| |

শহীদ ফিরোজ জাহাঙ্গীর চত্বরে মানববন্ধন কর্মসুচীতে নেতৃবৃন্দ জনবহুল একটি রাস্তায় হকারদের বসতে দিন

আপডেটঃ 12:36 am | April 03, 2017

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ ময়মনসিংহের বিভিন্ন রাস্তা থেকে উচ্ছেদকৃত হাজারো হকাররা পুর্নবাসনের দাবীতে ২এপ্রিল রোববার দুপুর ১২টা হতে ১টা পর্যন্ত ঐতিহাসিক ফিরোজ জাহাঙ্গীর চত্বরে মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করে।

মানববন্ধন কর্মসুচী পালন কালে জাতীয় শ্রমিকলীগ ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি মো: আফতাব উদ্দিন, সিনিয়র সহ সভাপতি মো: নজরুল ইসলাম, সহ সভাপতি মো: ফজলুল হক ভুইয়া, সাধারন সম্পাদক সৈয়দ আওলাদ হোসেন, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও ত্রিশাল পৌরসভার কাউন্সিলর মো: ফুয়াদ হাসান তরফদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: আ: রাজ্জাক, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক গৌতম এষ, অর্থ সম্পাদক মো: তোফাজ্জল হোসেন, প্রচার সম্পাদক মো: মোস্তাক হোসেন জুয়েল প্রমুখ।

এসময় জাতীয় শ্রমিকলীগ ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি মো: আফতাব উদ্দিন বলেন, ৩০/ ৩৫ বছর যাবৎ হকারা ফুপাতে বসে ব্যবসা বানিজ্য করে আসছে। কোনদিন কোন সমস্যা হয়নি।

তিনি বলেন, নাগরিকরা সুন্দর ভাবে চলাফেরা করতে চায় তারা সুন্দর ভাবে চলাফেরা করুক। পাশাপাশি ফুটপাতে হকাররা ব্যবসা করুক। তিনি বলেন, শ্রমিকরা ধর্মমন্ত্রীর বাসার সামলে শান্তিপুর্ন অবস্থান কর্মসুচী পালন করে ধর্মমন্ত্রী মহোদয়কে বিষয়টি বুঝানোর চেষ্টা করেছে।

ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র সাহেবকে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। মেয়র সাহেব প্রতিশ্রে“াতি দিয়েছেন তাজমহল থেকে স্টেশন পর্যন্ত হকারদের বসার ব্যবস্থা করবেন। তিনি আরো বলেন, হকার শ্রমিকরা আজ শহীদ ফিরোজ জাহাঙ্গীর চত্বরে মানববন্ধন করেছে।

১৯৫২সনে ভাষা আন্দোলনে, ১৯৭১ সনে মহান মুক্তিযুদ্ধে, ৯০এর গণঅভ্যূথানে সহ সকল গনতান্ত্রিক আন্দোলনে শ্রমিকরা আন্দোলন করেছে, রক্ত ঝরিয়েছে, শ্রমিকরা দেশের উন্নয়নের সাথে উতপুৎ ভাবে জড়িত রয়েছে। এই শ্রমিকদের পেটে লাথি মেরে তাদের পরিবারকে রাস্তায় নামাতে বাধ্য করবেন না।

শ্রমিকদের আন্দোলনে নামতে বাধ্য করবেন না। জেলা শ্রমিকলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি মো: নজরুল ইসলাম বলেন, ফুটপাত থেকে হকারদের উচ্ছেদ করলেন কিন্তু শহরের প্রতিটি গুরুত্বপুর্ন রাস্তায় গাড়ি পার্কিং তো বন্ধ করলেন না। এলামেলো অবস্থায় রাস্তার উপর রেখে যানজট সৃষ্টিকারী একটি গাড়ীকেও তো জরিমানা করলেনা। বর্তমানে ফটপাতের হকার পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছে।

সহ সভাপতি মো: ফজলুল হক ভুইয়া, আমরা বাচঁতে চাই। আমার পেটে লাথি মেরে আমাদের পরিবারকে পথে বসিয়ে দিবেনা। সাধারন সম্পাদক সৈয়দ আওলাদ হোসেন বলেন, যে কোন অবস্থাতেই হোক শহরের একটি গুরুত্বপুর্ন রাস্তায় হকারদের বসতে দিন। মন্ত্রী মহোদয়, বিরোধী দলীয় নেতা ও এমপি, ডিসি সাহেব, এসপি সাহেব, মেয়র সাহেব সহ সকলে মিলে জরুরী বৈঠক করে হকারদের জীবন জীবিকার কথা চিন্তা করে ব্যবসা করার সুযোগ দিন।

ব্রেকিং নিউজঃ