| |

করোনা দুর্যোগের আজকের এ দুঃসময়ে মেয়র টিটুকে পেয়ে নগরবাসীর প্রশংসা

এপ্রিল ০১, ২০২০

মো. মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী, ময়মনসিংহঃ করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সারা দেশের মত ময়মনসিংহেও চলছে অঘোষিত লকডাউন। সরকারি নির্দেশনা মেনে নিজ ঘরে অবস্থান করছে মানুষ। পাশাপাশি বন্ধ রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যানবাহন চলাচল। এতে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন দিনমজুর, শ্রমিক, রিকশাচালকসহ দুস্থ ও অসহায় পরিবারের সদস্যরা। এর ফলে খাদ্য সংকটও দেখা দিয়েছে তাদের। এ অবস্থায় তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু। সচেতনতামূলক লিফলেট, সাবান, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, দোকানের সামনে সাদা রঙের এই বৃত্ত এঁকে দিচ্ছন এবং নগরীর সকল সড়কে নিয়মিত জীবানুনাশক মিশ্রিত পানি দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় প্রাণঘাতি বৈশ্বিক মহামারী আজকের দুঃসময়ে অনেক ওয়ার্ড কাউন্সিলরকেই আমরা সেভাবে তৎপর দেখছি না। বিষয়টি নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মাঝে ক্ষোভ...

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জেলা আওয়ামীলীগের হাত ধোয়া ও খাদ্য সামগ্রী বিতনের উদ্যোগ

মার্চ ৩১, ২০২০

  মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে হাত ধোয়া ও খাদ্য সামগ্রী বিতনের মহতি উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে করোনা সংক্রমন রোধে প্রতিনিয়ত মানুষের হাত ধোয়ার জন্য নিজ অর্থ দিয়ে অলকা নদীবাংলা কমপ্লেক্সের সামনে পানির ড্রাম ও সাবানের ব্যবস্থা করে মানব সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক জননেতা এডভোকেট মো: মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন আহবান জানিয়েছেন অসহায়দের পাশে দাঁড়াতে তখনই ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে তিনি এ উদ্যোগ গ্রহন করেন। প্রতিদিন মানুষ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে দেয়া পানির ড্রাম ও সাবান ব্যবহার করে উপকৃত হচ্ছে। পাশাপাশি খুব শিগ্রই জেলা ও উপজেলার নিবৃত পল্লীতে অসহায় ও দরিদ্র...

বেপরোয়া বালুর ট্রাকে ধ্বংস হচ্ছে সড়ক নগরবাসীও মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে

মার্চ ০১, ২০২০

ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহ নগরীর সড়ক-মহাসড়কে আইন অমান্য করে দিনরাত বেপরোয়া গতিতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে মাল ও বালুবাহী ট্রাক। সড়কপথে বিভিন্ন যানবাহনে ইটের গুঁড়া, বালু, পাথরকুচি, সিমেন্ট আনা-নেওয়ার সময় গাড়িতে ঢাকনা ব্যবহার না করায় চলন্ত যানবাহন থেকে বালু উড়ে পথচারী, মোটরসাইকেলচালক, রিকশাচালক, যাত্রী, বাইসাইকেল চালকসহ সবার গায়েই লাগে। এতে করে মানুষ শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত অসুখসহ নানা রোগে আক্রান্ত হতে পারে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সুত্রে জানাযায়, ময়মনসিংহে দিনের বেলায় নগরীর ভেতরে ট্রাকসহ ভারি যানবাহন চলাচল পুরোপুরি নিষিদ্ধ। রাত ৮টার পর হালকা ও মাঝারি যানবাহন চলাচল করতে পারে। তবে ১০ বা ১৬ চাকার ট্রাক ও ডাম্পার কোনো সময়ই চলাচলের আইন নেই। আইন উপেক্ষা করে ভারি যান চলাচল অব্যাহত রেখেছেন ট্রাক মালিকরা। সড়কগুলোতে বেপরোয়া যানবাহন চলাচলের নির্দিষ্ট সময় ও নিয়ম কার্যকর করছে না...

‘ময়মনসিংহ-নেত্রকোনা মহাসড়ক দুর্গন্ধ থে‌কে মুক্ত রাখ‌তে মেয়র টিটুর নতুন কৌশল’

ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২০

মো. মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী, ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহ নগরীর চর কালীবাড়ি এলাকার পাটগুদাম শম্ভুগঞ্জ এলাকায় ময়মনসিংহ- নেত্রকোনা সড়কের পাশে সিটি করপোরেশনের আবর্জনার ভাগাড়টি দীর্ঘদিন যাবৎ বিশাল জায়গা জুড়ে রাখা হয়েছিল সিটি করপোরেশনের সকল ময়লা আবর্জনা। এক পর্যায় মহাসড়কের সেই জায়গাটি ময়লার ভাগারে পরিণত হয়। ঘন্টায় ৮০-১০০ কিলোমিটার গতিতে গাড়ী চলার পড়েও যাত্রীদেরও এই দুর্গন্ধের কবলে পড়তে হচ্ছিল, যাত্রীদের তো এই দুর্গন্ধ থেকে কোনও রেহাই ছিলনা। ময়লার দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পরে পাশের দু’টি দুটি গ্রাম। দুর্গন্ধের কারণ আর অন্তহীন দুর্ভোগের শেষ কথা জানা ছিল না কারও। মানববন্ধন, প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ, বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের সংবাদেও টনক নড়েনি কর্তৃপক্ষের। ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোঃ ইকরামুল হক টিটু নিজের পেশাদারিত্বের কাজের পরও ময়লা অপসারণের উদ্দ্যোগ নেয়। বৃহস্পতিবার...

সুন্দরবন বাঁচিয়ে দিল বাংলাদেশকে, সংবাদ সম্মেলনে আবহাওয়া অধিদপ্তর

নভেম্বর ১১, ২০১৯

অতি প্রবল শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’ বঙ্গোপসাগর দিয়ে মূলত বাংলাদেশের স্থলভাগে প্রবেশ করেছে। প্রবেশের সময় ঘূর্ণিঝড়ের একপাশে ছিল পশ্চিমবঙ্গ, আর সুন্দরবন ছিল তিন পাশে। সুন্দরবন অতিক্রম করতে ঘূর্ণিঝড়ের দীর্ঘসময় লাগে ও গতি কমে আসে। ফলে পূর্ণ শক্তি নিয়ে বুলবুল বাংলাদেশের স্থলভাগে আঘাত করতে পারেনি। রোববার সকাল সাড়ে ৮টার পর রাজধানীর আগারগাঁওয়ে অবস্থিত আবহাওয়া অধিদপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান। জাগো নিউজ তিনি বলেন, ‘এটা ভারতের পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করে নাই। কিন্তু ঘূর্ণিঝড়ের একপাশে পশ্চিমবঙ্গ ছিল। ঘূর্ণিঝড়ের তিনদিক জুড়েই ছিল সুন্দরবন।’ বুলবুলের গতি কমার বিষয়টি ব্যাখ্যা করে আব্দুল মান্নান বলেন, ‘বুলবুল যে গতিতে আসার কথা ছিল, সেই গতিতে আসেনি। যখন ঘূর্ণিঝড় জলভাগের ওপর দিয়ে চলে, সেই জলভাগ ঘূর্ণিঝড়ের ওপর তেমন শক্তি প্রয়োগ...

শতাধিক কিলোমিটার গতিতে আঘাত হানবে ‘বুলবুল’

নভেম্বর ০৯, ২০১৯

বঙ্গোপসাগর থেকে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। আবহাওয়াবিদেরা বলছেন, আজ শনিবার সন্ধ্যা নাগাদ বুলবুল পশ্চিমবঙ্গ ও খুলনা উপকূল দিয়ে সমতলে আঘাত হানবে। এ সময় বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১০০ থেকে ১২০ কিলোমিটার। উপকূলের আটটি জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, বরগুনা, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, ভোলা ও চাঁদপুর ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সাগরে বুলবুলের বেগ আরও বেশি। আজ  আবহাওয়া অধিদপ্তরের সবশেষ বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আজ শনিবার দুপুর ১২টায় মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ২৮০ কিলোমিটার, চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৭৫ কিমি, কক্সবাজার উপকূল থেকে ৪৭০ কিমি, এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৩১৫ কিমি দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছিল।   আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, আজ সন্ধ্যা নাগাদ যখন ঘূর্ণিঝড় বুলবুল উপকূলে আঘাত...

বুলবুলের গতিমুখ সুন্দরবনে, ধেয়ে আসছে উপকূলে

নভেম্বর ০৮, ২০১৯

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের গতিমুখ এখন সুন্দরবনের দিকে। সোয়াশ কিলোমিটার বেগের বাতাসের শক্তি নিয়ে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঝড়টি। শনিবার বিকালের পর বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ের প্রভাব অনুভূত হতে পারে। আর খুলনা অঞ্চল দিয়ে মধ্যরাতে উপকূল অতিক্রম করতে পারে বুলবুল। আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, এটি আরও শক্তি জুগিয়ে শুক্রবার সকালে অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। এতে সংকেত বাড়িয়ে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে চার নম্বর স্থানীয় হুশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। সাগর উত্তাল হয়ে ওঠায় বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকেই দেশের দক্ষিণাঞ্চলসহ অধিকাংশ এলাকায় মেঘলা আবহাওয়া বিরাজ করছে। কোথাও কোথাও গুঁড়ি গুঁড়ির বৃষ্টিও হচ্ছে। চট্টগ্রাম...

ব্রহ্মপুত্রের থাবায় গৌরীপুরের ১১ গ্রাম

জুলাই ২৫, ২০১৯

ব্রহ্মপুত্র নদের করাল গ্রাসে ময়মনসিংহের গৌরীপুরের ভাংনামারী ইউনিয়নের আটটি গ্রামে ভয়াবহ ভাঙন শুরু হয়েছে। অপরদিকে নদের পানিতে তলিয়ে গেছে ইউনিয়নের তিন গ্রামের সব ঘরবাড়ি। ফেরিঘাট ডুবে যাওয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে নৌযান চলাচল। নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য গ্রাম ছেড়ে স্বজনদের বাড়ি ও খোলা আকাশের নিচে আশ্রয় নিচ্ছেন দুর্গত মানুষজন। এ বিষয়ে ভাংনামারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মফিজুন নূর খোকা বলেন, স্থানীয় প্রশাসন ও ব্যক্তি উদ্যোগে ভাঙনের শিকার ও পানিবন্দী পরিবারগুলোর মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হলেও, তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। তাই দুর্গত এলাকায় সহযোগিতা বাড়ানোর পাশাপাশি ভাঙন রোধে দ্রুত বাঁধ নির্মাণের দাবি জানাচ্ছি। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর বর্ষার শুরুতেই ব্রহ্মপুত্র নদ ঘেঁষা ভাংনামারী ইউনিয়নের অনন্তগঞ্জ, ভাটিপাড়া, ভাংনামারীর চর, বয়রা, খোদাবক্সপুর, দূর্বাচর,...

বন্যা আরও ভয়াবহ হওয়ার আশঙ্কা

জুলাই ২১, ২০১৯

ভারতের পাশাপাশি চীনের বন্যার পানি বাংলাদেশে ঢুকতে শুরু করলে চলমান বন্যা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করে দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার আশঙ্কা আছে। তবে এ আশঙ্কার কথা মাথায় রেখে সরকার পরিস্থিতি মোকাবিলা করার প্রস্তুতি রেখেছে। আজ রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই আশঙ্কার কথা জানানো হয়। বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি এবি তাজুল ইসলাম সাংবাদিকদের এই আশঙ্কার কথা জানান। তিনি বলেন, এখন ২৮টি জেলা বন্যা কবলিত। দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পরিস্থিতি মোকাবিলায় তাদের প্রস্তুতি আছে। কিছু ক্ষেত্রে ত্রাণ কম পাওয়া বা না পাওয়ার অভিযোগ থাকতে পারে। হতে পারে যেখানে ১০০ টন ত্রাণ সাহায্য দরকার, হয়তো দেওয়া হয়েছে কয়েক টন। তবে, মন্ত্রণালয় এসব মনিটর করছে। মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম যেন আরও গতিশীল ও কার্যকর হয়, কমিটি সেদিকে নজর...

বন্যায় ডুবছে দক্ষিণ এশিয়া, নিহত শতাধিক

জুলাই ১৬, ২০১৯

ভারী বর্ষণ ও বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে দক্ষিণ এশিয়ার তিন দেশ নেপাল, বাংলাদেশ ও ভারত। মৌসুমী বৃষ্টিতে তিন দেশের বেশির ভাগ নিম্নাঞ্চল পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় অন্তত ৪০ লাখ মানুষ বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। এছাড়া বন্যার কারণে মারা গেছেন আরো শতাধিক মানুষ। ভারতে সবচেয়ে বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে দেশটির দারিদ্রপীড়িত প্রদেশ আসাম এবং বিহার। উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় আসামে পানি বাড়তে থাকায় গত ১০ দিনে কয়েক লাখ মানুষ বাড়ি-ঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। স্থানীয় সরকারের এক সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। দেশটির টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর খবরে দেখা যায়, বিহারের অধিকাংশ এলাকার সড়ক ও রেলপথ ডুবে গেছে। লোকজন বুক সমান পানিতে নেমে বাড়িঘর ছেড়ে মাথায় মালপত্র নিয়ে অন্যত্র যাচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়ায় প্রত্যেক বছর বন্যায় ব্যাপক পরিমাণে বাস্ত্যুচুতি ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। বর্ষার...

ব্রেকিং নিউজঃ