| |

খেলাধুলাই পারে একমাএ শিশুকিশোরদেরকে সুস্থ ও সুন্দর জীবনের দিকে এগিয়ে নিতে

আপডেটঃ 12:30 pm | March 20, 2017

Ad

ইব্রাহিম মুকুট ॥ গতকাল ভোরের আলো ক্রীড়া চক্রের উদ্যোগে দাবা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরনি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয় ময়মনসিংহ জিমনেশিয়ামে।

পুরস্কার বিতরনি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জনাব সাজ্জাদ জাহান চৌধুরী শাহীন সাধারন সম্পাদক,ময়মনসিংহ জেলা ক্রীড়া সংস্থা,জনাব মো:চাঁন মিয়া প্রধান শিক্ষক,প্রিমিয়ার আইডিয়াল হাই স্কুল,জনাব বাবু প্রদীপ ভৌমিক সম্পাদক দৈনিক আলোকিত ময়মনসিংহ,জনাব হুমায়ুন কবির সদস্য ময়মনসিংহ জেলা ক্রীড়া সংস্থা,জনাব আশরাফ হোসেন সদস্য ময়মনসিংহ জেলা ক্রীড়া সংস্থা,জনাব মো:মোস্তাফিজুর রহমান(রাসেল) সাধারন সম্পাদক,ভোরের আলো ক্রীড়া চক্র ময়মনসিংহ, উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জনাব কাজী মনজুর মুর্শেদ রাজু সভাপতি ভোরের আলো ক্রীড়া চক্র,ময়মনসিংহ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন জনাব মো:আনোয়ার-উল-হক রিপন উপদেষ্টা ভোরের আলো ক্রীড়া চক্র,ময়মনসিংহ। প্রধান অতিথি অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান তার বক্তব্যে বলেন দাবা মেধাভিওিক ও ধৈর্য্যের খেলা মেধাবী ও ধৈর্য্যের অধিকারিরাই দাবা খেলতে পারে অন্যরা তা পারেনা।

তিনি খেলোয়ারদের সাথে আসা অভিভাবকদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন,শিশু ও কিশোর সন্তানদের নিয়ে আপনারা প্রতিযোগিতায় সন্তানদের সাথে এসেছেন এটা প্রশংসার দাবিদার। কারন আপনাদের সন্তানরা খেলাধুলায় এতে উৎসাহিত হবে।

এই ধারা যদি বজায় রাখতে পারেন তাহলে অবশ্যই আপনাদের সন্তানরা একদিন দেশ ও পরিবারের জন্য সুনাম বয়ে আনবে।

খেলাধুলাই পারে একমাএ শিশুকিশোরদেরকে সুস্থ ও সুন্দর জীবনের দিকে এগিয়ে নিতে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ময়মনসিংহ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক সাজ্জাদ জাহান চৌধুরী শাহিন বলেন দাবা খেলায় ময়মনসিংহের খেলোয়াররা পিছিয়ে নেই।

তার প্রমাণ ভারতে অনুষ্ঠিত যুব ওয়ার্ল্ডকাপে জুনিয়র চ্যাম্পিয়ান দাবা প্রতিযোগিতায় অভিক সরকারের অংশগ্রহন ও সুব্রত সরকারের জাতীয় সাব-জুনিয়র চ্যাম্পিয়ান হওয়া। তিনি আরও বলেন,এই দাবা প্রতিযোগিতায় যারা এক থেকে দুই গ্রপে বিশ পর্যন্ত স্থান অধিকার করেছে তাদের উন্নত প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হবে।

যাতে করে তারা আর্ন্তজাতিক ও জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহন করতে পারে। দৈনিক আলোকিত ময়মনসিংহের সম্পাদক বাবু প্রদিপ ভৌমিক বলেন,সমাজের বিওশালীদের দাবা খেলার উন্নতির জন্য ভোরের আলোর মত ক্রীড়া সংগঠনগুলিকে সাহায্য করা উচিত।

কারন এই সংগঠনগুলি তৃণমুলথেকে দাবা খেলোয়ার তৈরির কাজ করে যাচ্ছে। ময়মনসিংহে ক্লাব পর্যায়ে এটাই প্রথম প্রতিযোগিতা।

ময়মনসিংহে দাবার ইতিহাসে এটা মাইলফলক হয়ে থাকবে। খেলোয়ারদের উৎসাহিত করার জন্য ক্রেস্ট,সার্টিফিকেট ও নগদ প্রাইজ মানি প্রদান করা হয়।

চ্যাম্পিয়ান ও রানার্সআপদের মাঝে পুরষ্কার বিতরন করেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান। অনুষ্ঠান শুরুর পূর্বে অতিথিদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানায় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন কারি খেলোয়ারবৃন্দরা।

ব্রেকিং নিউজঃ