| |

ত্রিশালে মুক্তিযোদ্বাদের হেলথ কার্ড সকল কমিউনিটি ক্লিনিক ও হাসপাতালে বিশেষ সেবা প্রদান

আপডেটঃ 9:12 pm | February 07, 2017

Ad

ফয়জুর রহমান ফরহাদ ॥ জাতির শ্রেষ্ট সন্তান বীরমুক্তিযোদ্ধা,কমিউনিটি ক্লিনিক করবে স্বাস্থ সুরক্ষা এ শ্লোগানকে সামনে রেখে বাংলাদেশে এই প্রথম ময়মনসিংহের ত্রিশালে বীর মুক্তিযোদ্বাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার জন্য উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে নজরুল একাডেমী মাঠে ৩৫০ জন মুক্তিযোদ্বাদের মাঝে হেলথ কার্ড বিতরন করা হয়। এ কার্ডের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাগন সকল কমিউনিটি ক্লিনিকে সাপ্তহিক ডাক্তারদের সাক্ষাৎকার ও উপজেলা স্বাস্থ কমম্লেক্ষে ও ক্লিনিকে বিনামুল্যে তাদের পরীক্ষা নিরিক্ষা করতে পারবে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে এ সেবার উদ্বোধন করেন ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনান  জি এম সালেহ উদ্দিন । হেলথ কার্ড  বিতরনী ও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক নূরুল আলম,জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও সাবেক এম পি আব্দুল মতিন সরকার,জেলা সিভিল সার্জন ডা. খলিলুর রহমান,উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন,ত্রিশাল পৌরসভার মেয়র এ বি এম আনিছুজ্জামান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুন্নেছা বিউটি, মুক্তিযোদ্বা সংসদের কমান্ডার নাজিম উদ্দিন সরকার।স্বাগত বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্বাদের হেলথ কার্ডের উদ্যোগতা উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা আবুজাফর রিপন।মুক্তিযোদ্বাদের মাঝে অনুভতি ব্যক্ত করেন বীর মুক্তিযোদ্বা নুরুল ইসলাম মোমেন,গাজী রজব আলী,মুজাহিদ খান ভুলা,নূরুল আমীন কালাম। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার জিএম সালেহ উদ্দিন বলেন মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ট সন্তান। তাদের ত্যাগ আর বিসজর্নের মাধ্যমেই আমরা স্বাধীন পতাকা পেয়েছি। তাদের সম্মান ও সেবা নিশ্চিত করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।  বর্তমান সরকার জন সেবাকে জনগনের কাছে পৌছার  জন্য কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করেন। প্রত্যন্ত অঞ্চলে এ সেবা পৌছে দেয়া হয়েছে। এখান থেকে যেন মুক্তিযোদ্ধারা তাদের শেষ জীবনে সেবা পেতে পারে তারই ধারাবাহিকতায় মুক্তিযোদ্বাদের বিনামূল্যে  চিকিৎিসার জন্য হেলথ কার্ড প্রদান করা হলো। সু স্বাস্থ্যের জন্য  হেলথ কার্ড বিতরনী ত্রিশালেই  প্রথম উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে । তার কার্যক্রমের সুফল পেলে   ময়মনসিংহের বিভাগের সকল উপজেলায় এ কার্যক্রম পর্যায়ক্রমে  শুরু হবে। মুক্তিযোদ্বারা  তাদের জন্য প্রধান অতিথির নিকট এ্যাম্বুলেন্স দাবী করেন  অনুষ্টানের আয়োজক ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন বলেন জাতির শ্রেষ্ট সন্তানদের শেষ বয়সে চিকিৎসা সেবা পেতে যাতে কোন ধরনের হয়রানি পেতে না হয় সে জন্য এ কার্ড চালু করা হয়েছে। এ কার্ডের মাধ্যমে তাদের ঔষধ, চিকিৎসা ও পরীক্ষা নিরিক্ষা বিনামুল্যে করতে পারবে। ত্রিশাল উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নাজিম উদ্দিন বলেন, ত্রিশাল উপজেলা প্রশাস আমাদের জন্য যা করেছে আমরা গর্বিত। শেষ বয়সে চিকিৎসা সেবা পেতে আমাদের অনেক হয়রানীর শিকার হতে হয়। এ থেকে পরিত্রানের জন্য যারা এ উদ্যোগ গ্রহন করেছে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি।

ব্রেকিং নিউজঃ