| |

ত্রিশালে কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় গৃহবধুর চুল কেটে নিল আওয়ামীলীগ নেতার ভাই

আপডেটঃ 7:22 pm | April 12, 2017

Ad

ত্রিশাল অফিসঃ ময়মনসিংহের ত্রিশালের মঠবাড়ী এলাকায় কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় রওশন আরা নামে এক গৃহবধুর চুল কেটে নিল এক ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ভাই আফাজ উদ্দিন। এর আগে একাধিকবার যৌন লালসায় চাড়াও হওয়ার ঘটনাও রয়েছে। অভিযুক্তের বড় ভাইয়ের কাছে বার বার নালিশ করার পরও কোন সমাধান মেলেনি।
জানা গেছে, উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত উমির ফকিরের ছেলে শারীরিক প্রতিবন্ধী সুরুজ আলীর প্রায় ২০ বছর আগে ফুলবাড়ীয়া উপজেলার রাধাকানাই গ্রামের কদ্দুস মন্ডলের মেয়ে মোছাঃ রওশন আরা (২৮) এর সাথে বিয়ে হয়।

বর্তমানে তাদের দুই ছেলে এবং দেড় বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। শারীরিক প্রতিবন্ধী সুরুজ আলী স্থানীয় পোড়াবাড়ী বাজারের একজন সবজি ব্যবসায়ী। একই এলাকার মৃত হাতেম আলীর ছেলে  মঠবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শামছুদ্দিনের ছোট ভাই আফাজ উদ্দিন(৪৫) সুরুজ আলীর সাথে সু-সম্পর্ক থাকায় তার বাড়ীতে দীর্ঘদিন যাবত আসা যাওয়া ছিল।

সেই সুবাধে সুরুজ আলীর স্ত্রীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক তৈরী করার লক্ষে কু-প্রস্তাব দেয় এবং প্রতিনিয়ত বিভিন্ন লোভ দেখিয়ে আসছিলো। তার প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় যৌন লালসায় চাড়াও হয়ে উঠে ওই নরপশু। বাড়ী ও বাড়ীর বাহিরে প্রতিনিয়তই যৌন হয়রানী করে আসছিলো আফাজ উদ্দিন। উপায় না পেয়ে তার বড় ভাই মঠবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শামছুদ্দিনের কাছে অনেক বার নালিশ করার পরও কোন সমাধান পায়নি বলে জানান রওশন আরার স্বামী সুরুজ আলী।
গৃহবধু রওশন আরা জানান, আফাজ উদ্দিনের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সে নানা ভাবে যৌন হয়রানি শুরু করে। গত ২এপ্রিল রবিবার সন্ধার দিকে আফাজ উদ্দিন সহ কয়েক জন মুখোশধারী দেশীয় অস্ত্র হাতে এসে বাড়ীর অন্য লোকদের ভয় দেখিয়ে আমার মাথার চুল কেটে নেয়। আমি আফাজ উদ্দিনের বিচার চাই।
ঘটনার সময় আশপাশে থাকা মহিলারা জানান, অস্ত্রের ভয়ে আমরা কেউ রওশন আরার কাছে যেতে পারি নাই। ওই সময় বাড়ীতে কোন পুরুষ লোক ছিলনা।
এ ব্যাপারে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শামছুদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।
মঠবাড়ী  ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল কদ্দুছ বলেন আমি ঘটনা শুনেছি এবং ভোক্তভোগীদের আইনের আশ্রয় নিতে বলেছি, আমি দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি চাই।

ব্রেকিং নিউজঃ