| |

ময়মনিসংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়ক অবরোধ করে মানববন্ধ ও বিক্ষোভ

আপডেটঃ 1:12 am | March 28, 2017

Ad

ঈশ্বরগঞ্জ  প্রতিনিধি ঃময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে নির্মম ভাবে খুন হওয়া শিশু হানজালা হত্যার দ্রুত বিচার ও আসামিদের ফাঁসির দাবিতে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়ক অবরোধ করে মানববন্ধন ও বিক্ষোম করেছে এলাকাবাসী। গতকাল সোমবার মাইজবাগ বাজারে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী বিক্ষোভ শুরু করলেও সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সকাল থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত মহাসড়কের কয়েক কিলোমিটার এলাকায় লক্ষাধিক লোকের উপস্থিতিতে ওই বিক্ষোভ চলে।
জানা যায়, ঈশ^রগঞ্জ উপজেলার মগটুলা ইউনিয়নের তরফ সোনামণি গ্রামের কৃষক মো. জাকারিয়ার ছেলে ও পাড়াবাঁশাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণির মেধাবী ছাত্র শিশু হানজালাকে গত ২১ মার্চ প্রতিবেশি চাচা মুস্তাকীম বিল্লাহ নিজ বাড়ির সামনে থেকে তুলে নিয়ে গলাকেটে হত্যা করে। ২২মার্চ এলাকাবাসী মুস্তকীমকে সন্দেহ করে আটক করে পুলিশে দেয়। পরে মুস্তকীমের দেয়া তথ্যমতে ২৩ মার্চ রাতে নান্দাইল উপজেলার পালাহার বালুয়াকান্দি এলাকা থেকে হানজালার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই ঘটনায় মুস্তকীম আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে। এদিকে শিশু হানজালা হত্যাকা-ের বিচার দ্রুত নিষ্পত্তি করে হত্যাকারীর ফাঁসির দাবিতে গতকাল সকাল থেকে মাইজবাগ বাজারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও গ্রামবাসী। এ সময় উত্তেজিত জনতা রাস্তায় কাঠের গুড়ি ফেলে রাস্তা অবরোধ করে ফেলে। সকাল ৯টায় কর্মসূচি কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা শুরু করলেও বেলা বারার সাথে সাথে আশপাশের গ্রাম গুলো থেকে খ- খ- শোক মিছিল আসতে থাকে। এক সময় শোক মিছিলটি গণমিছিলে রূপ নেয়। অবরোদ্ধ হয়ে পড়ে মহাসড়কের কয়েক কিলোমিটার এলাকা। ছোট ছোট প্ল্যাকার্ড হাতে হানজালার সহপাঠিরা এ সময় কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। এ সময় দলমত নির্বিশেষে সকল রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মীরা গণমিছিলে অংশ নিয়ে কর্মসূচিতে একাত্বতা পোষণ করে বক্তব্যদেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমন, ভাইস চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম ভুইয়া মণি, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান বদরুল আলম প্রদীপ, উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আবদুল হাদী প্রমুখ। তারা হানজালাকে দ্রুত বিচার দাবি করেন। এলাকাবাসীর কর্মসূচি চলাকালে ঈশ্বরগঞ্জ থানার এসআই নূর কাশেম ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসীকে শান্ত করেন। মামলাটির বিচার দ্রুত শেষ করার ব্যবস্থা করবেন বলে আশ্বাস দিলে এলাকাবাসী কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেয়।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি বদরুল আলম খান বলেন, যথাযত প্রক্রিয়ায় বিচার কাজ চলছে। ঘাতক আদালতে শিকারোক্তি দিয়েছে। এর বিচার দ্রুত যাতে হয় সেই চেষ্টা করা হচ্ছে। একটু ধৈর্য্য ধরে এলকাবাসীকে শান্ত থাকতে হবে। যেন আইন শৃঙ্খলার অবনতি না হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিতু মরিয়ম বলেন, ঘাতক ধরা পড়েছে। আমিও চাই এর উপযুক্ত শাস্তি হউক। তবে রাস্তাঅবরোধ করে যেন সাধারন মানুষকে আর কষ্ট দেওয়া না হয় সেই দিখেও খেয়াল রাখতে হবে।

ব্রেকিং নিউজঃ