| |

ময়মনসিংহে সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরে যাচ্ছে তাজা প্রাণ বাদ পড়ছে না শিশুও

আপডেটঃ 9:59 pm | April 10, 2017

Ad

মো: মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী : ময়মনসিংহের কোন না কোন স্থানে প্রায় প্রতিদিনই সড়ক-দুর্ঘটনা সংঘটিত হচ্ছে এবং উদ্বেগজনক হচ্ছে অনাকাঙ্খিত এ ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা ক্রম বাড়ছে। প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। এসব সড়ক দুর্ঘটনায় জানমালের ব্যাপক য়তি হচ্ছে। ঝরে যাচ্ছে তাজা প্রাণ। বাদ পড়ছে না কোমলমতি শিশুও।
জানা গেছে, নানা কারণে সংঘটিত সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা যেমন বিপুল, তেমনি এসব দুর্ঘটনার শিকার হয়ে আহত, নিহত ও পঙ্গু হয়ে পড়া লোকের সংখ্যাও অনেক। সড়কের এসব দুর্ঘটনায় ময়মনসিংহ-ঢাকা মহাসড়কে সড়ক দুর্ঘটনায় বেশি।
তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বুধবার ০৪ জানুয়ারি বেলা ১২টা ২০ মিনিটে ট্রাক ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মধ্যে সংঘর্ষে একই পরিবারের ৩ জনসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন ২ জন। নিহতরা হলেন- গৌরীপুর উপজেলার মৃত হোসেন আলীর স্ত্রী ফাতেমা খাতুন (৬৫), পুত্রবধূ মনোয়ারা (৩৫), নাতী সাকিব মিয়া (৮) ও নান্দাইল উপজেলার চারআনিপাড়ার মৃত মাহতাব উদ্দিনের ছেলে অটোরিকশা চালক চান মিয়া (৩০)।
ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ভালুকা মেহেরাবাড়ী এলাকায় সোমবার ২৩ জানুয়ারী বাস-ট্রাক ও লরির সংঘর্ষে ফয়সাল নামে একজন নিহত হয়। এই দুর্ঘটনায় ১৫ জন আহত হন।
ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভালুকা উপজেলার ভরাডোবা কাবের বাজার এলাকায় বৃহস্পতিবার  ফেব্রুয়ারি সকালে নাতনিকে কোলে নিয়ে রাস্তা পার হওয়ার সময় ময়মনসিংহগামী একটি ট্রাক আব্দুর রহমান মন্ডল (৬৫) ও তার ছেলে কামরুল ইসলামের মেয়ে উর্মি‘কে (২) চাপা দিলে দাদা ও নাতনির মৃত্যু হয়।
ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার সিডস্টোর এলাকায় শনিবার ১১ ফেব্রুয়ারি রাত পৌনে ৯ টার দিকে বাসের চাপায় স্বামী-স্ত্রী মারা গেছেন। নিহতরা হলেন- স্বামী ইমরান খাঁ (৬০) ও স্ত্রী কুলসুম (৫০)।
ময়মনসিংহ-ঢাকা মহাসড়কের স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকায় সোমবার ২০ ফেব্রুয়ারি দিনগত রাত ১২টার দিকে একটি বাসের চাপায় বলাই কৃষ্ণ দাস (২২) নামে ফ্যাক্টরির শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় উত্তেজিত জনতা ওই বাসের পেছনে থাকা আরেকটি বাসে আগুন দিয়েছে।
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে সোমবার ২৭ ফেব্রুয়ারি দিনগত রাত আড়াইটার দিকে লক্ষ্মীগঞ্জ বাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় মর্তুজা আলী সরকার (৪৩) নামের এক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য ঘটনাস্থলে ও শাহীন মিয়া (২৫) নামের অপর এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। নিহত মর্তুজা আলী উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ছিলেন।
ময়মনসিংহ- ঢাকা মহাসড়কের ত্রিশাল বৈলর বাসস্টেশন এলাকায় বুধবার ৮ মার্চ ময়মনসিংহগামী পিকআপ ও  রাস্তায় দাঁড়ানো এক সিএনজি অটোরিকশার সংঘর্ষে অটোরিকশার একজন যাত্রী আ. কাদের নিহত হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন সিএনজি ও পিকআপের চালকসহ আরও ছয়জন।
ভালুকা উপজেলার সিডস্টোর এলাকায় শুক্রবার ১০ মার্চ সন্ধ্যায় রাস্তা পার হওয়ার সময় বাসচাপায় মিশু আক্তার (১১) নামে এক শিশু নিহত হয়েছে। এ সময় উত্তেজিত জনতা বাসটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। অপর দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল বগারবাজার এলাকায় ময়মনসিংহগামী এনা পরিবহনের একটি বাসকে পিছন থেকে শ্যামলী বাংলা পরিবহন ওভারটেক করার সময় রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা পথচারীদের উপর উঠে অজ্ঞাত পরিচয় এক যুবক (২৫) নিহত হয়।
সর্বশেষ ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ভালুকা মাস্টারবাড়ী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সোমবার ১৩ মার্চ নিহত হন মো. শফিকুল ইসলাম খান ওরফে শফিক খা (৪২)। এর আগে দুপুরে নাসিরগ্লাসের সামনে বাসচাপায় রোমান (২৮) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন।
ময়মনসিংহের তারাকান্দায় বুধবার ২২ মার্চ সকাল ১০টার দিকে বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে আনুমানিক ২৫ বছর বয়সী অজ্ঞাতপরিচয় এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১০ জন।
ভালুকা উপজেলার নায়েবের বাজার এলাকায় শনিবার ০৮ এপ্রিল সকাল সোয়া ৮টার দিকে শ্রমিকদের বহনকারী একটি বাস উল্টে দুই শ্রমিক নিহত এবং অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন রিপন (৪০) ও কামরুল ইসলাম (৩০)। এর আগে শুক্রবার ০৭ এপ্রিল দিবাগত রাত পৌনে একটার দিকে উপজেলার ভাইটকান্দি সখল্লা মোড় এলাকায় ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ নিহত হন ময়মনসিংহ শহরতলির দিঘারকান্দা গ্রামের শহীদ (৪২), হৃদয় (২০) ও ময়মনসিংহ শহরের কেওয়াটখালি এলাকার ইদ্রিস (৪২)।
রোববার ০৯ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ফুলবাড়িয়া উপজেলার লক্ষ্মীপুর এলাকা থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা যোগে ময়মনসিংহে আসার পথে একটি গাড়ি ওই অটোরিকশাকে চাপা দেয় ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলা জাসদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সামছুল হক সরকার (৫০)। এতে তিনি মাথায় গুরুতর আঘাত পান। এ সময় তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে নেওয়া হলে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ইন্টার্ন চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
২০১৭ সালে জানুয়ারী মাস থেকে এপ্রিল এর ৯ তারিখ পর্যন্ত ময়মনসিংহ সড়ক দুর্ঘটনায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে চলতি বছরে ময়মনসিংহে প্রাণ গেল ২৩ জনের। এসব দুর্ঘটনায় অনেক আহতের কান্নায় ভারি হচ্ছে হাসপাতালের পরিবেশ।
সড়ক দুর্ঘটনার কার্যকারণ অনুসন্ধান করে দেখা গেছে যে, অধিকাংশ েেত্র সড়ক পথের অপ্রশস্থতা ও সংকীর্ণতা, উঁচু-নিচু অবস্থান, দুরবস্থা, ভাঙচুর দশা, যানবাহনের যান্ত্রিক ত্রুটি-বিচ্যুতি, গোলযোগ, যানবাহনের লক্কড়মার্কা অবস্থা, ড্রাইভারের অদতা, অনভিজ্ঞতা, বেপরোয়া গাড়ি চালানোর প্রবণতা, ওভারটেক করার প্রবণতা, অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই, পথচারীদের অসাবধানতা ও দায়িত্বহীনতা, গতিবেগ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার অভাব ইত্যাদি বহুবিধ কারণে সড়ক দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়ে থাকে।

ব্রেকিং নিউজঃ