| |

জামালপুরে কলেজছাত্রী মিমি খুনে এক যুবকের মৃত্যুদন্ড

আপডেটঃ 8:16 pm | March 30, 2017

Ad

মোঃ রিয়াজুর রহমান লাভলু ॥জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ফিসারিজ কলেজের ছাত্রী মমতাজ বেগম মিমি হত্যা মামলার রায়ে আদালত আসামি মাহমুদুল হাসানকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরের জামালপুরের জেলা ও দায়রা জজ মোঃ সায়েদুর রহমান খান আসামির উপস্থিতিতে জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় দেন। রায় ঘোষণার পর আদালতের নির্দেশে দন্ডপ্রাপ্ত আসামি মাহমুদুল হাসানকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।
মামলা সূত্র জানায়, মমতাজ বেগম মিমি (২২) ময়মনসিংহ শহরের চরপাড়ার নয়পাড়া এলাকার এস এম এ মান্নানের কন্যা। মৃত্যু দন্ডপ্রাপ্ত আসামি মাহমুদুল হাসান (২৩) ময়মনসিংহ শহরের কেওয়াটখালী এলাকার বলাশপুর রোডের ডঃ আব্দুল বাকীর ছেলে । তারা দু’জন জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ফিসারিজ কলেজের চতুর্থ সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ছিলেন।

মাহমুদল হাসান তার সহপাঠী মমতাজ বেগম মিমির কাছে প্রেম নিবেদন করে ব্যর্থ হয়ে ২০০৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের ভোরে কলেজের ছাত্রীনিবাসের বাথরুমের পেছনের ভেন্টিলেটর দিয়ে ভেতরে ঢুকে পূর্ব থেকেই উৎপেতে থাকে। ভোর পাঁচটার দিকে মিমি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে কলেজের ছাত্রী নিবাসের ১০৩ নম্বর কক্ষ থেকে বের হয়ে বারান্দায় যাওয়া মাত্রই মাহমুদুল হাসান অতর্কিতভাবে মিমিকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করলে গলা, হাত ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম হয়।

এ সময় তার ডাক চিৎকারে কলেজের ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকেরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে মেলান্দহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অবস্থা বেগতিক হলে ওই দিনই তাকে সেখান থেকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নৃশংস এই খুনের ঘটনায় ওই কলেজের ছাত্রীনিবাসের তত্ত্বাবধায়ক প্রভাষক মোঃ ফরহাদ আলী বাদী হয়ে ঘটনার দিনই ঘাতক মাহমুদুল হাসানকে আসামি করে মেলান্দহ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটির তদন্ত শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা মেলান্দহ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোঃ হোসেন মোল্লা ২০০৯ সালের ১৫ মার্চ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

আদালত মামলাটির ২৩ জন সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ করে আসামির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আসামি মাহমুদুল হাসানকে মৃত্যুদন্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
মামলার রাষ্ট্রপক্ষে পিপি আইনজীবী নির্মল কান্তি ভদ্র এবং আসামি পক্ষ সমর্থন করেন আইনজীবী মোঃ শাহজাহান আলী।

ব্রেকিং নিউজঃ