবুল ইসলাম রকিব প্রমুখ।

এসময় প্রয়াত শাকিলের পিতা ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট জহিরুল হক খোকা, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আব্দুছ ছাত্তার, মুক্তাগাছার সাবেক এমপি কে এম খালিদ বাবু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ব্রেকিং নিউজঃ